শনিবার ১১ জুলাই ২০২০
Online Edition

পরিত্যক্ত নবজাতক

আজকাল পথেঘাটে বা ডাস্টবিনে প্রায়শ নবজাতক মানবশিশু পড়ে থাকতে দেখা যায়। এদের কোনও কোনওটা মরে পড়ে থাকে। কোনওটার জীবনপ্রদীপ নিবুনিবু করে। কোনওটার আবার হাত-পায়ের কিছু অংশ কুকুর-বেড়ালের মতো কোনও মাংসাশী প্রাণি খেয়েও ফেলে। সদ্যজাত মানবশিশুর এমন পরিণতি সত্যই দুর্ভাগ্যজনক। অনাকাক্সিক্ষত। পরিত্যক্ত শিশুদের কেউ দেখলে নিজেরাই নিয়ে প্রতিপালন করেন। কেউবা এতিমখানায় নিয়ে যান। কেউ আবার পরিত্যক্ত বিপন্ন শিশুটিকে হাসপাতালে নিয়ে যান চিকিৎসার জন্য। এগুলো সবই মানবিক সদগুণ। আর যারা নবজাতক শিশুকে পথের ধারে বা ভাগাড়ে ফেলে যায় তারাও মানুষ। তবে বিবেকহীন। মনুষ্যত্বহীন। সুষ্ঠু ও স্বাভাবিক মানুষ এমন নির্দয় কাজ সাধারণত করে না। করতে পারে না।
প্রধানত কয়েকটি কারণে মানবশিশু এভাবে পরিত্যক্ত অবস্থায় পাওয়া যায়। কারুর অনাকাক্সিক্ষতভাবে শিশু জন্ম নিলে, যেমন কারুর অনেক সন্তান রয়েছে। আর দরকার নেই। কিন্তু তাও এসে যায়। আবার বিবাহবহির্ভূত অবস্থায় কারুর সন্তান জন্ম নিলে কেউ কেউ সামাজিক কারণে নবজাতককে ফেলে দিতে বাধ্য হয়। আবার কারুর ঘরে অতিরিক্ত সন্তান থাকায় ভরনপোষণের সক্ষমতা থাকে না। এমন হলেও কেউ কেউ কোলের নবজাতক ফেলে দেয়। অনেকে অনাকাক্সিক্ষত সন্তান না নেবার আধুনিক পদ্ধতিগ্রহণের পরও অসতর্কতাবশত বাচ্চা হয়ে যায়। তারাও কোনও কোনও সময় লুকিয়ে নবজাতক ফেলে দেয়। তবে এসব কারণে নবজাতক ফেলে দেয়া কেবল দুর্ভাগ্যজনকই নয়; সভ্যতাপরিপন্থি এবং অমানবিক।
বলতে দ্বিধা নেই, নবজাতক ফেলে দেবার অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা আমাদের তথাকথিত সভ্যসমাজে দ্রুত বাড়ছে। আবার অনেক নিঃসন্তান দম্পতি আছেন, যারা শিশুর জন্য হাহাকার করেন এবং এসব পরিত্যক্ত নবজাতকের একটি পেয়ে শূন্য বুক জুড়োতে চান। এমন দৃষ্টান্তেরও অভাব নেই। প্রকৃতিগতভাবেই অনেকের সন্তান হয় না। আবার সব নবজাতক অনাকাক্সিক্ষতও নয়। কোনও কোনও মা-বাবা দুর্ঘটনায় মারা গেলেও নবজাতক অসহায় হয়ে পড়তে পারে। আবার প্রসবের সময় মা কোনওভাবে মারা গেলেও  কোনও দুর্ভাগা পিতা বা তার আপনজনেরা নবজাতককে এদের কেউ নিয়ে গেলে অনায়াসেই কোনও নিঃসন্তান দম্পতি সন্তানের আকাক্সক্ষা পূরণ করতে পারেন। আর এমন যারা করেন তাঁরা সমাজের জন্য বিরাট সেবা করেন নিশ্চয়ই।
নবজাতকরা যেভাবে এবং যেকারণেই পরিত্যক্ত হোক না কেন, বেঁচে থাকবার অধিকার এদেরও আছে। পথেঘাটে কিংবা ভাগাড়ে ফেলে দিয়ে এদের মেরে ফেলবার অধিকার কারুর নেই। থাকতে পারে না। অনাকাক্সিক্ষত নবজাতক ফেলে দেয়া হতভাগ্য দম্পতি বা নারীপুরুষের দীনতা ও হীন মানসিকতারই বহিঃপ্রকাশ। আদতে তারাও মানবশিশু। বড় হবার সুযোগ পেলে পথের ধার কিংবা ভাগাড় থেকে কুড়িয়ে পাওয়া নবজাতকটিও দেশের বড় কোনও বিজ্ঞানী, সমাজসেবক, চিকিৎসক, শিক্ষাবিদ এমনকি রাষ্ট্রনায়কও হতে পারে। তাই পরিত্যক্ত কোনো নবজাতকই যেন উপেক্ষিত না হয়, অবহেলায় বিপন্ন না হয়ে পড়ে সেদিকে সরকারসহ সামর্থবানদের অবশ্যই করণীয় রয়েছে বলে আমরা মনে করি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ