বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

পাঁচ মাসেও উদ্ধার হয়নি খালিশপুরে পাচারের শিকার শিশু রব্বানী

খুলনা অফিস : গত পাঁচ মাসেও পুলিশ উদ্ধার করতে পারেনি খুলনা মহানগরীর খালিশপুরে পাচারের শিকার শিশু রব্বানীকে। পাচারের ঘটনায় মামলা দায়ের করা হলেও পুলিশ পাচারকারীদের গ্রেফতার করতে পারেনি। এ ঘটনায় ভিকটিমের পিতা মুক্তিযোদ্ধা মোসলেম শেখ বাদি হয়ে মামলা দায়ের করেছেন।

মামলায় উল্লেখ করা হয়, মোসলেম উদ্দীন খালিশপুর শিশুপার্ক এলাকার জমিদারবাড়ির শাহিনের বাড়িতে ভাড়া থাকেন। গত ২১ সেপ্টেম্বর তার স্কুল পড়ুয়া ছেলে রব্বানী (৯)কে ফুসলিয়ে মহরমে মাজার জিয়ারতের কথা বলে বাড়ি থেকে যশোরে নিয়ে যায়। ওই রাতে আসামিরা ফিরে এলেও তার শিশুপুত্র ফিরে আসেনি। এ সময় তিনি আসামীদের কাছে গিয়ে তার ছেলের কথা জিজ্ঞাসা করতে তারা নানা ধরনের টালবাহানা করতে থাকে। বিষয়টি তিনি ১০নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর কাজী তালাত হোসেন কাউটকে অবগত করেন। কাউন্সিলর তার ছেলে রব্বানীকে ফেরত দেওয়ার জন্য বললেও তারা ছেলেকে ফেরত না দিয়ে টালবাহানা করে।

অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেন, আসামীদের স্বজনরা ভারতে বসবাস করে। এ ঘটনায় ভিকটিমের পিতা বাদি হয়ে গত ১৭ ফেব্রুয়ারি খালিশপুর থানায় মানব পাচার প্রতিরোধ ও দমন আইন-২০১২-এর ৬/৭ ধারায় পাঁচজনের নাম উল্লেখপূর্বক অজ্ঞাত আরও ২/৩ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। এজাহারভুক্তরা হলো-বেবী (৪৫), সীমা (২৮), আনিছ (৩৫), আক্কাস (৪২) ও জোসনা বেগম (৪০)। আসামীরা বাদীর প্রতিবেশী।

বাদি অভিযোগ করে বলেন, ঘটনার পর থেকে থানায় জিডিসহ নিয়মিত যোগাযোগ রাখলেও পুলিশ তার ছেলেকে উদ্ধার করতে পারেনি। এখন মামলা দায়ের করলেও পুলিশ আসামিদের গ্রেফতারে নানা টালবাহানা করছে বলে তিনি অভিযোগ করেন।

এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আব্দুল মান্নান বলেন, আসামীরা সবাই পরস্পর প্রতিবেশী। মোসলেম মিয়ার ছেলে নিখোঁজ হয়েছে একথা সত্য। কিন্তু যাদের আসামী করা হয়েছে তারা পাচার করছে কী না তা সন্দেহ হয়। তবে আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে তদন্তকারী কর্মকর্তা জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ