শনিবার ০৪ জুলাই ২০২০
Online Edition

বছর ঘুরলেও কিল্লারপুল খালের কোন উন্নতি নেই

নারায়ণগঞ্জ সংবাদদাতা : বছর গিয়ে নতুন আরেকটি বছরের শুরু। গত বছরের অনেক কিছুই ফেলে এসেছে, হয়েছে কত না পরিবর্তন। কিন্তু নগরীর ঈশা খাঁ রোডের কিল্লারপুল খালের বেহাল অবস্থার কোন পরিবর্তন নেই। এলাকাবাসীর নিত্যদিনের ভোগান্তিরও কোন শেষ নেই। সিটি কর্পোরেশনের ভেতর এত বড় আবর্জনার স্তুপ যেন দেখেও না দেখার ভান করে চলছে সবাই। ময়লার কারণে খালটি প্রায় মরতে বসেছে। ময়লা আবর্জনা আর পলিথিনে ভরাট হয়ে খালের গতিপথের প্রায় পুরোটাই বন্ধ। বিশাল খালটি এখন পরিণত হয়েছে সরু ময়লার নালায়। যা দিয়ে চলছে পানি প্রবাহ। ময়লার গন্ধে নাকে রুমাল দিয়ে দিনরাত পথ চলতে হচ্ছে এলাকাবাসীদের। বৃহস্পতিবার (১৭ জানুয়ারি) দেখা যায়, ময়লা, পলিথিন ও বালুতে প্রায় বন্ধ খালের মুখ। পানি প্রবাহ কমে যাওয়ায় জন্মাছে বড় বড় ঘাস ও কচুগাছ। খালের পশ্চিম দিকের মুখে কিছুটা পানি প্রবাহ থাকলেও পূর্ব দিকে প্রায় পুরোটাই বন্ধ। বর্ষাকালে খালের পানি প্রবাহ ঠিকমত সচল না থাকায় জলাবদ্ধতায় কষ্ট করেন খালের পার্শ্ববর্তী এলাকার বাসিন্দারা। প্রায় বছরখানেক আগে জাইকার সহায়তায় খালটি পুন:উদ্ধার, উন্নয়ন ও সংস্কার কাজ হাতে নেয়া হলেও তার কিছুই হয়নি। ১১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর জমশের আলী ঝন্টুর সূত্রে জানা যায়, জাইকার সহায়তায় পুরো ডিএনডি উন্নয়ন কার্যক্রমের আওতায় সংস্কার করা হওয়ার কথা খালটি। কিন্তু গত বছর খালটি ঠিক যেমন অবস্থায় ছিল আজও একই অবস্থায় রয়ে গেছে। উক্ত এলাকার বাসিন্দা হাফেজ আলী আক্ষেপ করে বলেন, ‘ছোটবেলায় এই খালটিতে কত সাঁতার কেটেছি। কত বড় খাল আজ কি হয়ে গেছে। এখন খালটির দিকে তাকালেও কষ্ট লাগে। কি ছিলো আর এখন কি!’ খাল সংস্কার করবে শুনছি অনেকদিন যাবত। কই কিছুই তো হচ্ছে না। সামনেই বর্ষা, এখন যদি খালের কাজ না করে তাহলে কবে করবে?’ মুদি দোকানদার সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘খালের পাশ দিয়ে প্রতিদিনই ময়লা আবর্জনা ফেলে যার দুর্গন্ধে দোকানে ঠিকমতো বসা যায় না। গত বছরের শুরুর দিকে শুনেছিলাম খাল সংস্কার করা হবে। কিন্তু এখনো কিছু করা হয়নি। এ বছরও হয়তো এর কিছুই হবে না।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ