সোমবার ০৩ আগস্ট ২০২০
Online Edition

গাজার রকেট হামলার জবাবে ইসরাইলের বিমান হামলা

৫ মে, রয়টার্স, মিডল ইস্ট মনিটর : ইসরাইল লক্ষ্য করে ছোঁড়া কয়েকশ রকেটের জবাবে গাজায় ট্যাঙ্ক থেকে গোলাবর্ষণ ও বিমান হামলা চালিয়েছে ইসরাইলী সামরিক বাহিনী। শুক্রবার থেকে শুরু হওয়া এ পাল্টাপাল্টি হামলা গতকাল রোববার তৃতীয় দিনে গড়িয়েছে এবং এতে দুপক্ষের অন্তত ১৩ জন নিহত হয়েছে।

গতকাল রোববার গাজা থেকে ছোড়া একটি রকেটের বিস্ফোরণে এক বেসামরিক ইসরাইলী নিহত আর ইসরাইলী হামলায় দুই ফিলিস্তিনি বন্দুকধারী নিহত হয় বলে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

গত শনিবার দিবাগত রাতে গাজার সীমান্তবর্তী ইসরাইলী এলাকাগুলোতে বারবার রকেট হামলার সাইরেন বেজে ওঠে। এতে ওই এলাকার ইসরাইলীদের রাতভর আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে যাওয়া-আসার মধ্যে থাকতে হয়। এ সময় ইসরাইলী রকেট প্রতিরোধী ক্ষেপণাস্ত্রগুলোকে আকাশে ফিলিস্তিনি রকেট নিষ্ক্রিয় করতে দেখা যায়।

ইসরাইলী পুলিশ জানিয়েছে, গাজা থেকে ছোড়া রকেটগুলীর একটি আশকেলন শহরের একটি বাড়িতে আঘাত হেনেছে, এতে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। 

অপরদিকে ইসরাইলী বোমাবর্ষণে গাজার ভবনগুলো কেঁপে কেঁপে উঠেছে এবং ফিলিস্তিনিরা পালিয়ে আড়াল নিতে বাধ্য হয়েছে বল জানিয়েছেন স্থানীয়রা। গতকাল রোববার ভোরের আগে তাদের দুই সদস্য নিহত হয়েছেন বলে ফিলিস্তিনি সশস্ত্র ইসলামি জিহাদ জানিয়েছে।

গত শুক্রবার ইসলামিক জিহাদের এক স্নাইপার ইসরাইলী সেনাদের দিকে গুলী ছোড়ার পর গাজা সীমান্তে নতুন করে সহিংসতার সূত্রপাত হয়। ওই স্নাইপারের গুলীতে তাদের দুই সেনা আহত হয়েছেন বলে ভাষ্য ইসরাইলী সামরিক বাহিনীর।

এর প্রতিক্রিয়ায় গাজায় বিমান হামলা চালায় ইসরাইল। এতে গাজা নিয়ন্ত্রণকারী ফিলিস্তিনি রাজনৈতিক গোষ্ঠী হামাসের দুই যোদ্ধা নিহত হন। 

একইদিন ইসরাইলী সীমান্তের কাছে প্রতিবাদরত দুই ফিলিস্তিনিকেও ইসরাইলী বাহিনী গুলী করে হত্যা করে বলে জানিয়েছেন ফিলিস্তিনি কর্মকর্তারা।

গত শনিবার থেকে হামাস ও ইসলামিক জিহাদের যোদ্ধারা ইসরাইলের গত াম ও শহরগুলো লক্ষ্য করে চারশতাধিক রকেট ছুড়েছে বলে জানিয়েছে ইসরাইলী সামরিক বাহিনী। এর জবাবে গাজার প্রায় ২০০টি লক্ষ্যে পাল্টা গোলা ও বিমান হামলা চালানো হয়েছে বলে জানিয়েছে তারা। 

এক বিবৃতিতে ইসলামিক জিহাদ জানিয়েছে, শুক্রবারের হামলা এবং কায়রোর মধ্যস্থতায় হওয়া আগের দফা সমঝোতা বাস্তবায়নে ইসরাইলের সময় ক্ষেপণের প্রতিক্রিয়ায় রকেটগুলো ছোড়া হয়েছে।

গত শনিবার ইসরাইলী সামরিক বাহিনীর মুখপাত্র লেফটেনেন্ট কর্নেল জনাথন কনরিকাস জানিয়েছেন, হামলার মাত্রা আরও বাড়ানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে ইসরাইল। ইসলামিক জিহাদ সীমান্তকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করছে আর হামাস তাদের নিয়ন্ত্রণ করতে ব্যর্থ হয়েছে বলে অভিযোগ তার। 

অপরদিকে একইদিন এক যৌথ বিবৃতিতে হামাস ও ইসলামিক জিহাদ বলেছে, “শত্রু যদি যুদ্ধ চাপিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে তাহলে আমাদের প্রতিক্রিয়া আরও বিস্তৃত ও আরও যন্ত্রণাদায়ক হবে।”

মুসলিমদের পবিত্র মাস রমজান ও ইসরাইলের স্বাধীনতা দিবসের ছুটির ঠিক আগে ইসরাইল-গাজা সংঘাত ফের উস্কে উঠল। 

দুই সপ্তাহেরও কম সময়ের মধ্যে তেল আবিবে ইউরোভিশন সংগীত প্রতিযোগিতা-২০১৯ এর ফাইনাল হওয়ারও কথা রয়েছে। মার্চে গাজা থেকে তেল আবিব লক্ষ্য করে দূর-পাল্লার রকেট ছোড়া হয়েছিল, এ কারণে সংঘাত না কমলে আয়োজকরা ওই অনুষ্ঠান নিয়ে শঙ্কায় পড়তে পারেন।

দুই পক্ষের মধ্যে পাল্টাপাল্টি রকেট ও বিমান হামলা নিয়মিত ঘটনা হলেও গত পাঁচ বছর ধরে সর্বাত্মক যুদ্ধ এড়াতে পেরেছে বৈরি পক্ষ দুটি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ