সোমবার ১৭ জানুয়ারি ২০২২
Online Edition

মার্চের প্রথম সপ্তাহে ঢাকায় ফুটবল একাডেমি চালু --সালাহউদ্দিন

স্পোর্টস রিপোর্টার: দেশের ফুটবলের উন্নয়নে একাডেমীর প্রয়োজনীয়তা ব্যাপক। এই উপলব্দি থেকেই এবার ঢাকায় বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) উদ্যোগে একাডেমীর কার্যক্রম শুরু হতে যাচ্ছে। রাজধানীর বাড্ডার বেরাইদে ফর্টিস গ্রুপের কাছ থেকে ইতিমধ্যেই একাডেমি তৈরির জন্য মাঠ ও আবাসিক ভবন পেয়েছে বাফুফে। সেখানে মার্চের প্রথম সপ্তাহে আবাসিক ক্যাম্প শুরুর ঘোষণা দিয়েছেন কাজী মো. সালাহউদ্দিন। গতকাল রোববার বাফুফে নতুন ডেভেলপমেন্ট কমিটির প্রথম সভা শেষে বাফুফে সভাপতি, ডেভেলপমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান এ ঘোষণা দিয়েছেন।দীর্ঘদিন ডেভেলপমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেছেন ফেডারেশনের সহসভাপতি বাদল রায়। বছরখানেক আগে তিনি অসুস্থ হওয়ার পর কমিটির কার্যক্রমও স্থবির হয়ে পড়েছিল। 

এর মধ্যে গত বছর জুনে বাফুফে হঠাৎ করেই বিলুপ্ত করেছিল স্ট্যান্ডিং কমিটিগুলো। শুধু কমিটির চেয়ারম্যানরা বহাল ছিলেন। ১০ নভেম্বর বাফুফের নির্বাহী কমিটির সভায় সরিয়ে দেয়া হয় ডেভেলপমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান বাদল রায়কে। বাফুফে সভাপতি দায়িত্ব নেন কমিটির চেয়ারম্যানের।কমিটি গঠনের দু‘মাস পর গতকালই প্রথম সভায় বসেছিল বাফুফে ভবনে। সভায় মূলত একাডেমি শুরু নিয়েই বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। সভা শেষে বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন নিজেই সভাশেষে মিডিয়াকে ব্রিফ করেন।তিনি বলেন,প্রথম সভায় ইয়ুথ ডেভেলপমেন্ট নিয়ে আলোচনা হয়েছে।আর্থিক কারনে সিলেট বিকেএসপিতে একাডেমী চালু করা হলেও নিয়মিত করা যায়নি। অর্থ সংকটেই মূলত বন্ধ করতে হয়েছে। এবার  আশা করছি সেই সমস্যা থাকছেনা।তার ভাষ্য অনুযায়ি‘ফর্টিস গ্রুপের মাঠটি আমরা নিয়েছি। তাদের একটি ভালো বিল্ডিংও আছে। ইতিমধ্যে সেখানে সংস্কার কাজও শুরু হয়েছে। আশা করি ২৫/৩০ দিনের মধ্যে শেষ হবে। কিছু আসবাবপত্রও লাগবে। সব ঠিকঠাক করে মার্চের প্রথম সপ্তাহে ওখানে আমরা ফুটবলার উঠিয়ে আবাসিক ক্যাম্প শুরু করতে পারবো। ত্রিশ দিন পর আমরা আবার সভা করবো’। কাদের নিয়ে একডেমি শুরু হচ্ছে?সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে বললেন,‘আমাদের একটা বয়সভিত্তিক দল আছে। তাদের মধ্যে যারা সেরা তাদের একাডেমিতে রাখা হবে। বাইরে থেকেও প্রতিভা খুঁজে ক্যাম্পে ওঠানো হবে। খেলোয়াড়দের কোনো সংখ্যা নির্ধারণ করছি না। যত কোয়ালিটি পাওয়া যাবে ততো খেলোয়াড়ই একাডেমিতে তোলা হবে।’২৫ ফেব্রুয়ারির মধ্যে খেলোয়াড় বছাই চূড়ান্ত হবে বলেও নিশ্চয়তা দিয়েছেন কাজী মো. সালাউদ্দিন। 

তিনি বলেছেন, ১০ দিন পর একাডেমির জায়গায় সংবাদ সম্মেলন করে বিস্তারিত জানাবেন। দেশি-বিদেশির মিশেলে একটি কোচিং স্টাফ থাকবে যাদের দিয়ে পরিচালনা হবে ফুটবল একাডেমি।

নতুন এই একাডেমির অর্থ কোত্থেকে আসবে? আবার কিছুদিন পর বন্ধ হয়ে যাবে নাতো? এ প্রশ্নও উঠেছিল। বাফুফে সভাপতি বললেন, একাডেমি শুরুর জন্য প্রাথমিকভাবে আড়াই কোটি টাকার মতো লাগবে উল্লেখ করে তার ব্যবস্থার দায়িত্ব নিয়েছেন বলেও জানিয়েছেন সভাপতি। উল্লেখ্য সম্প্রতি জর্ডান ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সঙ্গে একাডেমি নিয়ে দীর্ঘ আলোচনা হয়েছে বাফুফে সভাপতির।সংবাদ সম্মেলনে বাফুফে সভাপতি জানিয়েছেন, দুই দেশের ফুটবল ফেডারেশনের মধ্যে একটি সহযোগিতা চুক্তি সাক্ষর হবে। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ