শনিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

পশ্চিমবঙ্গে অমিত শাহ’র সভা শেষে বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষ

অনুপ্রবেশকারীরাই মমতার ভোট ব্যাংক

৩০ জানুয়ারি, এনডিটিভি/হিন্দুস্তান টাইমস : গত মঙ্গলবার ভারতের পশ্চিমবঙ্গের পশ্চিম মেদিনীপুরের কাঁথিতে জনসভা ছিল বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ'র। সেই সভা শেষ হওয়ার পর তুমুল সংঘর্ষ বেধে যায় বিজেপি আর তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মীদের মধ্যে। পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে ক্ষমতাসীনদের অভিযোগ, বিজেপি তাদের দলীয় কার্যালয়ে ভাংচুর চালিয়েছে। অন্যদিকে অমিত শাহ'র সভাতে আসা বিজেপি কর্মীদের কয়েকটি বাইক ও বাস তৃণমূল কর্মীরা ভাংচুর করে জ্বালিয়ে দেয় বলে পাল্টা অভিযোগ করেছে বিজেপি। এনডিটিভি, আনন্দবাজার।

সন্ধ্যার পর থেকে রণক্ষেত্রে রূপ নেয় মেদিনিপুরের কাঁথি বাইপাস ও সংলগ্ন এলাকা। রাত পর্যন্ত যত্রতত্র ভাঙচুর করা বাস, পোড়া বাইক পড়ে থাকতে দেখা যায়। নামানো হয় র‌্যাপিড অ্যাকশন ফোর্স- র‌্যাফ ও কমব্যাট ফোর্স।

তৃণমূলের জেলা সভাপতি শিশির অধিকারী জানিয়েছেন, আজ বুধবার হামলার গ্রতিবাদে কাঁথিতে মিছিল হবে। ৩ ফেব্রুয়ারি শাহের সভার মাঠেই পাল্টা সভা করবে তৃণমূল। এর আগে সভামঞ্চে উস্কানিমূলক বক্তব্য দেন বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ। তিনি বলেন, ‘ওরা যত বাধা দেবে, বিজেপি কর্মীরা তত উজ্জীবিত হবে।’

দিল্লিতে বিজেপির সদর দফতরে এ ঘটনা নিয়ে সাংবাদিক সম্মেলন করে নিন্দা করা হয়। ঘটনার ব্যাপারে ব্যাখ্যা চেয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতাকে ফোন করেন ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং। তৃণমূল নেতারা বলেন, মুখ্যমন্ত্রী রাজনাথকে জানিয়েছেন আক্রমণকারীরা শিশু-বৃদ্ধ-মহিলা-গ্রতিবন্ধী কাউকে রেহাই দেয়নি।

এদিকে কয়েকদিনের ব্যবধানে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ এসে আবারও তৃণমূল কংগ্রেসকে আক্রমণ করলেন বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ। কাঁথির জনসভায় তিনি অভিযোগ করেন, বাংলাদেশি অনুগ্রবেশকারীদের ভোটই নির্বাচনে জেতেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। তিনি বলেন, ‘রাজ্যে কারখানা বন্ধ হয়ে যাচ্ছে কিন্তু বোমের কারখানা খোলা হচ্ছে। বিজেপিকে সুযোগ দিন মোদীর নেতৃত্বে সোনার বাংলা নির্মাণ হবে।’ অমিত শাহ বলেন, ‘বাংলাদেশ থেকে আসা অনুগ্রবেশকারীরিই তৃণমূলের ভোট ব্যাঙ্ক। অনুগ্রবেশকারীদের ছাড়া বাংলায় বিজেপি ছাড়া আর কেউ সরকার গড়তে পারবে না। একবার সরকার পরিবর্তন করুন। দুর্নীতির টাকা ফিরিয়ে দেব।’

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় গ্রকল্পের নাম বদলে দেওয়ার অভিযোগ আনেন বিজেপি সভাপতি। বলেন, ‘বেটি বাঁচাও বেটি পড়াও গ্রকল্পের নাম বদলে হচ্ছে কন্যাশ্রী, গ্রধানমন্ত্রী সড়ক যোজনার নামও বদলে দেওয়া হয়েছে। ২ টাকা কিলো দরে চাল মোদী সরকার দেয়। আর নাম হয় মুখ্যমন্ত্রীর দলের। নরেন্দ্র মোদীর সরকার বাংলাকে উন্নয়নের কাজে ৮ লাখ কোটি টাকা দিয়েছে। সেই টাকা দিয়ে কী হয়েছে কেউ জানে না। ’

নাগরিকত্ব সংশোধন বিলে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী সমর্থন করবেন কিনা সভা থেকে তা জানতে চান অমিত শাহ। তিনি বলেন বাংলায় অনুগ্রবেশকারীদের জন্য সমস্ত ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়। কিন্তু উদ্বাস্তুদের জন্য কোনও ব্যবস্থা করা হয় না।

 কংগ্রেসকে আক্রমণ

জনসভা থেকে কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীকেও তীব্র আক্রমণ করেন অমিত। বিজেপি সভাপতি বলেন, ‘১০ বছরের সরকার ২ জন জি ( রাহুল এবং সোনিয়া গান্ধী)র উপস্থিতিতে ১২ হাজার কোটি টাকার কেলেঙ্কারি হয়েছে। এখন নতুন জি (গ্রিয়াঙ্কা গান্ধী ) এসেছেন।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ