শনিবার ০৮ আগস্ট ২০২০
Online Edition

তিন মাস ধরে চলা অব্যাহত দরপতন ঠেকাতে বাস্তব কোনো পদক্ষেপ নেই

স্টাফ রিপোর্টার: অব্যাহত দরপতনে একটু একটু করে পুঁজি হারিয়ে নিঃস্ব হচ্ছেন পুঁজিবাজারের বিনিয়োগকারীরা। পতন ঠেকাতে দৃশ্যমান কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করছে না দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) কর্তৃপক্ষ। মাথা ব্যথা নেই বাজার সংশ্লিষ্টদের। বিনিয়োগকারীদের কথা চিন্তা না করে উল্টো গাড়ি বিলাসে মেতেছেন ডিএসইর শীর্ষ ব্যক্তিরা। অথচ প্রায় তিন মাস ধরে চলা অব্যাহত দরপতন ঠেকাতে বাস্তব কোনো পদক্ষেপই গ্রহণ করেনি ডিএসই।

প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি), প্রধান নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা (সিআরও) ও প্রধান অর্থ কর্মকর্তা (সিএফও)-এর জন্য কেনা হচ্ছে বিলাসবহুল গাড়ি। ইতোমধ্যে ডিএসইর পরিচালনা পর্ষদ সভায় এ সংক্রান্ত অনুমোদনও নেয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ডিএসইর ব্যবস্থাপনা পরিচালক কে এ এম মাজেদুর রহমানের জন্য কেনা হচ্ছে দেড় কোটি টাকা মূল্যের টয়োটা ল্যান্ড ক্রুজার প্রাডো গাড়ি। সিআরও এ কে এম জিয়াউল হাসান খান ও সিএফও আবদুল মতিন পাটওয়ারীর জন্য কেনা হচ্ছে অর্ধ কোটির বেশি মূল্যের নিশান এক্স-ট্রেইল। এমডি, সিআরও ও সিএফও’র জন্য যে গাড়ি রয়েছে তা বেশ পুরোনো- এমন কারণ দেখিয়ে ডিএসইর ৯১৪তম বোর্ড সভায় তিনটি নতুন গাড়ি কেনার অনুমোদন নেয়া হয়। এর মধ্যে এমডির গাড়ির জন্য বাজেট ধরা হয় দেড় কোটি টাকা। আর সিআরও ও সিএফও’র গাড়ির জন্য বাজেট ধরা হয় ৫৫ লাখ টাকা করে। এ বাজেটের ওপর ভিত্তি করে এমডির জন্য এক কোটি ৪৫ লাখ ১৩ হাজার টাকা এবং সিআরও ও সিএফও’র জন্য ৫৪ লাখ ৯৭ হাজার টাকা মূল্যের গাড়ি কেনার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

শীর্ষ কর্মকর্তাদের জন্য এমন বিলাসবহুল গাড়ি কেনার উদ্যোগ নেয়া হলেও প্রায় তিন মাস ধরে চলা অব্যাহত দরপতন ঠেকাতে বাস্তব কোনো পদক্ষেপই গ্রহণ করেনি ডিএসই। ফলে দিনের পর দিন দরপতনের কবলে পড়ে পুঁজি হারাচ্ছেন বিনিয়োগকারীরা। এতে বাজারের ওপর চরম আস্থাহীনতার সঙ্গে দেখা দিয়েছে তারল্য সংকট। লেনদেন কমতে কমতে একেবারে তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে। ১০ এপ্রিল থেকে ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত টানা তিন কার্যদিবস লেনদেন হয়েছে তিনশ কোটি টাকার নিচে। ১৪ মার্চের পর গত এক মাসে ডিএসইর লেনদেন পাঁচশ কোটি টাকার ঘর স্পর্শ করতে পারেনি।

এ বিষয়ে ডিএসইর এক সদস্য বলেন, এমডি, সিআরও ও সিএফও’র জন্য গাড়ি কিনতে যে টাকা খরচ হচ্ছে তা আমাদের টাকা। বাজারের চরম মন্দাভাবের কারণে ব্যবসা কীভাবে টিকিয়ে রাখব, কর্মকর্তাদের বেতন কীভাবে পরিশোধ করব, সারাক্ষণ সেই চিন্তা করতে হচ্ছে আমাদের। আর ডিএসইর শীর্ষ ব্যক্তিরা আমাদের টাকা দিয়ে বিলাসবহুল গাড়ি কেনার পায়তারা করছেন! কিন্তু বাজারের মন্দাভাব কাটাতে ডিএসইর পক্ষ থেকে দৃশ্যমান কোনো উদ্যোগ নিতে দেখা যাচ্ছে না। অথচ বাজার উন্নয়নের জন্য ক্ষেত্র-বিশেষে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) থেকে ডিএসইর ভূমিকা বেশি থাকার কথা।

তিনি আরও বলেন, ডিএসইর বর্তমান ম্যানেজমেন্টের কর্মকা-ে বোঝা যায়, বাজার সম্পর্কে তাদের দক্ষতার বেশ অভাব আছে। এরপরও প্রভাবশালী সদস্যদের হাত করে তারা তাদের পদ ধরে রেখেছেন। এমনকি সিআরও, সিএফও’র পদ দুটি চুক্তি-ভিত্তিক হলেও তারা তা স্থায়ী করে নিয়েছেন। বিভিন্ন সময় ডিএসইর কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে প্রজেক্টের নামে টাকা হাতিয়ে নেয়া এবং অবৈধভাবে শেয়ার ব্যবসায় জড়িত থাকার অভিযোগ উঠেছে। কিন্তু তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

ওই সদস্য বলেন, ডিএসইতে আসলে কী হচ্ছে তা অর্থ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে দ্রুত খতিয়ে দেখা উচিত। ডিএসই ঠিক না হলে পুঁজিবাজার ঠিক হবে না। এ বাজারের সঙ্গে জড়িত লাখ লাখ বিনিয়োগকারী। সেই সঙ্গে দেশের অর্থনীতির উন্নয়নেও পুঁজিবাজারের ভূমিকা রয়েছে। তাই লাখ লাখ বিনিয়োগকারী ও দেশের অর্থনীতির স্বার্থে সরকারের উচিত দ্রুত ডিএসইর কার্যক্রম খতিয়ে দেখা।

এবিষয়ে ডিএসইর এক কর্মকর্তা বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সালাউদ্দিন আহমেদ খান ২০০৩ সালে যখন ডিএসইর সিইও হিসেবে আসেন তখন লেনদেনের পরিমাণ ছিল ১০ কোটি টাকার মতো। তার দক্ষ ব্যবস্থাপনায় ২০০৮ সালে লেনদেন ৫০০ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যায়। পরবর্তীতে ২০১০ সালে লেনদেনের পরিমাণ বেড়ে তিন হাজার কোটি টাকায় পৌঁছায়। কিন্তু ২০১০ এর ধসের পর মার্কেট আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি, শুধু অদক্ষ ম্যানেজমেন্টের অযোগ্যতার কারণে।

ওই কর্মকর্তা আরও বলেন, ২০১৩ ডিমিউচ্যুয়ালাইজেশন পরবর্তী মালিকানা ব্যবস্থাপনা আলাদাকরণ হলেও মার্কেটের উন্নতির জন্য নেয়া হয়নি তেমন কোনো পদক্ষেপ। উল্টো ডিমিউচ্যুয়ালাইজেশন পরবর্তী যে ম্যানেজমেন্ট ডিএসইতে এসেছে তারা নিজেদের স্বার্থে ব্যস্ত ছিল। মার্কেটের ব্যাপারে তারা ছিল বরাবরই উদাসীন। ফলে বাজারে যেমন গতি আসেনি, তেমনি সময়ে সময়ে লেনদেনে দেখা গেছে মহাখরা। অথচ ২০০৮ সালের তুলনায় এখন তালিকাভুক্ত কোম্পানির সংখ্যা অনেক বেশি। অথচ লেনদেনের পরিমাণ না বেড়ে উল্টো কমছে।

ডিএসইর আরেক কর্মকর্তা বলেন, ডিমিউচ্যুয়ালাইজেশনের পর ম্যানেজমেন্ট ডিএসইকে শক্ত অবস্থানে নিয়ে যাওয়ার জন্য কোনো পদক্ষেপই গ্রহণ করেনি। উল্টো ডিএসইর সদস্যদের সাময়িক খুশি করার জন্য বছরের পর বছর রিজার্ভ ভেঙে লভ্যাংশ দিয়েছে। বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটি ফান্ড সঙ্কটের মুখে পড়তে যাচ্ছে। এ বছর ডিএসই নিকুঞ্জের নিজস্ব ভবনে যাওয়ার কথা। সেখানে গেলে পরিচালন ব্যয় বেড়ে যাবে। সে ক্ষেত্রে মার্কেটের গতি বাড়াতে না পারলে ডিএসইর আর্থিক অবস্থা আরও খারাপ হবে।

তিনি আরও বলেন, ডিএসইতে অফিস সহকারী হিসেবে যোগদান করে বর্তমানে একজন জিএম পদে রয়েছেন। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে অবৈধ শেয়ার ব্যবসার অভিযোগও ওঠে। উত্তরায় তার একাধিক বাড়ি আছে। সম্প্রতি সাভারে একটি কারখানা চালু করেছেন। তার নামে দুর্নীতি দমন কমিশনেও (দুদক) মামলা হয়েছিল। এরপরও তিনি দাপটের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। এমন অবস্থার মধ্যে পরিচালিত হচ্ছে ডিএসই।

তবে ডিএসই কর্তৃপক্ষ ডিএসইর এমডি, সিআরও ও সিএফও’র জন্য বিলাসবহুল গাড়ি কেনার বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। তবে বাজারে আস্থার জায়গা দুর্বল হয়ে গেছে। বাজারে কিছু পরিবর্তন আনতে হবে। সেই পরিবর্তনগুলো আনার জন্য বিএসইসিতে মতমত দেয়া হবে জানানো হয়।

বাংলাদেশ বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদের সভাপতি মিজান-উর রশিদ চৌধুরী বলেন, বাজারের মন্দাভাবের কারণে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা প্রতিদিন পুঁজি হারাচ্ছেন। নিঃস্ব হয়ে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা আত্মহত্যা করছেন। আর ডিএসইর এমডির জন্য কেনা হচ্ছে দেড় কোটি টাকা মূল্যের গাড়ি। ডিএসইর এমডি বাজারের জন্য কী করেছেন? উনি তো নিজের স্বার্থ হাসিলের পায়তারা চালাচ্ছেন। ইস্যুয়ারদের পক্ষে দালালি করছেন এবং বিভিন্ন সুবিধা নিচ্ছেন। অথচ বিনিয়োগকারীদের সুরক্ষার ব্যবস্থা করা ডিএসইর অন্যতম দায়িত্ব। সেই দায়িত্ব তো ডিএসইকে পালন করতে দেখছি না।

এদিকে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কঠোর আন্দোলনের হুমকির পর গতকাল বৃহস্পতিবার দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এবং অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) মূল্যসূচকের উত্থান হয়েছে। এর আগে বুধবার (১৭ এপ্রিল) দরপতনের প্রতিবাদে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের সামনে বিক্ষোভ করে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন। সেই সঙ্গে আগামী মঙ্গলবারের (২৩ এপ্রিল) মধ্যে বাজারের স্বার্থে দাবি মেনে না নেয়া হলে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এক্সচেঞ্জ অ্যান্ড কমিশনের (বিএসইসি) সামনে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা হবে বলে হুমকি দেন তারা।

বিক্ষোভ থেকে বিনিয়োগকারীরা বিএসইসির চেয়ারম্যান খায়রুল হোসেনের পদত্যাগ, জেড ক্যাটাগরি এবং ওটিসি মার্কেট বন্ধ, ইস্যু মূল্যের নিচে অবস্থানরত কোম্পানিগুলোকে ইস্যু মূল্যে বাইব্যাক, তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোকে  ন্যূনতম ১০ শতাংশ লভ্যাংশ বাধ্যতামূলক, খন্দকার ইব্রাহীম খালেদের তদন্ত কমিটির রিপোর্ট অনুযায়ী দোষীদের আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা এবং আইপিও ও প্লেসমেন্ট শেয়ারের অবৈধ বাণিজ্য বন্ধের দাবি জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ