সোমবার ০১ জুন ২০২০
Online Edition

আজ দ্বিতীয় ম্যাচে ঘুরে দাঁড়াতে চায় বাংলাদেশ ------সৌম্য সরকার

স্পোর্টস রিপোর্টার : টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচে হেরেছে বাংলাদেশ। তিন ম্যাচ সিরিজের আজ দ্বিতীয় ম্যাচ। আজ হারলেই সিরিজ হারবে টাইগাররা। তাই সিরিজে টিতে থাকতে হলে আজ জিততে হবে বাংলাদেশকে। আর এই ম্যাচে বাংলাদেশ দল ঘুরে দাঁড়াবে এমনটাই মনে বাটসম্যান সৌম্য সরকার। সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচে বোলিং কিংবা ব্যাটিং-কোনো দিকেই পাত্তা পায়নি সাকিব আল হাসানের দল। মূলত ওয়েস্ট ইন্ডিজের পেসারদের বিপক্ষেই হেরে গিয়েছিল বাংলাদেশ দল। টসে জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে প্রথম ৪ ওভারেই সাজঘরে ফিরে গিয়েছিল তিন টপঅর্ডার ব্যাটসম্যান। পাওয়ার প্লে’র ৬ ওভারের মধ্যে বাংলাদেশ হারিয়ে ফেলেছিল ৪টি উইকেট। শুরুর এ ধাক্কা সামাল দিয়ে অধিনায়ক সাকিব আল হাসান একা লড়াই করলেও পারেননি বাকিরা। যে কারণে নির্ধারিত ২০ ওভারের ঠিক এক ওভার আগেই ১২৯ রানে গুটিয়ে গিয়েছে দল। পরে সাই হোপ ও কেমো পলদের তান্ডবী ব্যাটিংয়ে ১০.৫ ওভারেই লক্ষ্যে পৌঁছে যায় ক্যারিবীয়রা। সে ম্যাচে বাংলাদেশের ইনিংসের পোস্টমর্টেম করতে গেলে  দেখা যায় স্বীকৃত ব্যাটসম্যানদের প্রায় সবাই নিজেদের উইকেট দিয়েছেন উঠিয়ে মারতে গিয়ে। ওশেন থমাস কিংবা শেলডন কটরেলদের দ্রুতগতির বাউন্সারগুলো ঠিকভাবে আত্মস্থ না করেই ব্যাট ঘুরিয়ে বিলিয়ে এসেছেন নিজেদের উইকেট। অথচ শুরুতে কয়েক ওভার উইকেট পেস ও বাউন্স বুঝে শুরু করতে পারলে মাঝের ওভারগুলোতে দ্রুত রান তুলে নিতে পারতো স্বাগতিকরা। গতকাল মিরপুরে সিরিজের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টির আগে সংবাদ সম্মেলনে একই কথা বলেন দলের টপঅর্ডার ব্যাটসম্যান সৌম্য সরকার। তার মতে প্রথম ম্যাচে বুদ্ধি খাটিয়ে খেলতে পারলে দলের রানটা আরও ভালো হতে পারতো, তখন ম্যাচের চিত্রও বদলে যেত বলেই বিশ্বাস সৌম্যর। তিনি বলেন, ‘আমরা সবাই জানি এই ফরম্যাটে ওরা বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন দল। আমরাও যে খারাপ করছি তা না। চেষ্টা করছি তাদের সাথে তাল মিলিয়ে চলার। হয়তোবা কোথাও কোনো ভুল ছিল। কিংবা কোন বুদ্ধির ঘাটতি ছিল হয়তো। আমরা বেশি তাড়াহুড়ো করে তাদেরকে চার্জ করতে গিয়েছি। আমরা যদি বুদ্ধি খাটিয়ে খেলতাম, পেসারদের প্রথম কিছু ওভার যদি আমরা দেখেশুনে পার করতাম, তাহলে শেষের দিকে আমরা রান আরও কভার করতে পারতাম। হয়তো উইকেট ছিল না বিধায়, উইকেট শুরুতে পড়ে যাওয়ায় মাঝখানে একটু ধীরে খেলতে হয়েছে।’ দ্বিতীয় ম্যাচে মাঠে নামার আগে দলের পরিকল্পনা নিয়ে সৌম্য বলেন, ‘পরের ম্যাচে এটাই  চেষ্টা করা হবে, যাতে বুদ্ধি খাটিয়ে খেলা যায়। ইনিংসের শুরুর দিকে আমরা যারা আছি, তাঁরা যদি প্রথম পাওয়ারপ্লেটা সুন্দরভাবে খেলতে পারি, উইকেটটা হাতে রাখতে পারি, তাহলে শেষের দিকে রানটাও ভালো হবে।’ পিছিয়ে পড়ে সিরিজ জয়ের মধুর স্মৃতি এখনও বেশ টাটকা। জুলাই-আগস্টে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে প্রথম ম্যাচ হেরেও টি-টোয়েন্টি সিরিজ জিতে নিয়েছিল বাংলাদেশ। ঘরের মাঠে এ মুহূর্তে একই পরিস্থিতির সামনে সাকিব-তামিমরা। সিলেটে প্রথম ম্যাচ হেরে যাওয়ায় আজ দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি জিততেই হবে টাইগারদের। সামনে কঠিন চ্যালেঞ্জ অপেক্ষা করলেও সৌম্য সরকারের দৃঢ় বিশ্বাস, সিরিজে সমতা ফিরিয়ে আনতে সমস্যা হবে না।সৌম্য বলেন, ‘আমরা সবসময় চ্যালেঞ্জ নিতে  প্রস্তুত। প্রথম ম্যাচ হেরে সিরিজে পিছিয়ে পড়েছে আমাদের দল। কয়েক মাস আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে টি-টোয়েন্ট সিরিজের প্রথম ম্যাচে হেরে গিয়েছিলাম। তবে পরের দুই ম্যাচে জয় পেয়ে সিরিজটা আমরাই জিতেছিলাম। সেই সিরিজই এখন আমাদের অনুপ্রেরণা।’ প্রথম ম্যাচে ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতার মাশুল দিয়ে হার মেনেছে বাংলাদেশ। সৌম্য জানালেন, সেদিনের সব ভুল শুধরে মাঠে নামাই দলের লক্ষ্য। তিনি বলেন,‘সেদিন শুরুতে ওদের বোলারদের চার্জ করতে গিয়ে আমরা হয়তো ভুলই করেছি। প্রথম কয়েকটা ওভার একটু বুদ্ধি করে খেলা উচিত ছিল। এই ম্যাচে আমরা শুরুতে একটু সাবধানে খেলার চেষ্টা করবো। পাওয়ার প্লেতে উইকেট ধরে রেখে খেলতে পারলে ফিনিশিং ভালোভাবে করা যাবে। প্রথম ম্যাচের ভুল শুধরে আমরা মাঠে নামতে চাই।’ শীতের আবহাওয়ায় বাড়তি সুবিধা দিতে পারে ক্যারিবিয়ান পেসারদের। এ নিয়ে তিনি বলেন,‘এমন আবহাওয়ায় পেস বোলারদের কার্যকারিতা একটু বেশি থাকে। ওদের  বোলারদের তাই ঠা-া মাথায় মোকাবিলা করতে হবে।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ