শুক্রবার ২১ জানুয়ারি ২০২২
Online Edition

সংস্কারের অভাবে ভাঙ্গা রাস্তায় ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহন

তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) : তাড়াশ হইতে মহিষলুটি পযর্ন্ত, হামকুড়িয়া চৌরাস্তা থেকে রানীর হাট পর্যন্ত রাস্তায় খানা খন্দে ভরা গর্তে প্রতিনিয়ত গাড়ী পড়ে দুঘর্টনা সংঘটিত হচ্ছে -সংগ্রাম

তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) থেকে শাহজাহান : তাড়াশ উপজেলার রাস্তা ঘাটের বেহাল দশা চলছে। এসব সড়কে যান চলাচল তো দূরের কথা পথচারী চলাই দায়। যান চলাচল করায় সড়কে নুরী খোয়া উঠে সুষ্টি হয়েছে অসংখ্য বড় গর্তের। এতে উপজেলার কোন সড়ক পথে ভ্যান রিক্সা ট্রাক,বাস চলাচল করা যায়না। উপজেলার তাড়াশ ডাকবাংলো থেকে নওগাঁ পর্যন্ত তাড়াশ সদর থেকে বারুহাস পর্যন্ত বিনসাড়া থেকে রানির হাট পর্যন্ত খুঁটিগাছা থেকে বাঁশবাড়িয়া পর্যন্ত গোয়ালগ্রাম থেকে কালিদাসনীলি পর্যন্ত হামকুড়িয়া বাজার থেকে বাহির পাড়া সড়কের বেহাল দশা। এ পথ দিয়ে ভারি যানবাহন চলাচলের কারনে সমস্ত সড়ক জুড়ে সৃষ্টি হয়েছে গর্ত। এদিতে তাড়াশ ওয়াপদা বাঁধ তাড়াশ থেকে মান্নান নগর পর্যন্ত রাস্তা যান চলাচলের সম্পূর্ণ অযোগ্য হয়ে পড়ছে। রানীর হাট থেকে মান্নান পর্যন্ত ৩০ কিলোমিটার রাস্তা ভেঙ্গে খানা খন্দের সৃষ্টি হয়ে অসংখ্য বড় বড় গর্ত বের হয়ে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনায় পতিত হচ্ছে জনসাধারণ। তাড়াশ উপজেলার মহিষলুটির রাস্তা দু পাশে সামান্য বৃষ্টি হলেই পানি জমে যাতায়াতের চরম অসুবিধার সৃষ্টি হয়।
মহিষলুটি হতে নওগাঁ মাজার পর্যন্ত চলাচলে জনসাধারণের ভোগান্তির শেষ নেই। সড়ক ও জনপদ বিভাগের কর্মকর্তাদের অবহেলা ও উদাসিনতার কারণে রাস্তাগুলি বেহালদশার সৃষ্টি হয়েছে বলে অনেকে জানিয়েছেন। ঝুঁকিপূর্ণ এ রাস্তায় প্রতিনিয়ত জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রায় ৬০ হাজার মানুষ যাতায়াত করে থাকে। সিরাজগঞ্জের সলঙ্গা টু তাড়াশ ৭ কিলোমিটার সড়কটি এখন অভিভাবক শূন্য হয়ে মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। সড়কে সৃষ্টি হওয়া ছোট ছোট খানাখন্দ গুলো এখন বড় বড় গর্তে পরিণত হয়েছে। রাস্তা ভেঙ্গে যানবাহন ও পথচারীদের চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। ছোট খাট দুর্ঘটনায় পড়ে অনেকেই পঙ্গু হওয়ার খবর জানা গেছে। বনবাড়ীয়া ভোলার বটতলা হতে কুঠিপাড়া পর্যন্ত প্রায়ই যানজট লেগেই থাকে। এলাকাবাসী সলঙ্গা বাজারে ধান, চাল, তরিতরকারী বহনে যেমন অসুবিধার মধ্যে পড়েছে। তেমনি জরুরী রোগীকে হাসপাতালে নিতে ভোগান্তিতে পড়েছে অনেকেই। তাড়াশ উপজেলার বারুহাস, গুলটা, রানীর হাট সহ উপজেলার অধিকাংশ জনগণের জেলা শহর সিরাজগঞ্জ যেতে নিমগাছী, ভুইয়াগাঁতী হয়ে হাটিকুমরুল রোড দিয়ে শহরে যেতে একদিকে বেশী টাকা গুণতে হয়। অপর দিকে দীর্ষ সময়ক্ষেপণ করতে হয়। আর তাড়াশ হতে সলঙ্গার রাস্তা দিয়ে যেতে সময় ও টাকা উভয়ই সাশ্রয় হয়। ইদানীং উক্ত রাস্তার ঝুরঝুরি ব্রীজ হতে সলঙ্গা পর্যন্ত চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সিরাজগঞ্জ রোড মাছের আড়তে তাড়াশ এলাকার মাছ বিক্রি আর পশ্চিম এলাকার খড় বোঝাই নসিমন গাড়ীর নিরাপদ রাস্তা হচ্ছে এই সড়ক।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ