রবিবার ০৯ আগস্ট ২০২০
Online Edition

চাকরিচ্যুত পোশাক শ্রমিকদের পুনর্বহাল দাবি

স্টাফ রিপোর্টার : গত ডিসেম্বর-জানুয়ারি মাসে পোশাক শিল্পে ঘোষিত মজুরিকে কেন্দ্র করে শ্রমিকদের বিরুদ্ধে ঢালাওভাবে বিভিন্ন কারখানার মামলা প্রত্যাহার এবং গণহারে চাকরিচ্যুত শ্রমিকদেরকে পুনর্বহালের দাবি জানিয়েছে ইন্ডাস্ট্রি অল বাংলাদেশ কাউন্সিল।
গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের আব্দুস সালাম হলে আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়। সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ইন্ডাস্ট্রি অল বাংলাদেশ কাউন্সিলের চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন আহমেদ, মহাসচিব সালাউদ্দিন স্বপন, সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান আমিরুল হক আমিন, সাবেক মহাসচিব তৌহিদুর রহমান, কেন্দ্রীয় নেত্রী নাজমা আক্তার প্রমুখ।
সাংবাদিক সম্মেলনে বক্তারা বলেন, মালিকরা শ্রমিকদের আন্দোলন থেকে মুক্তি পেয়েই শ্রমিকদের ওপর মামলা, হামলা, গ্রেফতার এবং চাকরি থেকে গণহারে বহিষ্কারের মহাউৎসব শুরু করে। যার ফলে এ পর্যন্ত সাভার, আশুলিয়া এবং গাজীপুরের বিভিন্ন থানায় ৩৪টি মামলায় প্রায় সাড়ে তিন হাজার শ্রমিককে আসামী করা হয়েছে। এসব মামলায় ইতোমধ্যে শতাধিক শ্রমিককে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং হাজার হাজার শ্রমিককে বিভিন্ন পন্থায় চাকরিচ্যুত করেছে। যা পোশাক শিল্পের সকল রেকর্ড অতিক্রম করেছে।
তারা আরও বলেন, শ্রম অসন্তোষকে পুঁজি করে পোশাক শিল্পের মালিকরা শ্রমিকদের বিভিন্ন কায়দায় অমানুষিকভাবে নির্যাতন করে যাচ্ছে। যা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। আমরা দ্ব্যর্থহীন কণ্ঠে বলতে চাই, নিরাপরাধ কোনো শ্রমিক একক বা দলগতভাবে অবৈধভাবে চাকরিচ্যুত বা কালো-তালিকাভুক্ত করে জীবন-জীবিকার পথ রুদ্ধ করা মানবাধিকারের পরিপন্থী।
এ সময় তারা কিছু দাবি তুলে ধরেন। দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে- সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, গ্রেফতার শ্রমিকদের মুক্তি, চাকরিচ্যুত সকল শ্রমিকদেরকে কাজে পুনর্বহাল এবং মজুরির গেজেট প্রকাশের পর থেকে প্রোডাকশনের নামে টার্গেট দিয়ে চলমান শ্রমিক হয়রানি বন্ধ করা।
তারা আরও বলেন, শ্রমিকরা তাদের অধিকার না পেলে রাজপথে নামবেই। দাবি আদায়ে রাজপথে নামলে যদি তাদের চাকুরি না থাকে তাহলে সেদেশে শিল্প কোন দিনই উন্নতি হবে না। শ্রমিক- মালিকদের সম্পর্ক আরও মজবুত করতে হবে। তা না হলে শ্রমিকদের সামনে যেমন দুর্দিন তেমনি মালিকদের সামনেও একটি অন্ধকার যুগ আসছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ