বৃহস্পতিবার ২৬ নবেম্বর ২০২০
Online Edition

বাঘাইছড়ির ঘটনা ৪৮ বছরের ইতিহাসে সবচেয়ে মর্মান্তিক -মাহবুব তালুকদার

স্টাফ রিপোর্টার : রাঙামাটির বাঘাইছড়িতে দুর্বৃত্তদের ব্রাশফায়ারে হতাহতের ঘটনায় নির্বাচন কমিশন (ইসি) অবশ্যই ব্যবস্থা নেবে বলে জানিয়ে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেছেন, বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের ৪৮ বছরের ইতিহাসে তা সবচেয়ে মর্মান্তিক ও শোকাবহ ঘটনা। এই কাপুরুষোচিত আক্রমণ ও নিরপরাধ মানুষ হত্যার বিষয়ে নিন্দা জানাবার ভাষা আমার জানা নেই।
হামলায় আহতদের দেখতে গতকাল মঙ্গলবার সকালে ঢাকা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) যান মাহবুব তালুকদার। সেখান থেকে আগারগাঁওয়ের নির্বাচন কমিশনে ফিরে সাংবাদিকদের উদ্দেশে দেওয়া লিখিত বক্তব্যে এ কথা বলেন সিনিয়র এই নির্বাচন কমিশনার।
এর আগে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা চট্টগ্রাম সিএমএইচে হামলায় আহত চিকিৎসাধীনদের দেখতে গিয়ে এ ঘটনায় নিহতের স্বজনদের আর্থিক সহায়তা ও আহতদের চিকিৎসায় সাহায্য করার কথা জানান। এ ছাড়া নির্বাচন কমিশনার ড. মো. রফিকুল ইসলাম ও ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরীও ঢাকা সিএমএইচ পরিদর্শন করেন।
লিখিত বক্তব্যে মাহবুব তালুকদার বলেন, তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনার কারণ, এ ঘটনায় ব্যর্থতার দায় কার এবং কারা এটি ঘটিয়েছে তার উত্তর দেওয়া সমীচীন নয়। তদন্ত করে এর কারণ ও দায়-দায়িত্ব নিরুপণ করা হবে।
ইসি মাহবুব আরো বলেন, সোমবার পার্বত্য চট্টগ্রামের বাঘাইছড়িতে যা ঘটেছে, বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের ৪৮ বছরের ইতিহাসে তা সবচেয়ে মর্মান্তিক ও শোকাবহ ঘটনা। এই কাপুরুষোচিত আক্রমণ ও নিরপরাধ মানুষ হত্যার বিষয়ে নিন্দা জানাবার ভাষা আমার জানা নেই। এহেন অমানবিক বর্বরোচিত হামলায় যে সাতজন নিহত হয়েছেন আমি তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি। যারা আহত হয়ে ঢাকা ও চট্টগ্রামের সিএমএইচে চিকিৎসাধীন আছেন, আমি তাদের দ্রুত আরোগ্য ও সুস্থতা কামনা করি। একইসঙ্গে আমি নিহত ও আহতদের পরিবারবর্গের প্রতি জানাই গভীর সমবেদনা।
গত সোমবার বাঘাইছড়ি উপজেলা নির্বাচনের দায়িত্ব পালন শেষে ফেরার সময় ওই হামলা হয়। নিহত ব্যক্তিরা হলেন, বাঘাইছড়ির সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার ও শিক্ষক মো. তৈয়ব আলী, কিশলয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ও পোলিং অফিসার আমির হোসেন, আনসার ও ভিডিপির সদস্য আলামিন, মিহির কান্তি দত্ত, জাহানারা বেগম ও বিলকিস এবং চাঁদের গাড়ির হেলপার মন্টু চাকমা।
আহতদের উন্নত চিকিৎসার জন্য হেলিকপ্টারযোগে চট্টগ্রাম ও ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে পাঠানো হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ