রবিবার ০৯ আগস্ট ২০২০
Online Edition

কিশোরগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র গ্রহণে অনিয়ম

কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী) সংবাদদাতা: নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মনোনয়ন পত্র জমাদানের শেষ দিনে নানা অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। নির্বানেচ্ছুক প্রার্থীদের অভিযোগে জানা গেছে,উপজেলা সহকারী রিটার্নিং অফিসার সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত চেয়ারম্যান পদে ৬জন,পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬জনের মনোনয়ন পত্র গ্রহন করে। কিন্তু বিকাল সাড়ে ৫টার পর ভাইস চেয়ারম্যান পদে আরও ৪জনের মনোনয়ন পত্র গ্রহন করে উপজেলা সহকারী রিটার্নিং অফিসার মনোয়ার হোসেন। ্এ নিয়ে উপজেলা নির্বাচনে অংশ গ্রহনকারী ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনেচ্ছুক প্রার্থী হাফিজুল ইসলাম অভিযোগ করে বলেন,সহকারী রিটার্নিং অফিসার নির্বাচন বিধিমালার তোয়াক্কা না করে সাড়ে ৫টার পর রহিদুল ইসলাম,ভূবন চন্দ্র মোহন্ত,আশেক আলী ও শিল্পী রানীর মনোনয়ন পত্র গ্রহন করে। অপর ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী বরকত-ই খোদা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন,আমরা সরকার দলের লোক হয়েও নির্বাচন বিধিমালা মেনে মনোনয়ন পত্র দাখিল করেছি। কিন্তু যে ৪জন প্রার্থী বিকাল সাড়ে ৫টার পর মনোনয়ন পত্র দাখিল করেছেন তারা প্রভাব খাটিয়ে অথবা আর্থিক সুবিধা লেনদেনের মাধ্যমে রিটার্নিং অফিসারকে ম্যানেজ করে তা করেছে। তা না হলে তাদের ক্ষেত্রে নির্বাচনের নিয়ম নীতি আলাদা হলো কি করে? এ রকম অভিযোগ করেছেন স্বপন চন্দ্র রায়সহ আরো অনেকে।
উপজেলা সহকারী রিটার্নিং অফিসার ও উপজেলা নির্বাচন অফিসার মনোয়ার হোসেন ৫টার পর মনোনয়ন পত্র গ্রহনের কথা স্বীকার করে বলেন, যে ৪জন প্রার্থীর মনোনয়ন ৫টার পর জমা নেয়া হয়েছে তাদের স্ব স্ব মনোনয়ন পত্রে সময় উল্লেখ করা হয়েছে। এ ছাড়াও জেলা রিটার্নিং অফিসার আফতাবুজ্জামান স্যারের নির্দেশ মোতাবেক তা করা হয়েছে। জেলা রিটার্নিং অফিসার আফতাবুজ্জামানের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন,আমি এ বিষয়ে কিছুই জানিনা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ