বৃহস্পতিবার ০১ অক্টোবর ২০২০
Online Edition

ইভিএম এ ৪৫.৮২ শতাংশ ভোট পড়েছে

স্টাফ রিপোর্টার : সদ্য সমাপ্ত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৮০ শতাংশ ভোট পড়ার দাবি করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা। কিন্তু ইভিএম কেন্দ্রগুলোতে গড় ভোট পড়েছে ৪৫ দশকি ৮২ শতাংশ। এবার প্রথমবারের মতো ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট নেয়া হয়। দেশের ২৯৯টি সংসদীয় আসনের মধ্যে ৬টিতে ইভিএম ব্যবহার করে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। ইভিএম আসনগুলোতে গড় ভোট পড়েছে ৪৫ দশমিক ৮২ শতাংশ। এসব আসনের মোট ২১ লাখ ২৪ হাজার ৫৫৪টি ভোটের মধ্যে মোট ভোট পড়েছে ৯ লাখ ৭৩ হাজার ৪৫৫টি। গতানুগতিক পদ্ধতিতে ভোটগ্রহণের হার এখনও কমিশন প্রকাশ না করলেও তা ইভিএম কেন্দ্রের তুলনায় অনেক কম হবে বলে ইসি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।
ইভিএমে দ্রুত ফলাফল প্রকাশের কথা থাকলেও বাস্তবে সেটা দেখা যায়নি। নির্বাচন কমিশন (ইসি) গত রোববার প্রথমেই যে আসনের পূর্ণাঙ্গ ফলাফল ঘোষণা করে সেটিতে ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে ভোটগ্রহণ হয়। এটি ছিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আসন গোপালগঞ্জ-৩। রিটার্নিং কর্মকর্তা সন্ধ্যা ৭টা ২৭ মিনিটে এ আসনের চূড়ান্ত ফলাফল নির্বাচন কমিশনে পাঠান। কমিশন তা ৮টার পরপরই ঘোষণা দেন। এদিকে ইসি প্রথম রাত ৯টায় একটি ইভিএম আসনের ফল ঘোষণা করেন। এটি ছিল রংপুর-৩ আসন। পূর্ণাঙ্গ ফল ছাড়াও আংশিক ফলও ইসি প্রথম প্রকাশ করে ম্যানুয়ালি ভোটগ্রহণর কোনও একটি কেন্দ্র থেকে।
ইভিএম আসনে ফল প্রকাশে বিলম্বের কারণ ব্যাখ্যা করে ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ প্রত্যন্ত অঞ্চলে কেন্দ্র থাকার কথা বলেন। ভবিষ্যতে আরও দ্রুত সময়ের মধ্যে ফল প্রকাশ করার আশা প্রকাশ করেন।
প্রসঙ্গত যে ছয়টি আসনে ইভিএম ব্যবহৃত হয়েছে তার সবগুলোই বড় শহরে অবস্থিত। এরমধ্যে ৫টিই সিটি করপোরেশনের আওতাধীন। বাকি একটির অবস্থান সাতক্ষীরা শহরে।

ইভিএম আসনের ফলাফল
রংপুর-৩ আসনে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ জয় পেয়েছেন। লাঙল প্রতীকে তিনি ভোট পেয়েছেন ১ লাখ ৪২ হাজার ৯২৬। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির ধানের শীষ প্রতীক পেয়েছে ৫৩ হাজার ৮৯। এ আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৪ লাখ ৪১ হাজার ৬৭১টি। এরমধ্যে ভোট দিয়েছেন ২ লাখ ৩১ হাজার ৫৪ জন। গড় ভোট ৫২ দশমিক ৩১ শতাংশ।
ঢাকা-৬ আসনে জাতীয় পার্টির কাজী ফিরোজ রশীদ জয় পেয়েছেন। তিনি এ আসনের মহাজোট প্রাথী লাঙল প্রতীক নিয়ে ভোট পেয়েছেন ৯৩ হাজার ৫৫২টি। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হলেন ধানের শীষ প্রতীকের সুব্রত চৌধুরী, তিনি পেয়েছেন ২৩ হাজার ৬৯০টি ভোট। আসটিতে মোট ভোটার সংখ্যা ২ লাখ ৬৯ হাজার ৩১৫ জন। ভোট পড়েছে ১ লাখ ২১ হাজার ৮৮৯টি। গড় ভোট ৪৫ দশমিক ২৫ শতাংশ।
চট্টগ্রাম-৯ আসনে আওয়ামী লীগের মহিবুল হাসান চৌধুরী জয় পেয়েছেন। নৌকা প্রতীক নিয়ে তিনি পেয়েছেন ২ লাখ ২৩ হাজার ৬১৪টি ভোট। এ আসনে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হলেন ধানের শীষ প্রতীকের প্রাথী শাহাদাত হোসেন পেয়েছেন ১৭ হাজার ৬৪২টি ভোট। এ আসনের মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৯০ হাজার ৪৩১ জন। ভোট পড়েছে এক লাখ ২৬ হাজার ৬৩৬। গড় ভোট পড়েছে ৩২ দশমিক ৪৩ শতাংশ।
সাতক্ষীরা-৩ আসনে মীর মোস্তাক আহমেদ রবি জয় পেয়েছেন। আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীক নিয়ে তিনি পেয়েছেন ১ লাখ ৫৫ হাজার ৬১১টি ভোট। এ আসনে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী মোহাম্মদ আবদুল খালেক পেয়েছেন ২৭ হাজার ৭১১টি ভোট। এ আসনের মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৫৬ হাজার ২৪৬ জন। ভোট পড়েছে ১ লাখ ৮৮ হাজার ১৭২। এ আসনে গড় ভোট পড়েছে ৫২ দশমিক ৮২ শতাংশ।
খুলনা-২ আওয়ামী লীগের শেখ সালাহ উদ্দিন জয় পেয়েছেন। নৌকা প্রতীক নিয়ে তিনি পেয়েছেন ১ লাখ ১২ হাজার ১০০টি। এ আসনে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু পেয়েছেন ২৭ হাজার ৩৭৯টি ভোট। এ আসনের মোট ভোটার সংখ্যা ২ লাখ ৯৪ হাজার ১১৬ জন। ভোট দিয়েছে এক লাখ ৪৫ হাজার ২১০। গড় ভোট পড়েছে ৪৯ দশমিক ৩৭ শতাংশ।
ঢাকা-১৩ আওয়ামী লীগের মো. সাদেক খান জয় পেয়েছেন। নৌকা প্রতীক নিয়ে তিনি পেয়েছেন ১ লাখ ৩ হাজার ১৬৩টি ভোট। এ আসনে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী আবদুস সালাম পেয়েছেন ৪৭ হাজার ২৩২টি ভোট। এ আসনের মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৭২ হাজার ৭৭৫ জন। ভোট পড়েছে ১ লাখ ৬০ হাজার ৪৯৪ জন। গড় ভোট পড়েছে ৪৩ দশমিক শূন্য ৫ শতাংশ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ