মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

দু’টি ভারতীয় যুদ্ধ বিমান ভূপাতিত করার দাবি পাকিস্তানের

 

সংগ্রাম ডেস্ক : বালাকোটের ‘জঙ্গী ঘাঁটিতে’ ভারতীয় বিমান বাহিনীর হামলার প্রতিক্রিয়ায় পাকিস্তান নিজেদের আকাশসীমা থেকেই কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণ রেখাজুড়ে পাল্টা হামলা চালানোর দাবি করেছে।পাকিস্তান গতকাল বুধবার দুটি ভারতীয় যুদ্ধবিমান ভূপাতিত করার দাবি করেছে। এর একদিন আগে ভারত পাকিস্তানের অভ্যন্তরে বিমান হামলা চালিয়ে অন্তত ৩শ জঙ্গিকে হত্যা করার দাবি করে। এদিকে চির বৈরী প্রতিবেশী ও পরমাণু শক্তিধর এ দু’দেশের মধ্যে তৈরি হওয়া চরম উত্তেজনা কমাতে উভয় দেশের প্রতি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় আহ্বান জানিয়েছে। নয়াদিল্লী ও ইসলামাবাদের কর্মকর্তাদের উদ্ধৃত করে আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমে বলা হয়েছে, পাকিস্তান কাশ্মীরে তার আকাশসীমায় ভারতের দু’টি বিমান ভূপাতিত এবং দুইজন পাইলটকে আটক করেছে। সেনাবাহিনীর একজন মুখপাত্র বলেন, পিএএফ (পাকিস্তানী বিমান বাহিনী) পাকিস্তানী আকাশসীমায় ভারতের দু’টি বিমান ভূপাতিত করেছে। বালাকোটের ‘জঙ্গি ঘাঁটিতে’ ভারতীয় বিমান বাহিনীর হামলার প্রতিক্রিয়ায় পাকিস্তান নিজেদের আকাশসীমা থেকেই কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণ রেখাজুড়ে পাল্টা হামলা চালানোর দাবি করেছে। কাশ্মীর সীমান্তে নিয়ন্ত্রণ রেখা অতিক্রম করে বালাকোটে ভারতীয় বিমানবাহিনীর হামলার পর হুমকি দিয়ে পাকিস্তান বলেছে, এখন আমাদের কাছ থেকে জবাবের অপেক্ষায় থাকার পালা ভারতের। দেশটির সেনাবাহিনীর মুখপাত্র মেজর জেনারেল আসিফ গফুর বলেছেন, পাকিস্তান যুদ্ধের দিকে যেতে চায় না’। পাকিস্তান নিজেদের আকাশসীমায় ভারতের দুটি যুদ্ধবিমান ভূপাতিত করেছে- এমন খবরের কয়েক ঘণ্টা পরই দেশটির সেনাবাহিনীর মুখপাত্র এমন কথা বললেন। খবর এএফপির। রাওয়ালপিন্ডিতে সেনা ঘাঁটিতে এক সাংবাদিক সম্মেলনে মেজর জেনারেল আসিফ গফুর নয়াদিল্লিকে বৈঠকের আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘আমরা উত্তেজনা বাড়াতে চাই না, আমরা যুদ্ধের দিকেও যেতে চাই না।’ এই মুখপাত্র বলেন, দুটি বিমান ভূপাতিত করার ঘটনায় আটক দুই বৈমানিকের একজন হেফাজতে আর অপরজন হাসপাতালে আছেন। এদিকে সামরিক বিশ্লেষকরা বলছেন স্বয়ংক্রিয় অস্ত্রের দিক থেকে তালিকায় ভারতের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে পাকিস্তান। -খবর এনডিটিভি, দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া, বিবিসি বাংলা, রয়টার্স, দ্য ডন, এএফপি।

বালাকোটের ‘জঙ্গী ঘাঁটিতে’ ভারতীয় বিমান বাহিনীর হামলার প্রতিক্রিয়ায় পাকিস্তান নিজেদের আকাশসীমা থেকেই কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণ রেখাজুড়ে পাল্টা হামলা চালানোর দাবি করেছে।

দুই সপ্তাহ আগে পুলওয়ামায় পাকিস্তানভিত্তিক জঙ্গীগোষ্ঠী জইশ-ই-মোহাম্মদ ভারতের আধাসামরিক বাহিনীর গাড়িবহরে আত্মঘাতী হামলা চালিয়ে ৪০ জনের বেশি জওয়ানকে হত্যা করেছিল। তার বদলা নিতেই মঙ্গলবার বালাকোটে জঙ্গী গোষ্ঠীটির একটি প্রশিক্ষণ শিবিরে বোমাবর্ষণ করা হয় বলে দাবি করে নয়াদিল্লী। 

পাকিস্তান এ ভাষ্য প্রত্যাখ্যান করে জানায়, বালাকোটে কোনো জঙ্গী ঘাঁটি ছিল না। হামলায় যে বিপুল পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি ও প্রাণহানির দাবি করেছিল ভারতীয় বিমান বাহিনী তাও উড়িয়ে দেয় তারা। 

নিয়ন্ত্রণ রেখা অতিক্রম করে পাকিস্তানের মাটিতে ভারতের হামলা চালানোর প্রতিক্রিয়ায় প্রতিবেশী দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা তুমুল আকার ধারণ করলে মঙ্গলবার সীমান্তজুড়ে দুই পক্ষের মধ্যে তুমুল গোলাগুলীও হয়। 

বুধবার পাকিস্তানী জঙ্গীবিমানের জম্মু ও কাশ্মীরের পুঞ্চ ও রাজৌরি সেক্টর দিয়ে ভারতের আকাশসীমা লংঘনের খবর পাওয়া গেছে। পাকিস্তান ভারতের দুটি বিমান ভূপাতিত এবং এক পাইলটকে আটক করারও দাবি করেছে। 

নিয়ন্ত্রণ রেখার (এলওসি) কাছে লাম ভ্যালি এলাকায় নিজেদের সীমানার ভেতরই পাকিস্তানের একটি এফ-১৬ বিমান বিধ্বস্ত হয়েছে বলে জানিয়েছে এনডিটিভি।

“ভারতীয় যুদ্ধংদেহী অবস্থানের পাল্টা নয় এটি। সে কারণেই পাকিস্তান অসামরিক স্থাপনায় হামলা চালিয়েছে, প্রাণহানি ও ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে চেয়েছে। এর মূল উদ্দেশ্য ছিল আমাদের আত্মরক্ষার সক্ষমতা, অধিকার ও ইচ্ছার প্রদর্শন। উত্তেজনা বাড়ানোর কোনো ইচ্ছাই নেই আমাদের, কিন্তু কেউ যদি আমাদের বাধ্য করে, তাহলে আমারও পুরোপুরি প্রস্তুত। এ কারণেই সুস্পষ্ট সতর্কতা দিয়ে, দিনের আলোতেই এ আঘাত হেনেছি,” বুধবার ‘পাকিস্তানের পাল্টা আঘাত’ শিরোনামের এক বিবৃতিতে এমনটাই জানায় ইসলামাবাদ।   

এদিকে গতকাল বুধবার পাকিস্তান তাদের আকাশসীমা বেসামরিক বিমান চলাচলের জন্য বন্ধ করে দিয়েছে বলে জানিয়েছে ডন।

নিরাপত্তা পরিস্থিতি বিবেচনায় পাকিস্তান সেনাবাহিনীর আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) দেশের আকাশসীমা বন্ধ ঘোষণা করার পরপরই বেসামরিক বিমান নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষও (সিএএ) টুইটারে বিমান চলাচল বন্ধের সিদ্ধান্ত জানায়।  

সিএএ-র ওই ঘোষণার আগেই পেশোয়ারের বাচা খান আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের এক কর্মকর্তা বাণিজ্যিক বিমানের চলাচলের জন্য তাদের বিমানবন্দরটি বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে বলে ডনকে জানিয়েছিলেন।

“রেড অ্যালার্ট জারি হয়েছে। সামরিক কাজে বিমানবন্দরটি ব্যবহৃত হবে, যতক্ষণ পর্যন্ত না এটিকে বাণিজ্যিক বিমান চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হয়। সব বেসামরিক বিমানের উড্ডয়ন ও অবতরণ স্থগিত রাখা হয়েছে,” বলেন ওই কর্মকর্তা। 

লাহোর ও করাচি বিমানবন্দর থেকেও পরে একই খবর আসে। নিয়ন্ত্রণরেখা নিয়ে উত্তেজনায় পাকিস্তানের পিআইএ তাদের দিল্লীগামী পিকে-২৭০ ও লন্ডনগামী পিকে-৭০৯ ফ্লাইট দুটিও বাতিল করে দেয়।    

ভারত অমৃতসর, চন্ডিগড়, দেরাদুন, জম্মু, শ্রীনগর, লেহসহ উত্তরাঞ্চলীয় ৮টি বিমানবন্দর বন্ধ করার ঘোষণা দিলেও কয়েক ঘণ্টা পর তা প্রত্যাহার করে নেয়। 

চলমান এ উত্তেজনার মধ্যে নয়াদিল্লী পাকিস্তানের আকাশসীমা এড়িয়ে চলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলেও এক কর্মকর্তার বরাত দিয়ে জানিয়েছে এনডিটিভি।  

গতকাল বুধবার সকালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী একটি অনুষ্ঠান থেকে নির্ধারিত সময়ের আগে বেরিয়ে এসে জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল, প্রতিরক্ষা ও পররাষ্ট্র সচিব এবং গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর কর্তাব্যক্তিসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। 

প্রায় একই সময়ে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রী সুষমা স্বরাজ চীনে এক ত্রিপক্ষীয় বৈঠকে বলেছেন, ভারত দুই দেশের মধ্যকার উত্তেজনা আরও বেড়ে যাক, তা চায় না।

“ভারতে যেন জঙ্গীগোষ্ঠীটি ফের কোনো হামলা চালাতে না পারে সেজন্যই জইশ-ই-মোহাম্মদের অবকাঠামোতে অগ্রাধিকারভিত্তিতে স্বল্প মাত্রায় হামলা চালানোর ওই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। এ অবস্থায় উত্তেজনা আরও বেড়ে যাক, তা চায় না ভারত। আমরা দায়িত্বশীলতা ও সংযমমূলক মনোভাবের মধ্য দিয়ে সামনে অগ্রসর হবো,” চীনের উঝেনে বলেছেন সুষমা।

ভারতের এখন জবাবের অপেক্ষায় থাকার পালা: পাকিস্তান

কাশ্মীর সীমান্তে নিয়ন্ত্রণ রেখা অতিক্রম করে বালাকোটে ভারতীয় বিমানবাহিনীর হামলার পর হুমকি দিয়ে পাকিস্তান বলেছে, এখন আমাদের কাছ থেকে জবাবের অপেক্ষায় থাকার পালা ভারতের।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এক সংবাদ সম্মেলনে পাকিস্তানের সেনা মুখপাত্র মেজর জেনারেল আসিফ গফুর এ হুমকি দেন বলে জানিয়েছে ‘দ্য ডন’ পত্রিকা।

পাকিস্তানের সশস্ত্র বাহিনীর মিডিয়া শাখা ‘ইন্টার-সার্ভিসেস পাবলিক রিলেশন্স’ এর (আইএসপিআর) মহাপরিচালক গফুর বলেন, “আজ প্রধানমন্ত্রী সবাইকে সম্ভাব্য সব ধরনের ঘটনার জন্য প্রস্তুত থাকতে বলেছেন। আমরা সব প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি। ভারতের এখন আমাদের জবাবের অপেক্ষায় থাকার সময় এসেছে।”

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের পুলওয়ামায় জঙ্গী হামলায় ৪০ জনের বেশি জওয়ান নিহতের ঘটনার প্রতিশোধ নিতে মঙ্গলবার ভোররাত সাড়ে ৩ টার দিকে নিয়ন্ত্রণ রেখা (এলওসি) পেরিয়ে পাকিস্তানের বালাকোটে জইশ-ই-মোহাম্মদের ঘাঁটিতে বোমা হামলা চালায় ভারতীয় বিমানবাহিনী।

হামলায় তিন শতাধিক জঙ্গী এবং ২৫ জনের বেশি প্রশিক্ষক নিহত হয়েছে বলে দাবি করেছে ভারত; যদিও পাকিস্তান ওই খবর ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দিয়েছে।

মেজর জেনারেল আসিফ গফুর বলেন, “ভারতের দাবি তারা আমাদের আকাশে ২১ মিনিট অবস্থান করেছে এবং ৩৫০ জঙ্গীতে হত্যা করেছে।”

“আল্লাহ সর্বশক্তিমান, আমরা বড় বড় কথা বলতে চাই না। তবে তাদের বলছি, আবারও আমাদের আকাশে আসুন এবং ২১ মিনিট থেকে দেখান।”

গফুর বলেন, “রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের সিদ্ধান্ত মোতাবেক, যথাসময়ে নির্ধারিত স্থানেই জবাব দেয়া হবে। আর সে সিদ্ধান্ত আদতে হয়েও গেছে ।“

“আমরা এরইমধ্যে ভারতের আসল চেহারা খুলে দিয়েছি। আমরা আবারও এটা করব, যাতে বিশ্ব জানতে পারে ভারত আসলে কী চায়।”

 দেশটির প্রধান বিরোধী দলের নেতা শাহবাজ শরিফ আরও কড়া ভাষায় হুমকি দিয়ে বলেছেন, “যদি ভারত যুদ্ধ করতে চায় তবে দিল্লীতে পাকিস্তানের পতাকা উড়বে।” প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর এ অঞ্চলকে যুদ্ধের দিকে ঠেলে দেওয়া বন্ধ করা উচিত বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

দু’টি ভারতীয় যুদ্ধবিমান ভূপাতিত করার দাবি পাকিস্তানের

নয়াদিল্লী/ইসলামাবাদ, ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ (বাসস ডেস্ক) : পাকিস্তান আজ বুধবার দুটি ভারতীয় যুদ্ধবিমান ভূপাতিত করার দাবি করেছে। এর একদিন আগে ভারত পাকিস্তানের অভ্যন্তরে বিমান হামলা চালিয়ে অন্তত ৩শ জঙ্গীকে হত্যা করার দাবি করে।

এদিকে চির বৈরী প্রতিবেশী ও পরমাণু শক্তিধর এ দু’দেশের মধ্যে তৈরি হওয়া চরম উত্তেজনা কমাতে উভয় দেশের প্রতি আর্ন্তজাতিক সম্প্রদায় আহ্বান জানিয়েছে।

নয়াদিল্লী ও ইসলামাবাদের কর্মকর্তাদের উদ্ধৃত করে আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমে বলা হয়েছে, পাকিস্তান কাশ্মীরে তার আকাশসীমায় ভারতের দু’টি বিমান ভূপাতিত এবং একজন পাইলটকে আটক করেছে।

 সেনাবাহিনীর একজন মুখপাত্র বলেন, পিএএফ (পাকিস্তানী বিমান বাহিনী) পাকিস্তানী আকাশসীমায় ভারতের দু’টি বিমান ভূপাতিত করেছে।

পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর মুখপাত্র মেজর জেনারেল আসিফ গফুর টুইট করে বলেন, ভারতের একটি বিমান পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে এবং অন্যটি ভারতীয় অংশে বিধ্বস্ত হয়েছে।

ভারতের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা পিটিআইয়ের খবরে বলা হয়েছে, ভারতীয় বিমান বাহিনীর একটি বিমান জম্মু ও কাশ্মীরের বুদগাম জেলায় বিধ্বস্ত হয়েছে এবং অন্তত একজন প্রাণ হারিয়েছে।

পিটিআইয়ের অপর এক খবরে বলা হয়েছে, পাকিস্তানী যুদ্ধ বিমান আজ বুধবার জম্মু ও কাশ্মীরের রাজৌরি জেলার নওশেরা সেক্টরে ভারতীয় আকাশ সীমা লংঘন করেছে। কিন্তু ভারতীয় বিমান বাহিনীর তাড়া খেয়ে তারা পিছু হটেছে।

গত ১৪ ফ্রেবুয়ারি ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে পাকিস্তান ভিত্তিক জঙ্গীদের আত্মঘাতি গাড়ি হামলায় ভারতের অন্তত ৪০ আধাসামরিক পুলিশ নিহত হলে উভয় দেশের মধ্যে উত্তেজনা তীব্র হয়। কিন্তু গতকাল মঙ্গলবার ভারত বিমান হামলা চালালে উত্তেজনা নাটকীয়ভাবে চরমে ওঠে।

নয়াদিল্লীর দাবি তারা পাকিস্তানী অংশে জঙ্গী সংগঠন জইশ-ই-মোহাম্মদের আস্তানা লক্ষ্য করে হামলা চালিয়েছে এবং এতে জঙ্গী গোষ্ঠীটির অনেক সদস্য নিহত হয়েছে।

ভারত তাদের এ হামলাকে অসামরিক উল্লেখ করে উত্তেজনা আর বাড়ানোর আগ্রহ নেই বলে জানিয়েছে।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্র, চীন ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন দু’দেশকে সংযত থাকার পরামর্শ দিয়েছে। এছাড়া নিউজিল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রী উইন্সটন পিটার্স উত্তেজনা বেড়ে যাওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

পাকিস্তান যুদ্ধ চায় না: সেনা মুখপাত্র

 মেজর জেনারেল আসিফ গফুর পাকিস্তান ‘যুদ্ধের দিকে যেতে চায় না’ বলে জানিয়েছেন দেশটির সেনাবাহিনীর মুখপাত্র। পাকিস্তান নিজেদের আকাশসীমায় ভারতের দুটি যুদ্ধবিমান ভূপাতিত করেছেএমন খবরের কয়েক ঘণ্টা পরই দেশটির সেনাবাহিনীর মুখপাত্র এমন কথা বললেন। খবর এএফপির।

রাওয়ালপিন্ডিতে সেনা ঘাঁটিতে এক সংবাদ সম্মেলনে মেজর জেনারেল আসিফ গফুর নয়াদিল্লীকে বৈঠকের আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘আমরা উত্তেজনা বাড়াতে চাই না, আমরা যুদ্ধের দিকেও যেতে চাই না।’

এই মুখপাত্র বলেন, দুটি বিমান ভূপাতিত করার ঘটনায় আটক দুই বৈমানিকের একজন হেফাজতে আর অপরজন হাসপাতালে আছেন।

১৪ ফেব্রুয়ারি ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে ভারতের আধা সামরিক বাহিনীর গাড়িবহরে আত্মঘাতী হামলায় ৪০ জনের বেশি জওয়ান নিহত হন। পাকিস্তানভিত্তিক জঙ্গী সংগঠন জইশ-ই-মুহাম্মদ এই হামলার দায় স্বীকার করে। এ নিয়ে পারমাণবিক শক্তিধর দুই বৈরী প্রতিবেশী ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

পাকিস্তানের হামলায় নয়  পাইলটদের ভুলেই বিমান দুর্ঘটনা: ভারত 

কাশ্মীরে ভারতের দুই বিমান বিধ্বস্ত হওয়ার ঘটনায় ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের কাছে এ বিষয়ে দিল্লীর অবস্থান পরিষ্কার করেছেন দেশটির কর্মকর্তারা। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি’কে তারা বলেছেন, পাকিস্তানের হামলায় ভারতীয় বিমান দুর্ঘটনা হয়নি। যা হয়েছে তার জন্য দায়ী যুদ্ধবিমানের পাইলট। এর আগে পাকিস্তান জানায়, দেশটির আকাশসীমায় বুধবার ভারতের দুই যুদ্ধবিমানকে গুলি করে ভূপাতিত করেছে পাকিস্তান। দুই বিমানের একটি আজাদ কাশ্মীরে ভূপাতিত হয়। অন্যটি ভারতের দখলকৃত কাশ্মীরে গিয়ে ভূপাতিত হয়।

২০১৯ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি কাশ্মীরের পুলওয়ামাতে ভারতীয় আধাসামরিক বাহিনীর গাড়িবহরে আত্মঘাতী হামলা চালানো হয়। এতে ভারতীয় বাহিনীর অন্তত ৪৪ সদস্য নিহত হয়। পাকিস্তানের প্রত্যক্ষ ইন্ধনে ওই হামলা সংঘটিত হয়েছে দাবি করে ভারত। একে কেন্দ্র করে ২৬ ফেব্রুয়ারি নিয়ন্ত্রণরেখা অতিক্রম করে কাশ্মীরের পাকিস্তান অংশে বিমান হামলা চালায় ভারতীয় বাহিনী। পরদিন পরদিন পাকিস্তানের আকাশসীমায় প্রবেশ করলে ভারতীয় দুই যুদ্ধবিমানকে গুলি করে ভূপাতিত করে পাকিস্তানী বাহিনী।

পাকিস্তানের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, তাদের যে আত্মরক্ষা অধিকার রয়েছে তা বোঝাতেই আত্মরক্ষামূলক এ হামলা চালানো হয়েছে। পাকিস্তান নিজ থেকে কোনও হামলা করতে চায় না। কিন্তু ভারত যদি হামলা করে তবে তার পাল্টা জবাব দেওয়া হবে।

ইসলামাবাদ বলছে, অন্য কোনও উদ্দেশ নেই বলেই প্রকাশ্যে হামলা চালানো হয়েছে। অন্য উদ্দেশ্য থাকলে এভাবে হামলা চালানো হতো না। তবে ভারত সরকারের পক্ষ থেকে এখনও আনুষ্ঠানিক কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছে এনডিটিভি।

এবার পাকিস্তানের এফ-১৬ জেট ধ্বংসের দাবি ভারতের

 পাকিস্তানের আকাশসীমায় ভারতীয় যুদ্ধবিমান বিধ্বস্ত হওয়ার পর দিল্লী দাবি করেছে, তাদের আকাশসীমা লঙ্ঘনকারী একটি পাকিস্তানী যুদ্ধবিমান ভূপাতিত করা হয়েছে। নওশেরা সেক্টরের লাম উপত্যকার তিন কিলোমিটার এলাকার মধ্যে ভারতীয় বাহিনীর ছোড়া গুঁলীতে বিমানটি ভূপাতিত হয়েছে বলে দাবি তাদের। তবে পাকিস্তানের পক্ষ থেকে ভারতের দাবি অস্বীকার করা হয়েছে।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি কাশ্মীরের পুলওয়ামায় ‘সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্সের’ গাড়িবহরে আত্মঘাতী বোমা হামলায় বাহিনীর অন্তত ৪০ সদস্য প্রাণ হারান। পাকিস্তানভিত্তিক জঙ্গীগোষ্ঠী জইশ-ই-মোহাম্মদ হামলার দায় স্বীকার করে। মঙ্গলবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) ভারতীয় বিমানবাহিনী ৭১-পরবর্তী ইতিহাসে প্রথমবারের মতো পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের আকাশসীমায় ঢুকে বিমান হামলা চালানোর পর জানায়, ভেতরে সেই জইশ-ই-মোহাম্মদের ঘাঁটি ধ্বংসের উদ্দেশ্যেই তারা ওই ‘অসামরিক অভিযান’ পরিচালনা করেছে।

২৭ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানের আকাশসীমায় দুটি ভারতীয় বিমান ভূপাতিত হয়। পাকিস্তান ওই দুই বিমান ভূপাতিত করার দাবি করলেও ভারত বলছে পাইলটের ভুলের কারণে বিমান দুটি বিধ্বস্ত হয়েছে। ভারতের দাবি, পাকিস্তানী যুদ্ধবিমান ভারতীয় আকাশসীমায় ঢুকে পড়ে বোমা ফেলার কিছুক্ষণের মধ্যেই পাল্টা হামলা চালায় ভারত। দেশটির সরকারি কর্মকর্তাদের দাবি, এ ঘটনায় কোনও প্রাণহানি হয়নি।

নিউজ এইটিনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পাকিস্তানী যুদ্ধবিমান যখন ভূপাতিত হচ্ছিলো তখন একটি প্যারাস্যুট নামতে দেখা গেছে। তবে ওই বিমানের পাইলটের কী পরিণতি হয়েছে তা জানাতে সক্ষম হয়নি তারা।

আন্তঃবাহিনী গণসংযোগ পরিদফতরের মহাপরিচালক আসিফ গফুরকে উদ্ধৃত করে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, পাকিস্তান বিমান ভূ-পাতিত করার ভারতীয় দাবি নাকচ করেছে।

ভারতের আর পাকিস্তানের মধ্যে সামরিক শক্তির পার্থক্য কতটা?

স্বয়ংক্রিয় অস্ত্রের দিক তালিকায় ভারতের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে পাকিস্তান 

ভারত শাসিত কাশ্মীরের পুলওয়ামায় এক হামলায় ৪০ জনের বেশি নিরাপত্তারক্ষী নিহত হওয়ার পর ‘লাইন অব কন্ট্রোল’ অতিক্রম করে পাকিস্তানের সীমানার ভেতরে হামলা করেছে ভারত।

ভারতের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে যে এই হামলায় পাকিস্তানের ভেতরে বহু মানুষ নিহত হয়েছে। তবে পাকিস্তানের দাবি, তারা এসব হামলা ঠেকিয়ে দিয়েছে। 

জঙ্গী হামলার ওই ঘটনার পর থেকেই দুই দেশের মধ্যে চলছে উত্তেজনা। 

পুলওয়ামায় হামলার পর ভারত এর সমুচিত জবাব দেওয়ার হুমকি দিয়েছিল। অন্যদিকে, পাকিস্তান বলেছিল যে আক্রান্ত হলে তারাও বসে থাকবে না।

দুটো দেশের হাতেই পারমাণবিক অস্ত্র রয়েছে। কিন্তু প্রতিবেশী এই দুই বৈরী দেশের কার কেমন সামরিক শক্তি রয়েছে? 

গ্লোবাল ফায়ার পাওয়ারের ২০১৮ সালের প্রতিবেদন অনুযায়ী, সামরিক শক্তির দিক থেকে বিশ্বের ১৩৬টি দেশের মধ্যে ভারতের অবস্থান চতুর্থ, অন্যদিকে পাকিস্তানের অবস্থান সতেরোতম। 

এই তালিকা তৈরি করা হয়েছে ৫৫টির বেশি উপাদান বিবেচনায় নিয়ে। ভৌগোলিক, অর্থনৈতিক, স্থানীয় শিল্প, প্রাকৃতিক সম্পদ, কর্মক্ষমতা এবং প্রথম, দ্বিতীয় বা তৃতীয় বিশ্বের দেশের মর্যাদার বিষয়গুলো এখানে বিবেচনায় নেয়া হয়েছে। 

জনসংখ্যার দিক থেকে পাকিস্তানের চেয়ে অনেক এগিয়ে ভারত। পাকিস্তানের জনসংখ্যা যেখানে সাড়ে ২০ কোটি, সেখানে ভারতের জনসংখ্যা ১২৮ কোটির বেশি। পাকিস্তানের সৈন্য সংখ্যা ৯ লাখ ১৯ হাজার হলেও ভারতের সেনাবাহিনীর সদস্য সংখ্যা কয়েকগুণ বেশি - ৪২ লাখ।

 

ভিডিওতে ‘আটক ভারতীয় পাইলটকে হাজির করলো পাকিস্তান 

বুধবার সকালে পাকিস্তানী আকাশসীমায় ভারতীয় বিমান ভূপাতিত করার পর দুই পাইলটকে আটকের দাবি করে পাকিস্তান। ভারত সেই দাবি নাকচ করলেও ভিডিওচিত্রে চোখবাধা অবস্থায়  এক ব্যক্তিকে হাজির করে পাকিস্তানের সেনাবাহিনী দাবি করছে, ওই ব্যক্তি তাদের হাতে আটক ভারতীয় পাইলট। ভিডিওতে হাজির করা ব্যক্তিকে ভারতীয় বিমান বাহিনীর ইউনিফর্ম সদৃশ ফ্লাইটস্যুট পরিহিত অবস্থায় দেখা গেছে।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি কাশ্মীরের পুলওয়ামায় ‘সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্সের’ গাড়িবহরে আত্মঘাতী বোমা হামলায় বাহিনীটির অন্তত ৪০ সদস্য প্রাণ হারান। পাকিস্তানভিত্তিক জঙ্গীগোষ্ঠী জইশ-ই-মোহাম্মদ হামলার দায় শিকার করে। মঙ্গলবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) ভারতীয় বিমানবাহিনী ৭১-পরবর্তী ইতিহাসে প্রথমবারের মতো পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের আকাশসীমায় ঢুকে বিমান হামলা চালানোর পর জানায়, ভেতরেসেই জইশ-ই মুহাম্মদের ঘাঁটি ধ্বংসের উদ্দেশ্যেই তারা ওই ‘অসামরিক অভিযান’ পরিচালনা করেছে। একদিন পরই বুধবার ভারতীয় বিমান বাহিনীর দুটি বিমান ভূপাতিত করার দাবি করে পাকিস্তান। তাদের দাবি,  আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকারবোধ থেকেই নিজেদের আকাশসীমায় ভারতীয় বিমান প্রতিহত করা হয়েছে। বিমানে থাকা ভারতের দুই পাইলটকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে দাবি করেছে পাকিস্তান।  

 

বুধবার বিকেলে ওই পাইলটের চোখবাঁধা ভিডিও প্রকাশ করে আন্তবাহিনী জনসংযোগ দফতর- আইএসপিআর। এর ব্যাপ্তি ৪৯ সেকেন্ড। আন্তবাহিনী গণসংযোগ পরিদফতরের মহাপরিচালক আসিফ গফুর টুইটারে জানান, দুই ভারতীয় বিমানের একটি নিয়ন্ত্রণ রেখা লঙ্ঘন করে পাকিস্তানী সীমান্তের অংশে আর অপরটি আজাদ কাশ্মীরে ঢোকার পর ভূপাতিত করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ