রবিবার ২৯ নবেম্বর ২০২০
Online Edition

গ্যাস সঙ্কট নিরসনে প্রধানমন্ত্রীর  হস্তক্ষেপ কামনা করছি -মাওলানা আতাউল্লাহ হাফেজ্জী 

 

বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের আমীর মাওলানা শাহ আতাউল্লাহ হাফেজ্জী বলেছেন, রাজধানীর সিটি কর্পোরেশনের অন্তর্ভূক্ত কামরাঙ্গীরচরে দীর্ঘদিন যাবৎ গ্যাস সঙ্কটের কারণে সাধারণ জনগণ চরম দুর্ভোগে দিন কাটাচ্ছেন। গ্রাহকদের থেকে প্রতি মাসে গ্যাস বিল নেয়া হলেও ৮/৯ বছর যাবৎ তাদের ন্যায্য পাওনা গ্যাস দেয়া হচ্ছে না। ক্রেতাকে ক্রয়কৃত বস্তু না দিয়ে তার কাছ থেকে মূল্য নেয়া চরম জুলুম ছাড়া আর কিছু নয়। তিনি আরো বলেন, সরকার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার অঙ্গীকার করে বারবার ক্ষমতায় আসছে অথচ মানুষের নিত্যপ্রয়োজনীয় গ্যাসের চাহিদাই পূরণ করতে পারছে না। যাতে সরকারের চরম ব্যর্থতা প্রমাণিত হয়। সরকারের উচিত জনগনের ভোগান্তি না বাড়িয়ে দুর্ভোগ নিরসন করা। কামরাঙ্গীরচরে গ্যাস সঙ্কট নিরসনে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি। রমযানের আগেই গ্যাস সরবরাহ নিশ্চিত করতে হবে অন্যথায় গ্যাসের দাবিতে জনগণ কঠোর আন্দোলনে নামতে বাধ্য হবে। 

গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় গ্যাস সঙ্কট নিরসনের দাবিতে খেলাফত আন্দোলন কামরাঙ্গীরচর থানা শাখার উদ্যোগে মাদবরবাজার মেইনরোডে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। থানা আমীর মাওলানা সাজেদুর রহমান ফয়েজীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মাঝে বক্তব্য রাখেন দলের মহাসচিব মাওলানা হাবিবুল্লাহ মিয়াজী, কেন্দ্রীয় নায়েবে আমীর মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী, সাংগঠনিক সম্পাদক মুফতি সুলতান মহিউদ্দিন, থানা সাধারণ সম্পাদক মুফতি আ ফ ম আকরাম হুসাইন, মাওলানা লুৎফুর রহমান, মুফতি আব্দুস সালাম, মুফতি আল আমিন, এলাকার জনগণের পক্ষে জনাব ইউনুছ আহমাদ, বেলায়েত হোসেন প্রমুখ।

মাওলানা হাবিবুল্লাহ মিয়াজী বলেন, কতিপয় লোক পরিকল্পিতভাবে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে গ্যাসের সুবিধা ভোগ করছে আর সাধারণ জনগণের মৌলিক অধিকার হরণ করে চলছে। অবিলম্বে তাদেরকে সনাক্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে হবে এবং কামরাঙ্গীরচরে গ্যাস সরবরাহ নিশ্চিত করতে হবে। 

মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী বলেন, রাষ্ট্রের দায়িত্ব নাগরিকের মৌলিক চাহিদা পূরণ করা। গ্যাস সরবরাহ নিশ্চিত করা সরকারের দায়িত্ব। দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হলে ক্ষমতায় থাকার কোন অধিকার নেই। তিনি অবিলম্বে জনগনের ন্যায্য অধিকার গ্যাস সরবরাহ নিশ্চিত করার দাবি জানান। 

মুফতি সুলতান মহিউদ্দীন বলেন, আমাদের দেশের প্রধানমন্ত্রী নারীদের জন্য অনেক মায়া-কান্না করেন। কুরআনের আইন উপেক্ষা করে সম্পত্তিতে নারীদের সমান অধিকারের কথা বললেও গ্যাস সঙ্কট নিরসন করে নারীদের দুর্ভোগ দূর করতে পারেন না। 

মুফতি আ ফ ম আকরাম হুসাইন বলেন, গ্যাস না থাকায় বিকল্প হিসেবে সিলিন্ডার ব্যবহার করতে গিয়ে বিস্ফোরণে অসংখ্য মানুষ প্রাণ হারাচ্ছে। অগ্নিকা-ের মত ভয়াবহ দূর্ঘটনা ঘটছে। সিলিন্ডার নয় জনগণকে তাদের প্রাপ্য অধিকার গ্যাস ফিরিয়ে দিন। 

সভাপতির বক্তব্যে মাওলানা সাজেদুর রহমান ফয়েজী বলেন, সৌদির জন্য তেল আর বাংলাদেশের জন্য গ্যাস আল্লাহ প্রদত্ত মহান নেয়ামত। বিশেষজ্ঞদের তথ্যমতে এ দেশ আগামী ৫০ বছরেও গ্যাস সঙ্কটে পড়ার কথা না। কিন্তু আজ গ্যাসের দাবিতে বিক্ষুদ্ধ নারী-পুরুষের রাস্তায় আন্দোলনে নেমে আসা সরকারের জন্য চরম লজ্জা ও অপমানজনক। অনতিবিলম্বে গ্যাস সরবরাহ নিশ্চিত না হলে দাবি পূরণে আমরা আরো কঠোর কর্মসূচী ঘোষণা করতে বাধ্য হবো। 

কর্মসূচি : গ্যাস সঙ্কট নিরসন না হলে আগামী ১৭ মে বাদ জুমা বিক্ষোভ সমাবেশ ও কালো পতাকা উত্তোলন কর্মসূচী অনুষ্ঠিত হবে। তারপরেও দাবি আদায় না হলে গণজমায়েত ও প্রধানমন্ত্রী বরবার স্মারকলিপি প্রদানের কর্মসূচী পালিত হবে। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ