বৃহস্পতিবার ০১ অক্টোবর ২০২০
Online Edition

শেখ হাসিনাকে ভারত ও চীনের অভিনন্দন

সংগ্রাম ডেস্ক : ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিন পিং ও প্রধানমন্ত্রী লি কেকিয়াং একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ বিজয়ের জন্য বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাকে আন্তরিক অভিনন্দন জানিয়েছেন।
ভারতের প্রধানমন্ত্রী গতকাল সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে টেলিফোন করে গত রোববার অনুষ্ঠিত নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভের জন্য তাঁকে (শেখ হাসিনা) এবং তাঁর দল ও বাংলাদেশের জনগণকে অভিনন্দন জানান। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম একথা বলেন।
মোদি বলেন, ‘আওয়ামী লীগের এই বিজয় হচ্ছে আপনার দক্ষ নেতৃত্বে বাংলাদেশের অর্জিত অসামান্য উন্নয়নের প্রতিফলন।’
প্রেস সচিব বলেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের উন্নয়ন প্রচেষ্টায় অতীতের মতো তাঁর দেশের অব্যাহত সমর্থনের আশ্বাস দেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নরেন্দ্র মোদি ও তাঁর দেশের জনগণকে শুভেচ্ছা জানান।
শেখ হাসিনা টেলিফোন করার জন্য ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, গত রোববারের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তাঁর দলের বিশাল বিজয়ের পর তিনিই প্রথম রাষ্ট্র কিংবা সরকার প্রধান যিনি তাঁকে টেলিফোন করেছেন।
চীনের অভিনন্দন
চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিন পিং ও প্রধানমন্ত্রী লি কেকিয়াং একাদশ সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নিরঙ্কুশ বিজয়ের জন্যে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও দলটির সভাপতি শেখ হাসিনাকে আন্তরিক অভিনন্দন জানিয়েছেন।
প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম জানান, ঢাকায় চীনের রাষ্ট্রদূত ঝাং ঝু গতকাল সোমবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে তাদের অভিনন্দন বার্তা হস্তান্তর করেন।
রাষ্ট্রদূত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের উন্নয়নের ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি আশা করেন, শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে সরকারের ভিশন ২০২১ বাস্তবায়িত এবং এ সময়ের মধ্যে বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে। তিনি আরো আশা করেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী কর্মসূচির কারণে শিগগীরই বাংলাদেশে দারিদ্র্যের হার শূন্যে নেমে আসবে। ঝাং ঝু আশা করেন, দু’দেশের কৌশলগত ও পারস্পরিক সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।
চীনা দূত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করে তাকে বিশ্বের মহান নেতা হিসেবে উল্লেখ করেন।
প্রধানমন্ত্রী তাকে অভিনন্দন জানানোর জন্যে চীনা প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান এবং বাংলাদেশের উন্নয়নে বেইজিংয়ের অব্যাহত সহযোগিতার প্রশংসা করেন।
চীনকে বাংলাদেশের মহান বন্ধু উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী তার আগামী পাঁচ বছরের শাসনকালে চীনের কাছ থেকে আরো বিনিয়োগ প্রত্যাশা করেন।
এ সময় বঙ্গবন্ধুর ছোট মেয়ে শেখ রেহানা, শেখ হাসিনার কন্যা সায়মা ওয়াজেদ পুতুল, প্রধানমন্ত্রীর মূখ্য সচিব মো নজিবুর রহমান, সামরিক সচিব মিয়া মোহাম্মদ জয়নুল আবেদিন এবং পিএমও সচিব সাজ্জাদুল হাসান উপস্থিত ছিলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ