বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের জেএসসি পরীক্ষায় পাশের হার ৮১ দশমিক ৬৩ শতাংশ

দিনাজপুর অফিস : দিনাজপুর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডের অধীনে অনুষ্ঠিত ২০১৮ সালের জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে। গড় পাশের হার ৮১ দশমিক ৬৩ শতাংশ। দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. তোফাজ্জুর রহমান তার কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে আনুষ্ঠানিকভাবে এ ফলাফল ঘোষণা করেন। গতবারের চেয়ে এবারে পাশের হার ও জিপিএ-৫ প্রাপ্ত ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা উভয়ই কমেছে। গতবার ছিল পাশের হার ছিল ৮৮ দশমিক ৩৮ শতাংশ ও জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থী ছিল ২০,০৬২ জন। দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের অধীনে অনুষ্ঠিত ২০১৮ সালের জেএসসি পরীক্ষায় ২ লাখ ৪৮ হাজার ৩৮৯ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২ লাখ ২ হাজার ৭৫৬ জন উত্তীর্ণ হয়েছে। এর মধ্যে ছাত্র ৯৫ হাজার ৯৩৩ জন ও ছাত্রী ১ লাখ ৬ হাজার ৮২৩ জন। গড় পাশের হার ৮১ দশমিক ৬৩ শতাংশ। ফলাফলে এবারেও ছাত্রদের তুলনায় ছাত্রীরাও সামান এগিয়ে রয়েছে। ছাত্রদের পাশের হার ৮০.২৬ শতাংশ ও ছাত্রীদের পাশের হার ৮২.৯০ শতাংশ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬ হাজার ৩০৩ জন। জিপিএ-৫ প্রাপ্তদের মধ্যে ছাত্র ৩০৩৪ জন ও ছাত্রী ৩২৫৯ জন। গতবার জিপিএ-৫ পেয়েছিল ২০ হাজার ৬২ জন। ফলাফলে গতবারের চেয়ে এবারে শতভাগ পাশকৃত বিদ্যালয়ের সংখ্যা কমেছে। এবারে শতভাগ পাশকৃত বিদ্যালয়ের সংখ্যা ৩০২টি যা গতবারে ছিল ৫৮০টি। অপরদিকে কেউই পাশ করেনি এমন (শূন্য ফলাফলপ্রাপ্ত) বিদ্যালয়ের সংখ্যা ১১টি যা গতবারে ছিল ১৩টি। এবারে পরীক্ষা কেন্দ্রের সংখ্যা ২৮৪টি ও অংশগ্রহণকারী বিদ্যালয়ের সংখ্যা ৩২৫২টি।
ফলাফল প্রকাশ করে দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. তোফাজ্জুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, বিগত বছরের তুলনায় এবার ফলাফল তেমন সন্তোষজনক নয়। কারণ ইংরেজীতে প্রশ্নপত্র কঠিন হওয়ার কারণে প্রায় ১১ হাজার শিক্ষার্থী অকৃতকার্য হয়েছে। এছাড়া এবারে পাশের হার ও জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিার্থীর সংখ্যা দু’টিই সামান্য কমেছে। তিনি বলেন, কেউ পাশ করেনি এমন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ