মঙ্গলবার ১১ আগস্ট ২০২০
Online Edition

খুলনায় ওয়াসার পানি ময়লা ও দুর্গন্ধযুক্ত

খুলনা অফিস : খুলনা মহানগরীর বিভিন্ন স্থানে পানি সঙ্কট এবং ওয়াসার পাইপে ময়লা ও দুর্গন্ধযুক্ত পানি সরবরাহের অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয় নিয়ে গত কয়েকদিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ( ফেসবুক) বেশ সরব।

গত ৫ মার্চ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এসকে রফিক তার স্ট্যাটাসে লিখেছেন ‘খুলনা ওয়াসার সাপ্লাই পানিতে ড্রেন পচা দুর্গন্ধ’। তার এই স্ট্যাটাসের পরে প্রায় ৪০ জন তাদের মন্তব্য লিখেন এবং ৪ জন শেয়ার করেন। যাদের মধ্যে প্রায় সকলেই ওয়াসার কর্মকান্ড নিয়ে মন্তব্য করেছেন।

ইসহাক শিকদার লিখেছেন, দায় দায়িত্ব কোন পর্যায়ে পৌঁছালে এমনটা হতে পারে। তবে অনেক সময় ওয়াসা কর্তৃক ব্যবহৃত পুরাতন/নষ্ট ব্লিচিং পাউডার থেকেও এটা হতে পারে।’

রহমত আলী লিখেছেন, এ কথা কাহারে জানাই, ওজু করতে গেলে বমি আসে।’ উত্তরে এসকে রফিক লিখেছেন, ‘ডায়রিয়া শুরু হয়ে গেছে।’

ওয়াসাকে কটাক্ষ করে জিএম সাইফুর রহমান লিখেছেন, ‘এটা গন্ধ নয়, নাকের ডাক্তার দেখানো লাগবে।’

এমএমআর মাসুদ লিখেছেন, ‘মামলা করেন পানির স্যাম্পল বিএসটিআই, আইসিডিডিআরবিতে টেস্ট করে রিপোর্ট নিয়ে পানির বিলসহ ভোক্তা অধিকারে মামলা করেন। দরকার হলে এলাকার কয়েকজনেরটাও দিন।’

 মোহাম্মাদ হক লিখেছেন  এভরিথিং চেঞ্জ প্লীজ।

এসকে রফিক লিখেছেন, নগরীর ২৭ নম্বর ওয়ার্ডে বিকে মেইন রোডে ওয়াসা নতুন পানির পাইপ বসানোর কাজ করছে। এরই মধ্যে গত তিন চার দিন আগে পানির সঙ্কট দেখা দেয়। পরে পানি আসলেও প্রচন্ড ময়লা ও দুর্গন্ধ। মনে হয় ড্রেনের পানি ঢুকছে।’ তার ফেসবুক স্ট্যাটাস থেকে আরও জানা যায়, গত কয়েকদিন ধরে এ এলাকায় পানি সরবরাহ বন্ধ ছিল।’

যদিও এ বিষয়ে খুলনা ওয়াসার উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী এমডি কামালউদ্দিন আহমেদ জানান, নগরীতে পানি সঙ্কট নিরসনে চলতি অর্থবছরেও ২০টি গভীর নলকূপ স্থাপন করেছি। এছাড়া আমাদের নতুন প্রকল্পের সুযোগ-সুবিধা আগামী জুন মাস থেকে নগরীর মানুষ ভোগ করতে পারবে। তখন পানির সঙ্কট আর থাকবে না। আমরা নগরীর ২৭নং ওয়ার্ডে পরীক্ষামূলকভাবে নতুন পাইপ লাইনে পানি সরবরাহ শুরু করেছি। প্রাথমিকভাবে যে সমস্যা হয়েছিল। তা আজ (বৃহস্পতিবার) সমাধান হয়ে গেছে। তবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এ এলাকায় আজও (বৃহস্পতিবার) পানি সরবরাহে সমস্যা ছিল। কিছু কিছু জায়গায় পানি সরবরাহ থাকলেও সেটি ছিল গন্ধ এবং ময়লাযুক্ত।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ