শুক্রবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

নতুন বই বুড়ো বয়সেও যদি বের হয়, নতুন জনকের মতোই আনন্দময়  ---------সায়ীদ আবুবকর

 

এবারের বইমেলায় আপনার কয়টি বই বের হয়েছে?

উত্তর : এবারের একুশে বইমেলায় আমার একটিমাত্র বই বের হয়েছে। নাম আধুনিক বাংলা কবিতা। বের করেছে ইত্যাদি গ্রন্থপ্রকাশ। পাওয়া যাচ্ছে বইমেলার ১৯ নম্বর স্টলে।

বইয়ের বিষয়বস্তু কি?

উত্তর : এটি একটি কবিতাসংকলন। ত্রিশের দশক থেকে নব্বইয়ের দশক পর্যন্ত বাংলা ভাষার শ্রেষ্ঠ কবিদের বাছাই করা কবিতা নিয়ে সাজানো হয়েছে এ সংকলনটি। বাংলাদেশ, পশ্চিমবঙ্গ, আসাম ও ত্রিপুরার কবিদেরকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে এ সংকলনে। এটিই বাংলা ভাষার প্রথম সংকলন যেখানে আসাম ও ত্রিপুরার কবিদেরকে পাওয়া যাবে। এর আগে মনে করা হতো, বাঙালী কবি মানেই বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গের কবি। আসাম ও ত্রিপুরায়ও যে কত শক্তিশালী বাঙালী কবি আছেন, সংকলনটি পাঠ করলেই বুঝতে পারবেন পাঠকেরা।  

বই প্রকাশের অনুভূতি বলুন?

উত্তর : বই প্রকাশের অনুভূতি সবসময়ই একই রকম। নতুন বই বুড়ো বয়সেও যদি বের হয়, নতুন জনকের মতোই আনন্দময় আবেগের ব্যাপার হয় তা। আধুনিক বাংলা কবিতা অত্যন্ত রুচিশীল ও উন্নত শৈলী প্রাপ্ত হয়ে প্রকাশিত হওয়ায় আনন্দের মাত্রা আরো বেড়ে গেছে। বইটি হাতে নিলেই পাঠকমাত্রেরই ভালো লাগবে আশা করি। প্রকাশক ও প্রচ্ছদশিল্পীকে ধন্যবাদ এরকম একটি নান্দনিক বই উপহার দেওয়ার জন্য।

বইমেলা সম্পর্কে মূল্যায়ন?

উত্তর : বইমেলা আনন্দের মেলা, সন্দেহ নেই। কিন্তু বইমেলা এলেই এখন কেমন যেন আড়ষ্টতায় ঘিরে ফেলে আমাকে। সত্যি বলতে কী, বইমেলায় যেতেই যেন মন চায় না আর। এত বেশি বই বের হচ্ছে, বইপত্রের এত বেশি প্রচারপ্রপাগা-া পত্রপত্রিকায়, দেখলেই চোখ ধাঁধিয়ে যায়। বেশি বেশি বই বের হোক, তাতে কোনো সমস্যা নেই; কিন্তু বই নামের রুচিহীন জঞ্জালে যখন ভরে উঠতে দেখি বইমেলা, তখন আর ভালো লাগে না। যাদের কখনও কোথাও কোনো পত্রপত্রিকায় কবিতা ছাপা হলো না, কবিতার ছন্দ-অলঙ্কার সম্বন্ধে যাদের কোনো ধারণাও নেই, তারাও যখন কবি সেজে স্টলে স্টলে বসে থাকে অটোগ্রাফ দেওয়ার জন্য, তখন আমার কবিতা লেখা ছেড়ে দিতেই ইচ্ছে করে। কবি কি এত সস্তা জিনিস? আধুনিক বাংলা কবিতা সংকলনটি সম্পাদনা করতে গিয়ে সব দশকেরই প্রচুর কবিতা পড়তে হয়েছে আমাকে; এবং বিস্মিত হয়ে দেখেছি, মিডিয়ায় যারা বড় কবি সেজে বসে আছেন তাঁদেরই তেমন কোনো ভালো কবিতা নেই, কারো কারো তো কবিতাই হয় না একদম। বইমেলার নামে এ ধরনের বিশ্রী উৎপাদন বাজারজাত হতে থাকলে, কেবল কবিতার ক্ষেত্রে নয়, গল্প-উপন্যাস-প্রবন্ধের ক্ষেত্রেও, অমর একুশে বইমেলা তার ওজন ও গৌরব হারিয়ে ফেলবে বলে আমার ভয় হচ্ছে। তারপরও বইমেলাতে যাই কারণ কোথায় আর যাবোÑসেই গোলাপবাগানও নেই, সেই গোলাপও নেই, গোলাপের ঘ্রাণ নেওয়ার জন্যে এখন তো গোলাপপানি শুঁকা ছাড়া কোনো উপায় নেই!   * সাক্ষাৎকার গ্রহণ : রেদওয়ানুল হক

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ