সোমবার ০৩ আগস্ট ২০২০
Online Edition

শ্রীলঙ্কায় হামলায় বিশ্ব নেতাদের নিন্দার ঝড়

গত রোববার বোমা হামলায় বিধ্বস্ত শ্রীলংকার নেগম্বুর একটি গির্জা পরিদর্শন করেন পুলিশ কর্মকর্তা ও ক্যাথলিক যাজকরা                               -রয়টার্স

২২ এপ্রিল, রয়টার্স : শ্রীলঙ্কার বিভিন্ন স্থানে ভয়াবহ বোমা হামলায় এখন পর্যন্ত ২৯০ জন নিহতের ঘটনায় শোক ও নিন্দা জানিয়েছেন বিশ্বনেতারা। ভারত, যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ডসহ বেশ কয়েকটি দেশের রাষ্ট্রপ্রধান এই ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন।

ইস্টার সানডেতে একের পর এক বোমা হামলার ঘটনায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। মোদি টুইট করেছেন, ‘শ্রীলঙ্কায় ভয়াবহ হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। আমাদের এই অঞ্চলে (দক্ষিণ এশিয়া) এমন বর্বরতার কোনো জায়গা নেই। ভারত শ্রীলঙ্কার সাধারণ মানুষের পাশে আছে। নিহত ও আহত ব্যক্তিদের পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি।’ দেশটির রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ পৃথক টুইটে বলেছেন, ‘শ্রীলঙ্কার প্রতি আমরা পূর্ণ সহমর্মিতা জানাচ্ছি।’

এই ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তিনি বলেন, ‘শ্রীলঙ্কার এ দুঃসময়ে পাকিস্তান তাদের পাশেই রয়েছে।’

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে শ্রীলঙ্কার হামলাকে উদ্বেগজনক হিসেবে চিহ্নিত করেছেন। টুইটে তিনি বলেছেন, ‘শ্রীলঙ্কায় গির্জায় ও হোটেলে এই সন্ত্রাসী হামলা উদ্বেগজনক। নিষ্ঠুর এই ঘটনায় যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তাদের সবার প্রতি আমার গভীর সমবেদনা রয়েছে।’

 মে আরও বলেন, ‘আমাদের সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে নিশ্চিত করতে হবে, কাউকে যেন ভয় নিয়ে নিজের ধর্ম পালন করতে না হয়।’

 নেদারল্যান্ডসের প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুট ঘটনার পরপরই এক টুইটবার্তায় বলেছেন, ‘ইস্টার সানডেতে গির্জা ও হোটেলে রক্তাক্ত হামলার ভয়াবহ খবর পাওয়া যাচ্ছে। ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তি ও তাদের পরিবারের প্রতি আমার সমবেদনা রইল।’

অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘শ্রীলঙ্কার সাধারণ মানুষদের প্রতি অস্ট্রেলিয়া সহমর্মিতা ও সমর্থন জানাচ্ছে। দারুণ প্রয়োজনের এই সময়ে আমাদের পক্ষে যা যা সহায়তা দেওয়া সম্ভব, আমরা সবটুকু দিতে প্রস্তুত।’

এ ছাড়া বর্বরোচিত এই ঘটনায় শোকপ্রকাশ করেছে কিছুদিন আগে সন্ত্রাসী হামলার শিকার হওয়া নিউজিল্যান্ডও। প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন বলেছেন, ‘নিউজিল্যান্ড সব ধরনের সন্ত্রাসের প্রতি নিন্দা জানাচ্ছে। নিউজিল্যান্ডে গত ১৫ মার্চের হামলার পর আমাদের সবার ঐক্য আরও বেড়েছে। শ্রীলঙ্কায় গির্জায় অবস্থানরত মানুষদের ওপর হামলা হতে দেখাটা আমাদের জন্য বেদনাদায়ক। নিউজিল্যান্ড সব ধরনের উগ্রবাদকে পরিত্যাগ করছে। আমরা সবাইকে নিরাপদে প্রার্থনা করার স্বাধীনতা দিতে বদ্ধপরিকর। এমন সহিংসতার বিপক্ষে আমাদের সবাইকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে।’

এদিকে যুক্তরাষ্ট্র সময় রোববার জারি করা সংশোধিত ভ্রমণ সতর্কবার্তায় বলা হয়, “সামান্য আভাস বা কোনো আগাম সতর্কবার্তা ছাড়াই সন্ত্রাসী হামলা হতে পারে।”

হামলার সম্ভাব্য লক্ষ্যবস্তু হিসেবে পর্যটন কেন্দ্র, শপিং মল, হোটেল, বাস ও রেল স্টেশন, বিভিন্ন প্রার্থনা কেন্দ্র, বিমানবন্দর ও জনসমাগম পূর্ণ এলাকার কথা বলা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ