বৃহস্পতিবার ০১ অক্টোবর ২০২০
Online Edition

পাকিস্তানকে সহজেই হারিয়ে সিরিজ দ. আফ্রিকার

স্পোর্টস ডেস্ক : অসাধারণ বোলিংয়ে পাকিস্তানকে আড়াইশর নিচে থামিয়ে প্রথম কাজটা করে দিয়েছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার পেসাররা। দারুণ তিনটি ফিফটিতে বাকি কাজটা সারলেন কুইন্টন ডি কক, ফাফ ডু প্লেসি আর ফন ডার ডুসেন। শেষ ওয়ানডেতে পাকিস্তানকে সহজেই ৭ উইকেটে হারিয়ে ৩-২ ব্যবধানে সিরিজ জিতে নিয়েছে প্রোটিয়ারা। ২-২ সমতা নিয়ে কেপটাউনে বুধবার আগে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ৫০ ওভারে পাকিস্তান ৮ উইকেটে করতে পেরেছিল ২৪০ রান। দক্ষিণ আফ্রিকা সেটি পেরিয়ে যায় দশ ওভার বাকি থাকতেই। ৫৮ বলে ৮৩ রানের ঝোড়ো ইনিংস খেলেন ডি কক। ডু প্লেসি ও ডুসেন দুজনই অপরাজিত ছিলেন ৫০ রানে। টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ৮ রানেই ইমাম-উল-হকের উইকেট হারিয়েছিল পাকিস্তান। এরপর প্রায় সবাই উইকেটে থিতু হলেও ইনিংস বড় করার ব্যাটসম্যানের অভাব ছিল প্রকট। ব্যতিক্রম ছিলেন শুধু ফখর জামান। ৭৩ বলে ১০ চারে ৭০ রানের দারুণ ইনিংস খেলেন বাঁহাতি ওপেনার। বাবর আজম (২৪), মোহাম্মদ হাফিজ (১৭), শোয়েব মালিকরা (৩১) ইনিংস বড় করতে ব্যর্থ হন। ১৭৪ রানেই ৬ উইকেট হারিয়ে ফেলা পাকিস্তান তবুও ২৪০ পর্যন্ত যেতে পারে মূলত ইমাদ ওয়াসিমের ৩১ বলে ৪৭ রানের ক্যামিও ইনিংসের সুবাদে। ৪ চার ও ২ ছক্কায় অপরাজিত ইনিংসটি সাজান ইমাদ।নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার আন্দিলে ফিকোয়াও ও ডুয়ান প্রিটোরিয়াস নিয়েছেন ২টি করে উইকেট। প্রিটোরিয়াস ১০ ওভারে দিয়েছেন ৬৪ রান, ফিকোয়াও ৯ ওভারে ৪২। ডেল স্টেইন ৫১ রানে, কাগিসো রাবাদা ৪৩ রানে ও উইয়ান মুলডার ২০ রানে নিয়েছেন একটি করে উইকেট। লক্ষ্য তাড়ায় ৩৯ রানের উদ্বোধনী জুটিতে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ভালো সূচনা এনে দেন হাশিম আমলা ও ডি কক। আমলা ১৪ রান করে ফিরলে ভাঙে এ জুটি। এরপর দ্বিতীয় উইকেটে রিজা হেনড্রিকসের (৩৪) সঙ্গে ৬১ ও তৃতীয় উইকেটে ডু প্লেসির সঙ্গে ৪৬ রানের আরো দুটি ভালো জুটি গড়েন ডি কক। বাঁহাতি ব্যাটসম্যান আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ে সেঞ্চুরির দিকেই এগোচ্ছিলেন। কিন্তু সেঞ্চুরি থেকে ১৭ রান দূরে থাকতে ডি কককে থামান উসমান খান। ৫৮ বলে ১১ চার ও ৩ ছক্কায় ৮৩ রানের ইনিংসটি সাজান দক্ষিণ আফ্রিকার উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান।ডি কক ফেরার পর চতুর্থ উইকেটে অবিচ্ছিন্ন ৯৫ রানের জুটিতে বাকি কাজটা সারেন ডু প্লেসি ও ডুসেন। অধিনায়ক ডু প্লেসি ৭২ বলে ৩ চারে ৫০ ও ডুসেন ৬১ বলে ৩ ছক্কায় ৫০ রানে অপরাজিত ছিলেন। ম্যাচসেরা হয়েছেন ডি কক, আর সিরিজসেরা ইমাম-উল-হক।

শুক্রবার একই মাঠে শুরু হবে দুই দলের তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ। ৩ ও ৬ ফেব্রুয়ারি পরের দুই ম্যাচ হবে জোহানেসবার্গ ও সেঞ্চুরিয়নে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ