বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

সুনামগঞ্জের শাল্লায় স্বাধীনতার ৪৭ বছর পর চার চাকার জীপ গাড়ি!

দিরাই (সুনামগঞ্জ) সংবাদদাতা: হাওরের জনপদের অবহেলিত অঞ্চল  সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলা। স্বাধীনতার ৪৭ বছর পর উন্নয়নের একটু ছোঁয়া পেয়েছে। মাত্র ৭ দিনের চেষ্টায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার চার চাকার জীপ গাড়িটি পার্শবর্তী দিরাই উপজেলা সদর থেকে কাঁচা পাকা সড়ক দিয়ে প্রথম প্রবেশ করে শাল্লা সদরে। গাড়িটি  শাল্লা সদরের দাড়াইন নদীর সেতুর উপর আসলে চারপাশ থেকে উৎসুক জনতার আনন্দ বার্তায় ভরে উঠে এলাকা। সাবাস সাবাস ‘কানেক্টিং শাল্লা’ ধ্বনি উচ্চারিত হয় চারপাশে।
 জানা যায়, গত ১৪ ডিসেম্বর “কানেক্টিং শাল্লা”র ব্যানারে সমাজের সর্বস্তরের লোকজন নিয়ে শাল্লা উপজেলা সদরের দাড়াইন নদীর উপর নির্মিত সেতুর উভয় পাশের সংযোগ সড়কে স্বেচ্ছায় মাটির কাজ শুরু করেন নবাগত ইউএনও আল-মুক্তাদির হোসেন। শাল্লায় যোগদানের পর যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন জনপদ, প্রত্যন্ত এলাকা শাল্লা উপজেলা সদরের রাস্তাটি ব্যবহার উপযোগী করার চেষ্টা করেন।। স্বল্প সময়ের ভিতরে সফল ও হয়েছেন তিনি। সপ্তাহব্যাপী স্বেচ্ছায় মাটির কাজ করে এলাকাবাসী। শাল্লা উপজেলা সদরের সেতুর উভয় পাশের মাটির কাজ শেষ হলেও  জয়পুর নামক স্থানে ভাঙ্গাটি থেকে যায়। তবুও পিছুপা হননি শাল্লা উপজেলার ইউএনও। গত ১৯ ডিসেম্বরের বৈরী আবহাওয়া উপেক্ষা করে রাত জেগে শ্রমিকদের সাথে কাজ করে ভাঙ্গা স্থানটি  সংস্কার করেন।  ২২ ডিসেম্বর শনিবার চার-চাক্কার গাড়ি চড়ে উপজেলা সদরে পৌঁছেন ইউএনও আল-মুক্তাদির হোসেন। ফলে তৈরী হয় নতুন যোগাযোগের ক্ষেত্র।শনিবার ১১টায় দিরাই উপজেলার মিলনবাজার নামক স্থান হতে ইউএনও আল-মুক্তাদির হোসেন তার সরকারি জীপ গাড়িটি নিয়ে শাল্লা উপজেলা সদরে আসেন। এসময় হাজারো উৎসুক জনতা ভীড় জমায়। গাড়িটি যখন শাল্লা  সেতুতে আসে ঠিক তখনি চারপাশ থেকে উৎসুক জনতার আনন্দবার্তায় ভরে উঠে এলাকা এবং সাবাস সাবাস ‘কানেক্টিং শাল্লা’ ধ্বনি উচ্চারিত হয় চারপাশে।
এসময় ইউএনও আল-মুক্তাদির হোসেন উপস্থিত সকলের উদ্দেশ্যে বলেন,  জনগণের যথেষ্ট সাড়া পেয়েছিলাম বলে অতি সহজে বিশাল কাজটি করতে পেরেছি। আমি মনে করি এখন থেকে শাল্লার সাধারণ মানুষ কিছুটা স্বাচ্ছন্দে জেলা সদরে যাতায়াত করতে পারবে। জরুরি রোগী নিয়ে শহরে যেতে পারবে। আরো কিছুদিন কাজ করে রাস্তাটিকে অধিক ব্যবহারযোগ্য করারও পরিকল্পনা রয়েছে। আপনারা সহযোগিতা করলে আমি আপনাদেরকে উন্নয়ন উপহার দেবো। এটা আমার দৃঢ় প্রত্যয়। শাল্লা সেতু হতে উৎসুক জনতা ইউএনও আল-মুক্তাদিরের সরকারি গাড়িটি আনন্দ মিছিল সহকারে উপজেলা সদরে নিয়ে আসে। পরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পর্যন্ত চালিয়ে উপজেলা পরিষদ চত্বরে থামানো হয়। এসময় ‘কানেক্টিং শাল্লা’র ব্যানারে এক পথ  সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় সাংবাদিক পীযুষ শেখর দাসের পরিচালনায় এতে বক্তব্য রাখেন ইউএনও আল-মুক্তাদির হোসেন, বাহাড়া ইউপি চেয়ারম্যান বিধান চন্দ্র চৌধুরী, উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোহাম্মদ মামুনুর রহমান, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ফেরদৌস আলম, উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা মোঃ আলমগীর কবির খান, উপজেলা হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা উত্তম কুমার মন্ডল প্রমূখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ