বৃহস্পতিবার ২৬ নবেম্বর ২০২০
Online Edition

সবার মাঝে সেবার মনোভাব থাকায় প্রতিদিন শত শত রোগী সেবা পাচ্ছে

চট্টগ্রাম চক্ষু হাসপাতালে এমএস (অফথালমোলোজি) কোর্সের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন বিএসএমএমইউ-এর ভিসি অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বগুড়া -সংগ্রাম

চট্টগ্রাম ব্যুরো : চট্টগ্রাম চক্ষু হাসপাতাল ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে এমএস (অফথালমোলোজি) কোর্সের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান  ১১ এপ্রিল বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টায় হাসপাতালের ইমরান সেমিনার হলে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন  চক্ষু বিশেষজ্ঞ হাসপাতালের ম্যানেজিং ট্রাস্টি ইম্পেরিয়াল হাসপাতালের বোর্ড চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. রবিউল হোসেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) এর ভিসি অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়–য়া। বক্তব্য রাখেন, বিএসএমএমইউ কমিউনিটি অফথালমোলোজি’র চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমদ, বাংলাদেশ এডিজি অব হেলখ সার্ভিস এর অধ্যাপক ডা. এ.এইচ.এম এনায়েত হোসেন, বিএসএমএমইউ অফথালমোলোজি এর চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. জাফর খালেদ, বিএসএমএমইউ এর পরিচালক (পরিদর্শন) অধ্যাপক ডা. এ.কে.এম সালেক, বিএসএমএমইউ অধ্যাপক ডা. গোলাম হায়দার, অধ্যাপক ডা. এ.এ.ওয়াদুদ, বারডেম হাসপাতালের অধ্যাপক ডা. আশরাফ সাঈদ, বিএসএমএমইউ এর সহযোগী অধ্যাপক ডা. নুজহাত চৌধুরী, সহযোগী অধ্যাপক ডা. শওকত কবির, ওএসবি এর জেনারেল সেক্রেটারী অধ্যাপক ডা. আবদুল কাদের, বাংলাদেশ আই হাসপাতালের ডা. নিয়াজ আবদুর রহমান, গোপালগঞ্জ শেখ ফজিলাতুননেচ্ছা মুজিব আই হাসপাতাল ও ট্রেনিং ইনিস্টিটিউট এর পরিচালক অধ্যাপক ডা. সাইফুদ্দিন আহমেদ, কু-েশ্বরী ওষুধালয়ের মহাপরিচালক প্রফুল্ল রঞ্জন সিংহ, চট্টগ্রাম চক্ষু হাসপাতালের আইসিও এর পরিচালক ডা. খুরশীদ আলম, একাডেমিক কোডিনেটর অধ্যাপক ডা. মনিরুজ্জামান ওসমানী প্রমুখ। অনুষ্ঠানে প্রবন্ধ পাঠ করেন হাসপাতালের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা. সামস্ মোহাম্মদ নোমান। ডা. সাহেলা শায়লা বেগমের উপস্থাপনায় প্রধান অতিথি অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়–য়া বলেন, চট্টগ্রাম চক্ষু হাসপাতাল ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র একটি ব্যতিক্রমধর্মী প্রতিষ্ঠান। যে প্রতিষ্ঠানের প্রতিটি চিকিৎসক ও কর্মকর্তা কর্মচারীরাদের মাঝে সেবার মনোভাব রয়েছে। যার ফলে আজ প্রতিদিন শত শত রোগী এ হাসপাতালের সেবা পাচ্ছে। তিনি  চক্ষু বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. রবিউল হোসেনকে চক্ষু চিকিৎসার প্রাণ পুরুষ উল্লেখ করে বলেন, অনেক ত্যাগ তিতিক্ষার বিনিময়ে সেবার মনোভাব নিয়ে তিনি এ হাসপাতালটি প্রতিষ্ঠা করেছেন। যার ফলে বছরের লক্ষ লক্ষ রোগী সেবা পাচ্ছে। একই সাথে এ হাসপাতালে যারা লেখা পড়া করছে তারা পড়ালেখার পাশাপাশি এ বৃহৎ রোগীর সেবা নিজ চোখে অবলোকন করে অভিজ্ঞতার ভান্ডার পূর্ণ করে আসছে। সভাপতির বক্তব্যে হাসপাতালের ম্যানেজিং ট্রাস্টি অধ্যাপক ডা. রবিউল হোসেন বলেন, মানুষকে সেবা দেয়ার মনোভাবটাই হচ্ছে সব থেকে বড় কথা। এই সেবা আরো সহজে রোগীদের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে আমাদের নিরলস প্রচেষ্টা অব্যহত রয়েছে। তিনি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, এমএস (অফথালমোলোজি) যে কোর্সটি শুরু হয়েছে এ কোর্স সম্পন্ন করে তোমরা দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চেলে সেবার আলোকবর্তিকা জ্বেলে দিবে। এতে দেশের মানুষ উপকৃত হবে। তাহলে আমাদের এ শ্রম সার্থক হবে। ম্যানেজিং ট্রাস্টি অধ্যাপক ডা. রবিউল হোসেন মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ডা. ইমরানকে স্মরণ করে বলেন, হাসপাতালের কর্মরতদের অভিজ্ঞতা দক্ষতার স্বীকৃতি দিতে প্রতিবছর ডা. ইমরানের নামে গোল্ড মেডেল দেয়া হবে। এর আগে গত বছর মার্চ মাসে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে চট্টগ্রাম চক্ষু হাসপাতাল ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র এবং ইনস্টিটিউট অব কমিউনিটি অফথালমোলোজি’র এক সমঝোতা স্বক্ষরিত হয়। সমঝোতার আওতায় এমএস (অফথালমোলোজি) কোর্সে চট্টগ্রাম চক্ষু হাসপাতালের ডাক্তাররা কোর্চে অন্তভূর্ক্ত বেসিক সায়েন্স ও অন্যান্য সংশ্লিস্ট বিষয়ে উক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন প্রশিক্ষণ সম্পন্ন করতে পারবে। সমঝোতার মাধ্যমে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের এমএস (অফথালমোলোজি) কোর্সের ডাক্তাররা আন্তর্জাতিক মানের চট্টগ্রাম চক্ষু হাসপাতাল ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে উন্নতমানের বিভিন্ন বিভাগের অন্যান্য সাব-স্পেশেলিটি এবং মাঠ পর্যায়ের প্রশিক্ষণ গ্রহনের সুযোগ পাবে। সমঝোতায় দুই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক বিনিময় এবং যৌথ গবেষণা কাজের সুযোগ রয়েছে। চলতি বছরের মার্চ মাস থেকে চট্টগ্রাম চক্ষু হাসপাতালে এই কোর্সের ক্লাস শুরু হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ