শনিবার ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১
Online Edition

শাহজাদপুরে অর্ধশত সেতুর সংযোগ সড়ক নেই

শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) : সংযোগ সড়ক বিহীন ডায়া ঘোনাপাড়া ব্রিজ

এম.এ. জাফর লিটন, শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) : সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার প্রায় অর্ধশত স্থানে সেতু থাকলেও নেই কোন সংযোগ সড়ক। সম্পূর্ণ অপরিকল্পিত ভাবেই নির্মিত হয়েছে সেতুগুলো। সংযোগ সড়ক না থাকায় জনসাধারণের কোন উপকারে আসছেনা এই সেতু।  সত্ত্বেও জমিনে ঘুরে দেখা যায়, উপজেলার গাড়াদহ ইউনিয়নের পুরানটেপরী গ্রামের কবরস্থানের পাশে ৪০ ফুট দৈর্ঘেও একটি কংক্রিট সেতু গত ১৮ বছর ধরে পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। পুরান টেপরী গ্রামের বাবুল হোসেন ও দেলবার হোসেন জানান, ২০০০ সালের দিকে শাহজাদপুর উপজেলার দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগ প্রায় ৩৬ লাখ টাকা ব্যয়ে সেতুটি নির্মাণ করে। সেই থেকে গত ১৮ বছরেও পরিত্যক্ত এ সেতুটির দু‘পাশে কোন সংযোগ সড়ক নির্মাণ করা হয়নি। ফলে সেতুটি এলাকাবাসির কোন কাজেই আসছে না। এটি এখন এলাকাবাসির গলার কাঁটা ও মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। ইতিমধ্যেই সেতুটির রেলিং ভেঙে পড়েছে। অনেক স্থানের খোয়া বালি খসে খসে পড়েছে। শেওলা ও জঙ্গলে ছেয়ে গেছে সেতুর চারপাশ। ফলে পরিত্যক্ত এ সেতুটি এখন এলাকাবাসির কাপড় ও শুকানোর স্থানে পরিণত হয়েছে। একই অবস্থান কায়েমপুর ইউনিয়নের চকহরিপুরগামী ব্রীজটিরও। এটিও , ২০০০ সালে ৩৬ লাখ টাকা ব্যয়ে সেতুটি নির্মাণ করা হয়েছে। এটিওর রেলিং ভেঙ্গে পরিত্যক্ত অবস্থায় পরে আছে। উপজেলার গালা ইউনিয়নের ভেড়াকোলা মাঠের মধ্যে নির্মিত আরেকটি সেতু পরিত্যক্ত পরে আছে।  বেলতৈল ইউনিয়নের চর বেলতৈল গ্রামে ৩টি সেতু পরিত্যক্ত। কাদাই গ্রামে ১টি, কুটি সাতবাড়িয়া গ্রামে ২টি সেতু পরিত্যক্ত আছে। জালালপুর ইউনিয়নের সরাতৈল, সৈয়দপুর, মনকান্দী গ্রামে ৩টি সেতু পরিত্যক্ত আছে দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে। হাবিবুল্লাহনগর ইউনিয়নের ডায়া ঘোনাপাড়া গ্রামের খালের উপর নির্মিত ২টি কংক্রিট সেতুর দু‘পাশের সংযোগ সড়ক না থাকায় ৪ বছর ধরে সেতুটি পরিত্যাক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। এ কারণে এলাকার হাজার হাজার মানুষ চরম দূর্ভোগ পোহাচ্ছে। সেতু আছে সেতুর উভয় পাড় সংযোগ সড়ক নেই। এমন সেতু যাতায়াতের কাজে না লাগলেও স্থানীয়রা মই লাগিয়ে সেতুর উপর গোবর ঘোসি শুকাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ৩৯ লাখ টাকা ব্যয়ে শাহজাদপুর উপজেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগ এই সেতু দুইুটি নির্মাণ করে। সেই থেকে এ সেতু দুুটির দু‘পাশে কোন সংযোগ সড়ক নির্মাণ করা হয়নি। এতে এলাকার জনগণ চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে দীর্ঘদিন ধরে। এতে সেতুটির উপর স্থানীয়রা দীর্ঘদিন ধরে গোবরের ঘোষি, ভেজা কাপড়, লেপ, তোষক, কাঁথা-বালিশসহ বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করছেন।
এ ব্যাপারে শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমূল হুসেইন বলেন, এলাকাবাসি এ বিষয়ে লিখিতভাবে আবেদন করলে সরেজমিন পরিদর্শন করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। শাহজাদপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা জিন্দার আলী বলেন, তদন্ত সাপেক্ষে ওই সেতু দিয়ে যাতায়াতের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ