রবিবার ০৯ আগস্ট ২০২০
Online Edition

কুষ্টিয়ায় খেলতে গিয়ে মাটিচাপায় ২ শিশু নিহত

কুষ্টিয়া সংবাদদাতা : কুষ্টিয়ার মিরপুরে  খেলার সময় মাটির নিচে চাপা পড়ে দুই শিশু নিহত হয়েছে। এ সময় আহত হয়েছে আরেক শিশু।

বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলার বারুইপাড়া ইউনিয়নের গোড়দহ খাল পাড়ায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলো- গোড়দহ গ্রামের মন্টু মণ্ডলের ছেলে আকাশ (১২) ও মৃত হাশেমের ছেলে তারিকুল (১২)। আহত হয়েছে একই গ্রামের নাসিরের ছেলে লিখন (১০)।

মিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, তিন শিশু বাড়ির পাশে উচুঁ টিলার নিচে খেলা করছিল। এ সময় টিলার মাটির একাংশ ভেঙে তাদের ওপরে পড়ে।

পরে এলাকাবাসী মাটি সরিয়ে তাদের উদ্ধার করার আগেই আকাশ ও তরিকুল ঘটনাস্থলে মারা যায়। আহত লিখন মিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসাধীন আছে।

একজনের মৃত্যুদণ্ড

কুষ্টিয়ায় শিশু হত্যা মামলায় খাইরুল ইসলাম (৩৬) নামে একজনকে মৃত্যুদণ্ড ও ৯ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। বৃহস্পতিবার দুপুরে কুষ্টিয়া নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতের বিচারক মুন্সি মো. মশিয়ার রহমান এ রায় দেন।

মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত খাইরুল ইসলাম কুমারখালী উপজেলার কোমরকান্দি গ্রামের ওমেদ আলীর ছেলে। মৃত্যুদণ্ডের পাশাপাশি বিচারক তাকে একলাখ টাকা জরিমানাও করেছেন। একইসঙ্গে খাইরুলের চাচাতো ভাই সামাদ প্রামাণিকের ছেলে মো. জিকুরকে (৩২) একবছর কারাদ- দেওয়া হয়েছে।

এ ছাড়া, বাকি ৮ জন আসামিকে তিন মাস করে কারাদ- দিয়েছেন আদালত। তারা হলো– খাইরুলের ভাই ফারুক হোসেন (৩২), তার বাবা ওমেদ প্রামাণিক (৬০), চাচা আছান প্রামাণিক (৫৮), আবুল কাশেম (৪৮), ওছেল প্রামাণিক (৫০), মৃত সৈয়দ আলীর ছেলে আতিয়ার রহমান (৪০), সদর উদ্দিনের ছেলে রবিউল ইসলাম (২৫) ও জুমারত আলীর ছেলে জাহাঙ্গীর হোসেন (৪২)। রায় ঘোষণার সময় আসামিরা আদালতে কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিল।

আদালত সূত্র জানায়, পূর্ব-শত্রুতার জের ধরে ২০১৪ সালের ৫ অক্টোবর সন্ধ্যায় বাবুল হোসেনের (১৪) বাবা পলাশ উদ্দিনের বাড়িতে আসামীরা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে হামলা করে। এসময় তারা পলাশ উদ্দিনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে। বাবাকে বাঁচাতে বাবুল এগিয়ে আসলে তাকেও আসামিরা এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করে। গুরুতর আহত বাবুলকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় নিহতের বাবা পলাশ বাদী হয়ে কুমারখালী থানায় মামলা করেন।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী (পিপি) আকরাম হোসেন দুলাল জানান, তদন্ত শেষে ২০১৫ সালের ১৫ মে আদালতে মামলাটির অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করে পুলিশ। দীর্ঘ শুনানি শেষে আদালত আজ (বৃহস্পতিবার) মামলাটির রায় ঘোষণা করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ