বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

জায়গা স্বল্পতায় আটপাড়া বাজারের অচলাবস্থা

দিলওয়ার খান, নেত্রেকোনা: জেলার আটপাড়া সদরের একমাত্র নিত্য দিনের বাজার আটপাড়া ব্রুজের বাজার। কিন্তু বাজারটিতে জায়গা স্বল্পতার কারণে অত্যন্ত নাজুক অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। বাজারটিতে বেশ কয়েকটি মহাল রয়েছে। যেমন- ধান মহাল, পাট মহাল, মাছ মহাল, তরকারি মহাল, জালি মহাল, দা-কুড়াল মহাল, দারী মহাল, কাঠ মহাল, চাউল মহাল, কাপড় মহালসহ বিভিন্ন প্রকার মহাল থাকলেও প্রয়োজনীয় জাগয়া না থাকায় ব্যবসায়ীরা তাদের পণ্য সামগ্রী নিয়ে বাজারে বসতে পারে না। বাজার ডাকের সিংহভাগ অর্থই আসে মাছ মহাল থেকে। যা নদী ভাঙ্গনের ফলে অনেক ছোট হয়ে গেছে। যা প্রসার করাও দরকার। মাছ মহালের পাশে একটি শৌচাগার রয়েছে। শৌচাগারটি দীর্ঘদিন যাবৎ সংস্কার না করার ফলে এর দূর্গন্ধে ক্রেতা-বিক্রেতারা আসতে পারেন না। স্থানীয় কিছু ব্যবসায়ী তাদের পণ্য সামগ্রী নিয়ে রাস্তার পাশে বসে যা জনসাধারণের চলাচলে বাঁধার সৃষ্টি হয়। জায়গার স্বল্পতার কারণে দূরবর্তী থেকে আসা সাপ্তাহিক শনিবারের বড় হাটে ব্যবসায়ীরা না আসায় বাজারের ইজারাদারসহ অন্যান্য স্থানীয় ব্যবসায়ীদের লোকসান দিতে হচ্ছে। এমতাবস্থায়, ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে তাদের দাবী রয়েছে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ যেন এ বিষয়টি আমলে নিয়ে ইজারাদারসহ ব্যবসায়ীদের ব্যবসা করার মত ব্যবসা বান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি করেন। গত ১লা বৈশাখী ২০১৫ বাংলা সনে বাজারটি ১০ লক্ষ টাকায় ইজারা ডাকা হয়। যার সাথে রয়েছে ভ্যাট ১৫% এবং আয়কর ৫% এবং ৫০ হাজার টাকা জামানত। যার সর্ব সাকুল্য জামানত বাদে ১২ লক্ষ টাকা ইজারা মূল্য ধার্য্য করা হয়েছে ১০ শতাংশ ভূমির এই ব্রুজের বাজারটিতে। এতে লোকসান গুনতে হচ্ছে ইজারাদারকে এবং দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে ব্যবসায়ীদেরকে। বাজারের বর্তমান ইজারাদার মো: জহিরুল ইসলাম খান হীরা বাজারের জায়গা স্বল্পতা ও শৌচাগারের বায়ু দূষণের সমস্যা উল্লেখ করে ব্যবসায় লোকসান হয়েছে মর্মে ক্ষতি পূরণের লক্ষ্যে পরবর্তী বৎসরের ২৫-০২-২০১৯ইং তারিখের ইজারা ডাকের কার্যক্রম বন্ধ রাখার জন্য দেওয়ানী আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ