শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

গোটা জাতি ক্ষমতাসীন আ’লীগকে ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেছে

স্টাফ রিপোর্টার : গোটা জাতি ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেছে অভিযোগ করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জনগণ ভোট দিয়ে সরকারকে নির্বাচিত করেনি, বরং গোটা জাতি তাদের প্রত্যাখ্যান করেছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলন। মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করেছি। পার্লামেন্ট গঠন প্রত্যাখ্যান করেছি। সরকার গঠন পুরোপুরিভাবে প্রত্যাখ্যান করেছি। এজন্য এটা কখনোই জনগণ অ্যাপ্রুভ করে নাই। জনগণ ভোট দিয়ে এদেরকে নির্বাচিত করে নাই। তিনি বলেন, বিএনপি গণতান্ত্রিক দল। জনগণের ভোটাধিকার রক্ষায় আমরা গণতান্ত্রিক কর্মসূচি চালিয়ে যাবো।  সোমবার শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নতুন মন্ত্রিসভার শপথ গ্রহণের একদিন পর বিএনপির পক্ষ থেকে এই প্রতিক্রিয়া আসলো।
মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, যে নির্বাচনের ফলাফল আমরা প্রত্যাখ্যান করেছি, যে নির্বাচনের সঙ্গে জনগণের কোনো সম্পর্ক নেই। জনগণ পুরোপুরিভাবে এটাকে বর্জন করেছে বলা যেতে পারে, জনগণ এই নির্বাচনের ফলাফল কখনো মেনে নেয়নি। সেই নির্বাচনের ফলাফলের ভিত্তিতে সংসদ গঠন বা সরকার গঠন-এটা নিয়ে মন্তব্য করা তো হাস্যকর ছাড়া কিছু নয়। আমরা নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করেছি, সংসদ গঠন প্রত্যাখ্যান করেছি এবং সরকার গঠন পুরোপুরিভাবে প্রত্যাখ্যান করেছি। আমরা বিশ্বাস করি এই সরকারের (নতুন মন্ত্রিসভার) কোনো অধিকার নেই বাংলাদেশের ১৬ কোটি মানুষের ওপরে তাদের রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব পালন করা। এজন্য যে, এটা কখনো জনগণ অ্যাপ্রুভ করে নাই, জনগণ তাদের ভোট দিয়ে নির্বাচিত করে নাই।
২০১৪ সালেও একই প্রেক্ষাপট ছিলো, তারপরেও আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করেছিলো- এরকম প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, সেটা আলাদা ব্যাপার। আপনি দখলদারি। পাকিস্তান থাকে নাই, পাকিস্তান থাকছে তো দেশ-বিদেশ তাকিয়ে দেখেন? যে সরকার জোর করে ক্ষমতা দখলে আছে জনগণের সাথে তাদের কোনো সম্পর্ক নেই। সরকার তো থাকেই একটা কিছু না কিছু থাকতে হবে।
বিএনপি মহাসচিব বলেন, তার সঙ্গে এটাকে মিলিয়ে লাভ নেই। আপনি এটা চিন্তা করেন না কেনো গোটা জাতি ডিপরাইভ হয়ে গেছে। একবারও ভাবেন না যে, গোটা বাংলাদেশ জাতিটাকে এরা(ক্ষমতাসীনরা) প্রতারণা করলো। একবারও মনে আপনাদের আবেগ আসে না। যে আমরা ১৯৭১ সালে স্বাধীনতার যুদ্ধ করেছি যে চেতনার ভিত্তিতে, সেই চেতনাকে আপনি ধুলিসাত করে দিয়ে মাত্র কিছু লোকের দখলদারিত্বের জন্যে আপনি আজকে সরকার গঠন করেছেন। যাদের দিয়ে দেশ চালাবেন। আবার রেফারেন্স টানবে?
বিএনপি এখন কী করবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিএনপি এখন যা করার তাই করবে। বিএনপি জনগণের দল লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি। গণতান্ত্রিক আন্দোলন করবে গণতান্ত্রিক সরকারের জন্য, জনগণের সরকারের জন্য।
একাদশ সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের অভাবনীয় বিজয়ের পর সোমবার বঙ্গভবনে চতুর্থবারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ৪৭ সদস্যের মন্ত্রিসভা শপথ গ্রহণ করান রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ। শেখ হাসিনার সরকারের ২৪ জন মন্ত্রী, ১৯ জন প্রতিমন্ত্রী ও ৩ জন উপমন্ত্রী শপথ নেন। একাদশ নির্বাচনে বিএনপিকে নিয়ে গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট মাত্র ৭টি আসনে বিজয়ী হয়েছে। এরমধ্যে বিএনপি ৫টি ও গণফোরাম ২টি আসন পেয়েছে।
এর আগে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সিনিয়র নেতাদের সাথে বৈঠক করেন। বৈঠকে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, নজরুল ইসলাম খান, চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য তৈমুর আলম খন্দকার, জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, কেন্দ্রীয় নেতা সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, কায়সার কামাল, এবিএম মোশাররফ হোসেন, আবদুস সালাম আজাদ, ইসমাইল হোসেন বেঙ্গল, ফাহিমা নাসরিন মুন্নী, রুমিন ফারহানা, ডা. সাখাওয়াত হোসেন সায়ান্থ, হাফিজ ইব্রাহিম, শাহ নুরুল কবির শাহিন, রাশেদা বেগম হীরা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ