বুধবার ০৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

ছড়া

বৈশাখে

সাজজাদ হোসাইন খান

 

বৈশাখে ঝড় আসে

বৈশাখে আম

বৈশাখে ধুপধাপ

বৈশাখে ঘাম।

 

বৈশাখে কালো ঘোড়া

বৈশাখে ষাঁড়

ঘর-বাড়ি বাঁশবন

করে তোলপাড়।

 

বাঘ দেখো লাফ দেয়

হাঁক দেয় দেও

পশু-পাখি তড়পায়

ডর পায় কেউ।

 

আসমানে চাঁদ হাঁটে

চুপচাপ তারা

বৈশাখী তান্ডবে

যেন দিশেহারা।

 

বৈশাখে কালো মেঘ

বৈশাখে ধলা

বৈশাখে নতুনের

শুধু পথ চলা।

 

 

হঠাৎ বৃষ্টি  

সৈয়দ মাশহুদুল হক

 

হঠাৎ করেই বৃষ্টি এলো

সঙ্গে ঝড়ো হাওয়া  

মন্দের ভালো এই গরমে

ইহাই বড় পাওয়া?

 

চৈত্র মাসের গরম গেল

শীতল ধরণীতল

রবির মুখে আঁচল টেনে

নাচল মেঘের দল।

 

ডানপিটেরা ভীড় জমাল

আম গাছের তলে

আম কুড়িয়ে ভরল তারা

হাঁড়ি-পাতিল থলে। 

 

পানি পেয়ে ডোবায় বসে

ডাকছে ঘ্যাঙর ব্যাঙ

সাজিয়ে পুতুল খুকুমণি 

ঘরের কোণেই হ্যাং।  

 

বৃষ্টি পেয়ে পাখপাখালি

করছে কলতান   

মাঠে মাঠে সোনার ফসল

দুলছে বোরোধান।

 

 

নববর্ষে

আব্দুস সালাম

 

নববর্ষে গঞ্জ-গাঁয়ে

বসে বৈশাখ মেলা

শিশু-কিশোর বৃদ্ধ-যুবক

কাটায় সেথা বেলা।

 

শিশু-কিশোর মনের সুখে

নাগরদোলায় দোলে

পুতুলনাচ আর বাঁদর দেখে

নাচে মায়ের কোলে।

 

বেলুন-বাঁশি তালের পাখা

খেলনাপুতুল আয়না

খোকা-খুকু এসব ছাড়া

অন্য কিছু চায় না।

 

মুড়কি-মোয়া তৈরি করে

বসে থাকে মায়ে

নববর্ষে মন চলে যায়

আমার সোনার গাঁয়ে।

 

 

বোশেখ মেলা

শেখ বিপ্লব হোসেন

 

বোশেখ এলে, বসে মেলা

গ্রাম-গঞ্জের হাটে,

সেই ভাবনায় খোকনসোনার

মন বসে না পাঠে।

 

মেলায় যাবে খোকনসোনা

ধরে শুধু বায়না,

চড়বে সে যে নাগরদোলায়

আর তো দেরি সয় না।

 

কিনবে সে এক মাটির ঘোড়া

দেখবে পুতুল নাচ,

সেই ভাবনায় এখন যে তার

বন্ধ সকল কাজ।

 

সবাই মিলে ঘুরবে অনেক

কত্ত মজা হবে,

খোকনসোনার নেই চোখে ঘুম

বোশেখমেলা কবে!

 

 

বোশেখ এলে 

মুহাম্মাদ আলী মজুমদার 

 

বোশেখ এলে মনে পড়ে 

শৈশবটা রঙিন

বোশেখ ছিল ঝড়ের দিনে

আম কুড়োনোর দিন।

 

বোশখ এলে তপ্ত রোদে

পুকুর জলে নেমে

সারাটা দিন চলত গোসল

ঘন্টা দুয়েক থেমে।

 

বোশেখ এলে বিদ্যালয়টা 

গ্রীষ্মকালীন বন্ধ 

নানার বাড়ি চলে যেতাম 

আহা কী আনন্দ !

 

বোশেখ এলে মেলায় যেতাম 

বড় ভা'য়ের সাথে

দুরুদুরু কাঁপত যে বুক

ঝড় তুফানের রাতে। 

 

বোশেখ এলে কখনো বা 

আম-জাম গাছের তলে

বিছনা পেতে শুয়ে যেতাম

আমরা দলেদলে ।

 

বোশেখ এলে দোকানপাটে 

হতো যে হালখাতা 

দোকানদারে গজা দিত

মুড়িয়ে কলা পাতা।

 

বোশেখ এলে মনের মাঝে 

এসব স্মৃতি ভাসে

শৈশব-স্মৃতি পড়লে মনে 

কান্না চলে আসে।

 

 

চাই না বৈশাখ ঝড়

মুহাম্মদ মিজানুর রহমান

 

আল্লাহ আলো চাই, বায়ু চাই

চাই না বৈশাখ ঝড়

যে ঝড়েতে উড়বে শুধু 

গরীব লোকের ঘর। 

 

আল্লাহ বৃষ্টি চাই, দয়া চাই

চাই না শিল বৃষ্টি

যে বৃষ্টিতে হবে শুধু 

হাহাকার সৃষ্টি। 

 

ফুল ফসলের হাসি যে চাই 

চাই না বজ্রপাত

যে বজ্রেতে প্রাণ নিয়ে

আনবে দুখের রাত। 

 

মেলা দেখা

হামীম রায়হান

 

খোকা গেলো দেখতে মেলা,

বাবার হাতটি ধরে,

এত লোকের সমাবেশে-

মনটি কেমন করে।

 

ম-া, মিঠাই, মুড়ি-মুড়কির-

বসছে দোকান কতো

মাঠের কোণায় নাগরদোলা

ঘুরছে অবিরত।

 

কারো হাতে খেলনা, পুতুল,

কেউ বা বাজায় বাঁশি,

কেউ পরেছে বাঘের মুখোশ,

কেউ যে বাঘের মাসি।

 

কারো মুখে রং লেগেছে,

কেউ সেজেছে সং,

যাদুকরের ভেলকিবাজি,

দেখায় নানা ঢং।

 

নানা রকম মজার খেলা,

কত রঙের মানুষ,

বাবার সাথে খোকা এসব-

দেখে হয়ে যায় খুশ।

 

 

কালবৈশাখী 

কবির মাহমুদ

 

বৈশাখেতে দমকা হাওয়া 

গুড়ুম গুড়ুম আকাশ,

বৃষ্টি নামে প্রবল বেগে

হালকা ঝড়ো বাতাস।

 

যখন তখন মেঘলা আকাশ

যখন তখন ঝড়,

বিজলী ঝড়ে বজ্রপাতে 

লাগছে মনে ডর।

 

দিনের আলো নেয় যে কেড়ে

কালো মেঘের সাজ,

সূয্যিমামা যায় না দেখা

দিনে সন্ধ্যা আজ।

 

কৃষক জেলে ঘরে বসে

আঁকছে কত ছক,

বাইরে যেতে পারছে না তাই

করছে মনে নক।

 

ল-ভ- কা- করে 

উড়ায় টিনের চাল,

নিঃস্ব করে যায় যে উড়ে

বৈশাখী ঝড় কাল।

 

বৃষ্টি

হাসান ফখরুল 

 

আকাশ থেকে অঝোর তালে 

পড়ে যখন বৃষ্টি 

প্রাণ ফিরে পায় শুকনো মাটি 

বৃক্ষলতা দৃষ্টি। 

 

বৃষ্টি নামে এই জমিনে 

টাপুর টুপুর শব্দে 

পশুপাখি কাঁপছে দেখি

শীতল হাওয়ায় জব্দে। 

 

গুড়ুম গুড়ুম শব্দ করে 

আকাশ মাঝে অই

বৃষ্টি পড়ে মধুর সুরে 

সূর্যি মামা কই।

 

বৃষ্টি এলে গভীর মনে

ভাবতে লাগে বেশ 

বৃষ্টি পড়ে সবুজ বনে 

সোনার বাংলাদেশ। 

 

 

কালবৈশাখী 

আবুল খায়ের

 

কালবৈশাখী এলো বলে

খোকা বাবু হায়

খেলার মাঠে বল রেখে

দৌড়ে বাড়ি যায়।

 

বৃষ্টিতে ভিজে আপু

স্কুল থেকে আসে

মায়ের বকুনি খেয়ে

কাঁদে আর কাশে।

 

গরু ছাগল নিয়ে দাদু 

ফিরে আসে বাড়ি

যেন একটা দাঁড়কাক

ভিজে চুল দাড়ি।

 

গাছপালা পড়ে গেল

কালবৈশাখীর তুফানে

তালগাছ পুড়ে ছাই

বাজ পড়ার আগুনে।

 

বৈশাখী ঝড়

মোঃ ছিদ্দিকুর রহমান

 

বৈশাখ এলে গুড়ুম গুড়ুম

সাজে মেঘলা আকাশ,

ক্ষণে ক্ষণে দমকা হাওয়া

বয় যে ঝড়ো বাতাস।

যখন তখন ঝড় তুফানে

কালো মেঘের পাহাড়,

সূর্য্যিটাও যায় না দেখা 

দেয় না আলোর বাহার।

আকাশপানে কালো মেঘের 

দেখলে নতুন সাজ,

তখন বুঝি ডাক দিয়ে যায়

সন্ধ্যা নেমে আজ।

দমকা হাওয়া বজ্রপাতে

ভয়ে থাকি ঘর,

ল-ভ- কা- করে

কাল-বৈশাখী ঝড়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ