সোমবার ১০ আগস্ট ২০২০
Online Edition

ইন্দোনেশিয়ায় তালাবদ্ধ দোকান থেকে ১৯৩ বাংলাদেশী উদ্ধার

সংগ্রাম ডেস্ক : ইন্দোনেশিয়ার একটি তালাবদ্ধ দোকানঘর থেকে ১৯৩ বাংলাদেশীকে উদ্ধার করেছে দেশটির পুলিশ। মালয়েশিয়ায় নিয়ে যাওয়ার প্রলোভনে তাদের সেখানে নিয়ে গিয়ে আটকে রাখা হয় বলে অভিবাসন কর্মকর্তার বরাতে বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ তথ্য জানিয়েছে। কাজের জন্য মালয়েশিয়ায় যাওয়ার উদ্দেশে পর্যটন ভিসায় বালি ও ইওগেকার্তা শহর হয়ে তারা ইন্দোনেশিয়ায় ঢুকেছেন। শীর্ষকাগজ

ইন্দোনেশিয়ার উত্তর সুমাত্রার অভিবাসন প্রধান ফেরি মেনাং সিহিত বলেন, এসব বাংলাদেশী মানবপাচারের শিকার হয়েছেন। মালয়েশিয়ায় নিয়ে গিয়ে ভালো কাজের সুযোগ দেয়ার লোভের ফাঁদে ফেলে তাদের এখানে নিয়ে আসা হয়েছে। সুমাত্রা দ্বীপের মেদানে তারা তালাবদ্ধ অবস্থায় ছিলেন।

গত বুধবার রাতে যখন তাদের উদ্ধার করা হয়, তখন সবাই সুস্থ ছিলেন। এরপর তাদের অভিবাসী আটক কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এখন তাদের বাংলাদেশে ফেরত পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে।

আটকদের একজন ৩৯ বছর বয়সী মাহবুব বলেন, গত তিন মাস ধরে তাদের কয়েকজনকে এভাবে আটকে রাখা হয়েছিল। সবাই প্রতারিত হয়েছেন বলে দাবি করেন তিনি।

মাহবুব বলেন, আমাদের মালয়েশিয়ায় যাওয়ার কথা ছিল। এ জন্যই আমরা বালির উদ্দেশে বাংলাদেশ ছেড়েছিলাম। এরপর চারদিনের বাস সফর শেষে এখানে পৌঁছাই।

স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, ভবনের ভেতর থেকে সন্দেহজনক শোরগোলের খবর পাওয়ার পর স্থানীয়রা কর্তৃপক্ষকে খবর দেন। উদ্ধার হওয়ার এসব লোকজন রোহিঙ্গা নন বলে জানিয়েছেন মেনাং সিহিত।

মালদ্বীপে ৮০ বাংলাদেশী আটক

বৈধ কাগজপত্র না থাকায় মালদ্বীপে ৮০ বাংলাদেশীকে আটক করেছে দেশটির অভিবাসন কর্তৃপক্ষ। গত বুধবার তাদের আটক করা হয়েছে বলে মালদ্বীপের স্থানীয় গণমাধ্যম রাজ্যেএমভি’র এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

খবরে বলা হয়, বছরের প্রথম অভিযানে তাদেরকে আটক করা হয়েছে। জনগণের বেশকিছু অভিযোগের প্রেক্ষিতে মালদ্বীপের রাজধানীতে এই অভিযান পরিচালিত হয়। যথাযথ প্রক্রিয়া শেষে তাদেরকে মালদ্বীপ থেকে ফেরত পাঠানো হবে বলে জানানো হয়েছে।

দেশটির অভিবাসন কর্তৃপক্ষের হিসাব অনুযায়ী দেশটিতে ১ লাখ ৪৪,৬০৭ জন বিদেশী কর্মী রয়েছে যার মধ্যে ৬৩ হাজারই অবৈধ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ