বৃহস্পতিবার ১৩ আগস্ট ২০২০
Online Edition

হামলা ভাঙচুর রক্তপাত ও গ্রেফতার মাথায় নিয়ে ধানের শীষের প্রচারণা চলছে

* গণজোয়ার ভোট ডাকাতির ষড়যন্ত্র রুখে দিবে
চট্টগ্রাম ব্যুরো (১৭ ডিসেম্বর) : চট্টগ্রামের বিভিন্ন আসনে বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্ট প্রার্থীদের নির্বাচনী প্রচারণাকালে হামলা গ্রেফতার অব্যাহত রয়েছে বলে বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্ট নেতৃবৃন্দ অভিযোগ করেছে।
চট্টগ্রাম-৯ সংসদীয় আসনে কারাবন্দী নগর বিএনপির সভাপতি ডাঃ শাহাদাত হোসেনের পক্ষে গণসংযোগ চলাকালে  নগর বিএনপির সহ-সভাপতি সবুক্তগীন সিদ্দিকী মক্কীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শনিবার দুপুর ১২টায় ডাঃ শাহাদাতের পক্ষে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন ও কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্য আলহাজ্ব শামশুল আলমের নেতৃত্বে গণসংযোগ চালাকালে মদীনা মসজিদের সামনে থেকে চকবাজার থানা পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। এছাড়া বিএনপির সহ-সভাপতি সৈয়দ আহমদকেও গ্রেফতার করে পুলিশ। এদিকে শনিবার বেলা পৌনে ১২টায় সাদা পোশাকধারী পুলিশ ৩৫ নং বখশিরহাট ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক আবদুল জলিলকে ফায়ায় সার্ভিস-এর সামনে থেকে গ্রেফতার করেছে বলে বকশির হাট ওয়ার্ড বিএনপির সেক্রেটারী নুরু জানান।
চট্টগ্রাম-১৪ আসনে কর্ণেল অলির ছেলের ওপর সন্ত্রাসী হামলা: চট্টগ্রাম-১৪ আসনে কেওচিয়া ইউনিয়নে কর্ণেল (অবঃ) অলি আহমেদের পক্ষে গণসংযোগ করার সময় বেলা দেড়টার দিকে চৌমুহনী সাইক্লোন সেন্টারের সামনে এমপি প্রার্থীর ছেলে প্রফেসর ওমর ফারুকসহ নেতাকর্মীদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায় আওয়ামী সন্ত্রাসীরা। কর্নেল অলির নির্বাচনী মিডিয়া সেলের সমন্বয়ক  মো. জসিম জানান এ সময় সন্ত্রাসীরা ওমর ফারুকের বাম হাতের আঙ্গুল কেটে যায়। রক্তাক্তবস্থায় তাঁকে চন্দনাইশ স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে। হামলায় কেওচিয়া ইউনিয়নের বিএনপির সভাপতি আবু সাঈদ, তার বড়ভাই আব্দুস সালাম এবং ছেলে আব্দুল গফুর গুরুত্বর আহত হন।এ ঘটনার পর নির্বাচনী মাইকিং কালে ফের হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা। এতে রবিউল ও আব্দুল আজিজ নামে দুই বিএনপি কর্মী আহত হন।
চট্টগ্রাম-১২ আসনে বিএনপির ১১ নেতাকর্মী গ্রেফতার: চট্টগ্রাম-১২ সংসদীয় আসনের পটিয়া উপজেলার বিভিন্ন বাসা-বাড়ী থেকে শুক্রবার রাতে দক্ষিণ জেলা যুবদলের যুগ্ম সম্পাদক হারুন কাকন, হাকিম মেম্বর, কামাল মেম্বার, বাবুল মেম্বার, সুজন মেম্বার, সেকেন্দার হোসেন নয়ন, মোঃ শাখাওয়াত হোসেন, সাজ্জাদ হোসেন, মহিউদ্দিন হাশেম, ওমর ফরুক, সাইফুজ্জামাকে গ্রেফতার করা হয়।
চট্টগ্রাম-৪ আসনে ছাত্রলীগ সন্ত্রাসীদের হামলায় যুবদল নেতা গুরুতর আহত: চট্টগ্রাম-৪ আসনে সীতাকু- ১০নং ইউনিয়নের আবদুল্লাহ্ ঘাটা এলাকায় শুক্রবার রাতে পোষ্টার লাগানোর সময় ছাত্রলীগ ও যুবলীগের সন্ত্রাসীরা ১ং ওয়ার্ড যুবলের সহ-সভাপতি মোঃ শওকত আলীর ওপর সন্ত্রাসী হামলা চালায়। এ সময় তার হাতে থাকা সকল ব্যানার-পোস্টার পুড়িয়ে দেয়া হয়। ছাত্রলীগের বর্বরোচিত হামলায় তার মাথা ফেটে সারা দেহ রক্তাক্ত হয়ে যায়। সন্ত্রাসীরা রড দিয়ে মেরে তার পা ভেঙ্গে দেয়। সন্ত্রাসীরা তার মোবাইল এবং পকেটে থাকা টাকা-পয়সা ছিনতাই করে। তাকে গুরুতর আহতাবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
খুলনা অফিস : খুলনা-৪ (রূপসা-তেরখাদা-দিঘলিয়া) আসনের জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ দলীয় জোট মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থী আজিজুল বারী হেলালের কর্মীদের ওপর অব্যাহত হামলা, নির্যাতন, মারপিট, পোস্টার ছিড়ে ফেলা, নির্বাচনী অফিসে বন্ধ করে দেয়ার অভিযোগ এনে বলেন, এ নিয়ে নির্বাচন সংশ্লিষ্ট সকলের কাছে লিখিত ভাবে জানানো হলেও কোন প্রতিকার মিলছেনা। আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী নির্বাচনী আচরনিবিধির ধার ধারছেন না। পরিস্থিতি দেখে মনে হচ্ছে, আওয়ামী লীগ চায়না বিএনপি নির্বাচনের মাঠে থাকুক। যদি তাই হয় তবে সরকার ঘোষণা দিক বিএনপির নির্বাচন করার প্রয়োজন নেই। শনিবার বেলা সাড়ে ১১ টায় খুলনা মহানগরীর কে ডি ঘোষ রোডে বিএনপি অফিসে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলেন।
আজিজুল বারী হেলাল বলেন, আওয়ামী লীগের প্রার্থীর অনুসারী ও নেতাকর্মীরা বিএনপির নেতাকর্মীদের উপর একের পর এক হামলা চালিয়ে যাচ্ছে। গুপ্তি ও দেশীয় ধারালো অস্ত্র দিয়ে আহত করা হয়েছে নেতা-কর্মীদের। তারা এখন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। শুক্রবার দিবাগত রাতে শ্রীফলতলা ইউনিয়নের নেতা রুহুল আমিন বিশ্বাস, রবিউল আমার নির্বাচনী কাজ যখন করছিলো তখন দেশিয় অস্ত্র গুপ্তি দিয়ে প্রতিপক্ষের সন্ত্রাসীরা তাদের আঘাত করে। রুহুল বিশ্বাসের পেটের মধ্যে গুপ্তি ঢুকিয়ে দেয়া হয়। এতে তার খাদ্য নালী কেটে যায়। আজকে তার অপারেশন হচ্ছে। আওয়ামী লীগের প্রার্থী ও তার দলীয় নেতাকর্মীদের তান্ডবে বিএনপির নেতাকর্মীরা বাড়িতে থাকতে পারছেন না। গত ৪/৫ দিনে তিন উপজেলার বেশ কয়েকটি স্থানে বিএনপি নেতাকর্মীদের উপর হামলা চালিয়ে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। আওয়ামী লীগ প্রার্থী নির্বাচনী আচরণ বিধির ধারও ধারছেন না।
যশোর: যশোর-৩ আসনের বিএনপি মনোনীত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী অনিন্দ্য ইসলাম অমিতের পথসভার বোমা হামলা চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। বিকেলে যশোরে শহরের পশ্চিমবারান্দী কদমতলায় গণসংযোগ কালে  তিনটি বোমা হামলা এবং আরবপুর ইউনিয়নের কদমতলা মোড়ে গণসংযোগ শেষে পথসভা পর ১০জন যুবক মোটরসাইকেলে এসেই পরপর দুটি হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ত্রাস সৃষ্টি করে। এদিকে বোমা হামলায়  কেউ হতাহত না হলেও সন্ত্রাসীরা অনিন্দ্য ইসলাম অমিতের গাড়িবহর থেকে মোশাররফ নামে ষাটোর্ধ এক বিএনপি নেতাকে ধরে বেধড়ক মারপিট করে। পরে উপস্থিত নেতাকর্মীরা প্রতিরোধে এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। অমিত বলেন, বোমা মেরে ভয় দেখিয়ে আমাদের নির্বাচন থেকে দূরে ঠেলে দেয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। কিন্তু কোনো ভয়ভীতি দেখিয়ে লাভ নেই। আমার শরীরে তরিকুল ইসলামের রক্ত। ভয় কী জিনিস সেটা আমরা জানিনা। তিনি বোমা হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে এর সুষ্ঠু তদন্তের দাবি জানান।
দিনভর আরবপুর ইউনিয়নের ধর্মতোলা, ভেকুটিয়া, ধোপাপাড়া, সজলপুর, বালিয়াভেকুটিয়া, চাঁদপাড়া, মালঞ্চী, পুলেরহাট, ম-রগাতিসহ ২০ অধিক পথসভায় প্রার্থী অনিন্দ্য ইসলাম অমিত অংশ নেন।
এ সময় তিনি বলেন, নির্বাসিত গণতন্ত্র ও ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনতে সকল ভয়ভীতি উপেক্ষা করে ধানের শীষে ভোট দিন। ৩০ ডিসেম্বও ভোট বিপ্লবের মাধ্যমে লুটপাট গুম হত্যা ও সমুদয় অবিচারের দাতভাঙ্গা জবাব দিতে নারী পুরুষ সকলকে আহবান জানান তিনি।
চট্টগ্রাম ব্যুরো : চট্টগ্রাম-৯ আসনে ডাঃ শাহাদাতের পক্ষে বিএনপির গণসংযোগে মীর নাছির আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চট্টগ্রাম-৯ আসনের ২০ দলীয় জোট ও জাতীয়ঐক্যফ্রন্ট’র মনোনীত প্রার্থী ডাঃ শাহাদাত হোসেনকে ধানের শীষ মার্কায় ভোটদিয়ে জয়যুক্ত করার জন্য নগরবাসীর প্রতি আহবান জানিয়েছেন বিএনপির ভাই চেয়ারম্যান মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দীন। তিনি  সকাল ১০টায় নগরীর কাপাসগোলা মোড়ে গণসংযোগপূর্ব পথ সভায় এই আহবান জানান। মহানগর বিএনপির সহ সভাপতি সুবকগীন সিদ্দিক মক্কীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় তিনি বলেন ডাঃ শাহাদাত হোসেন তৃণমূল থেকে ওঠে আসা বিএনপি’র একজন পরিচ্ছন্ন কর্মী। তার সমাজ সেবা, চিকিৎসা সেবা, নৈতিকতা অত্যন্ত উন্নত। সাধারণ মানুষের প্রাকৃতিক দুর্যোগসহ মানুষের সুখে দুঃখে ঝাঁপিয়ে পড়া তার স্বভাব। সচ্ছতা-জবাবদিহিতা এবং সমাজ ও এলাকার প্রতি কমিটমেন্ট তাকে এই এলাকার সাধারণ মানুষের কাছে বিশেষভাবে গ্রহণযোগ্য করে তুলছে।  আলহাজ শাসশুল আলম বলেন, আগামী ৩০ ডিসেম্বর নারী পুরুষ ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে ডাঃ শাহাদাত হোসেনকে ধানের শীষ প্রতীকে ভোট দিয়ে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ত্বরান্বিত করার আহবান জানান। পরে তিনি নগরীর কাপাসগোলা হতে চকবাজার তৈলপট্টি অলিখাঁ মসজিদ গোলজার মোড়, লালচাঁদ রোড়ে ব্যাপক গণসংযোগ করেন এবং ডাঃ শাহাদাত হোসেনকে ধানের শীষ প্রতিকে ভোট দেওয়ার জন্য প্রচারপত্র বিলি করেন।
চট্টগ্রাম-১১ সংসদীয় আসনে বিএনপির মনোনিত প্রার্থী, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও  সাবেক মন্ত্রী আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, আমরা আন্দোলনের অংশ হিসেবে নির্বাচনে এসেছি। নির্বাচনী এই আন্দোলনে আমাদের জয়ী হতে হবে। নির্বাচনী কৌশলে জয়ী হওয়ার মাধ্যমে ভোট হাইজাকারদের পরাজিত করতে হবে।
তিনি ১৫ ডিসেম্বর বিকেলে মহান বিজয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে চট্টগ্রাম নগর বিএনপির উদ্যোগে নাসিভবনস্থ দলীয় কার্যালয় মাঠে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
এতে তিনি আরো বলেন, নির্বাচনী আন্দোলনে জয়ী হওয়ার মাধ্যমে আমরা ফিরে পাবো আমাদের গণতন্ত্র, নাগরিক অধিকার ও  দেশের মালিকানা। আমরা দেশের মালিকনানা ফেরত দেয়ার কথা বলছি এটা কিন্তু অনেক গুরুত্বপূর্ণ। তিনি বলেন, আমাদের  প্রতিদ্বন্দ্বী কোন রাজনৈতিক দল নয়, আমাদের প্রতিদ্বন্দ্বী হচ্ছে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস। এই রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসকে মোকাবিলা করেই আমাদের নেতাকর্মীরা জ¦লে পুড়ে খাঁটি সোনায় পরিণত হচ্ছে। এই সরকার ইতোমধ্যে নির্বাচনে পরাজিত হয়ে গেছে। এখন তারা বিভিন্ন কলাকৌশলে নির্যাতন চালাচ্ছে।
আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির শ্রম বিষয়ক সম্পাদক এ এম নাজিম উদ্দিন, সাংবাদিক জাহিদুল করিম কচি, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মো: শাহনওয়াজ।
মেহেরপুর: প্রতিদিন নৌকাপ্রার্থীর লোকজন নির্বাচনী কাজে বাধা, হামলা, ভাংচুর ঘটনা ঘটিয়ে পুরো জেলায় ভীতি ও ত্রাসের সৃষ্টি করছে। এর প্রতিবাদে শনিবার দুপুরে মেহেরপুরে জেলা বিএনপি কার্যালয়ে বিএনপি প্রার্থী এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেছে।
সেখানে জেলা বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। বিএনপির ধানের শীষপ্রার্থী জেলা বিএনপির সভাপতি মাসুদ অরুণ অভিযোগ করে জানান, পোলিং প্রিজাইডিং অফিসারসহ আনসার নিয়োগে আওয়ামীলীগ দলীয়দের নেওয়া হচ্ছে। গ্রামে গ্রামে বিএনপির প্রার্থীর পোষ্টার নির্বাচনী কার্যালয় ও প্রচার মাইক ভেঙ্গে ও ছিঁড়ে ফেলা হচ্ছে।
৯ গায়েবী মামলায় ৩ হাজার আসামী ও ৫ জনকে অজ্ঞাত আসামী করে গ্রামে গ্রামে পুলিশী গ্রেপ্তার চলছে। বাড়ি বাড়ি গিয়ে নৌকাপ্রার্থীর লোকজন বিরোধী ভোটারদের ভোটকেন্দ্রে না যাওয়ার জন্য হুমকী দিচ্ছে।
সাংবাদিক সম্মেলনে বিএনপি প্রার্থী সুষ্ঠু নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য ডিসি, এসপিসহ সকল নির্বাচনী কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা চান।
চৌগাছা: যশোরের চৌগাছায় নাশকতার পরিকল্পনার অভিযোগে জামায়াত কর্মী সন্দেহে মাসুদ আহমেদ নামে এক পৌর কর্মচারীসহ আট বিএনপি-জামায়াত নেতাকে আটক করেছে পুলিশ। মাসুদ আহমেদ চৌগাছা পৌরসভার টিকাদানকারী।
আটক অন্যরা হলেন চৌগাছা পৌর জামায়াতের সাবেক সেক্রেটারী ও ধানের শীষের উপজেলা নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য আহসান হাবিব, হাকিমপুর ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি সাজ্জাদ হোসেন খান, জগদিশপুর ইউনিয়ন জামায়াতের সভাপতি সহ-অধ্যাপক  ড. মাহবুবুর রহমান, নারায়ণপুর ইউনিয়ন জামায়াতের সভাপতি তুহিনুর রহমান, চৌগাছা পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ড জামায়াতের সভাপতি ও জেটিকেইউ দাখিল মাদরাসার সুপার মাওলানা আনোয়ার হুসাইন, সাঞ্চাডাঙ্গা ওয়ার্ড জামায়াতের সভাপতি আব্দুল খালেক, রঘুনাথপুর ওয়ার্ড জামায়াতের সভাপতি সাহাজ উদ্দিন।
জামায়াত নেতাদের শুক্রবার সন্ধ্যার পর উপজেলা বিভিন্ন স্থান থেকে এবং বিএনপি নেতা সাজ্জাদ হোসেনকে শনিবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে নিজ গ্রাম থেকে আটক করা হয়। তাদের নাশকতার মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে শনিবার দুপুরে আদালতে পাঠানো হয়েছে।
চৌগাছা থানার সেকেন্ড অফিসার উপ-পরিদর্শক (এসআই) এসএম আকিকুল ইসলাম বলেন আটকদের বিরুদ্ধে নাশকতার অভিযোগে মামলা রয়েছে। তিনি বলেন শনিবার দুপুরে তাদের আদালতে পাঠানো হয়েছে।
আতাইকুলায় আ,লীগের হামলায় জামায়াত নেতা আহত
পাবনা: আতাইকুলা থানার ভুলবাড়িয়া ইউনিয়ন জামায়াতের সভাপতি মাও;আবুল হাসান গত শনিবার রাতে দুর্বৃত্তদের হামলায় মারাত্মক আহত হয়েছে। পরিবার সুত্রে জানা যায় সন্ধ্যে ৭টায় বাড়ি ফেরার পথে রতনপুর হরিপুর ব্রিজে আসামাত্র  স্থানীয় আ,লীগের লোকেরা তার উপর হামলা চালিয়েছে গুলী ও এলোপাতারি আঘাতে গুলী না লাগলেও আঘাতে তার নাক মুখ ফেটে রক্তাক্ত হয়ে যায় সাথে সাথে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হলে অবস্থার অবনতি হলে ঢাকায় পাঠানো হয়। এঘটনায় নিন্দা জানিয়েছেন পাবনা জেলা জামায়তের আমির অধ্যাপক আবু তালেব মন্ডল সেক্রেটারি প্রিন্সিপাল ইকবাল হোসাইনও সাথিয়া জামায়াত নেতৃবৃন্দ।
সরিষাবাড়ী (জামালপুর): জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ীতে জামায়াতের দায়িত্বশীল সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জামায়াতে  ইসলামী জামালপুর জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মাওলানা নুরুল হক জামালী। বিশেষ অতিথি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২০ দলীয় জোট ধানের শীষ প্রার্থী বিএনপির জেলা সভাপতি মো: ফরিদুল কবির তালুকদার শামীম।
জানা যায়, ২০ দলীয় জোটে অন্যতম শরিক বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী সরিষাবাড়ী উপজেলার ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড দায়িত্বশীল  সমাবেশ আরো উপস্থিত ছিলেন জামালপুর শহর আমীর  সুলতান মাহমুদ, শহর সাধারণ সম্পাদক মো: আসিমুল ইসলাম জেলা ইউনিট নেতা এড: আব্দল আওয়াল, সরিষাবাড়ী উপজেলা আমীর: মাসুদ রানা দুলাল  পৌর আমীর  শামীম হোসাইন প্রমুখ।
গৌরনদী (বরিশাল): বরিশালের গৌরনদী উপজেলা সদরের কাছেমাবাদ ও হরিসোনা গ্রামের বিএনপি, যুবদল ও ছাত্রদলের ১৩ নেতা-কর্মীর বাড়িঘরে হামলা, ভাংচুর ও তাদের পরিবারের সদস্যদের মারধর করেছে মুখোশধারী সন্ত্রাসীরা। এ সময় সন্ত্রাসীরা ওই সকল নেতা-কর্মীদের ঘরের দরজা ভেঙ্গে ভেতরে ঢুকে বিএনপির ১৩ নেতা-কর্মীকে খোঁজাখুঁজি করে। তাদেরকে না পেয়ে সন্ত্রাসীরা বিএনপির নেতা-কর্মীদের পরিবারের সদস্যদের মারধর ও আতংক সৃষ্টি করে। এক পর্যায়ে তারা বিএনপি-নেতাকর্মীদের পরিবারের সদস্যদেরকে হুমকি দিয়ে যায় যে, আগামী ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনের আগে তারা যেনো বাড়িতে না ফেরে। বাড়ি ফিরলে তাদেরকে হাত-পা ভেঙ্গে পঙ্গু করে দেয়া হবে অথবা হত্যা করা হবে।
তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ): সিরাজগঞ্জ-৩ আসনে জামায়াত বিএনপি নেতাকর্মীদের কোনঠাসা করতে  একের  এক  মিথ্যা ও গায়েবী মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ পাওয়া গেছে।  পুলিশের গ্রেফতারের ভয়ে নেতাকর্মীরা পালিয়ে বেড়াচ্ছেন বলে এলাকাবাসিরা জানিয়েছেন। রায়গঞ্জে আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটের পূর্ব মুহূর্তে প্রায় অর্ধশত জামায়াত-বিএনপি নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে আবারও মামলা ৭ নেতা-কর্মীকে গ্রেপ্তারের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় সাধারণ ভোটারদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। জানা যায় গত বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলার গুনগাতি তালতলা মোড়ে বসে থাকা ১ বিএনপি কর্মী ও ৪ জন জামায়াত সমর্থককে হঠাৎ ধরে নিয়ে যায় পুলিশ। পরে উপজেলার ভিন্ন দুটি স্থান থেকে একই কায়দায় আরো ২ জন জামায়াত ও বিএনপি নেতাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এদের কারো বিরুদ্ধেই পূর্বে কোন অভিযোগ বা মামলা ছিলনা।
কাপাসিয়া (গাজীপুর): একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গাজীপুর-৪, কাপাসিয়া আসনে ২৩ দলীয় জোট ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মনোনীত প্রার্থী শাহ্ রিয়াজুল হান্নানের উপর স্থানীয় আড়াল বাজারে আওয়ামী যুবলীগের ৩ দফা হামলার পর শুক্রবার রাতে ওই এলাকায় বর্িাচনী অফিস ব্যাপকভাবে ভাংচুর এবং পোস্টার ছিড়ে আগুন লাগিয়ে দেয়া  হয়েছে। এছাড়া উপজেলার কড়িহাতা ইউনিয়নের বেগুন হাটি এলাকায় একটি গায়েবী ঘটনা দেখিয়ে মামলা দায়ের করেছে। এ মামলায় কেন্দ্রীয় ওলামা দলের নেতা  শ্রীপুরের পীরজাদা রুহুল আমীন (৬০) এবং দূর্গাপুরের ফুলবাড়িয়ায় দায়ের করা ২৫(১২)২০১৮ মামলায় দেইলগাঁও গ্রামের বিএনপি কর্মী আতর আলী (৫৫) কে গ্রেফতার করেছে। এ নিয়ে গত দুই দিনে ৩ মামলায় নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত বিএনপির ৩’শ নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে বিএনপি দলীয় নেতৃবৃন্দ অভিযোগ করেন।  
নেত্রকোনা সংবাদদাতা: প্রতীক বরাদ্দের ৬দিন পর হামলা মামলাসহ  নানা প্রতিকূলতার মধ্যে দিয়ে নেত্রকোনা-২ আসন বারহাট্টা-নেত্রকোনার ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী নেত্রকোনা জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ডা: আনোয়ারুল হক নেত্রকোনা ও বারহাট্টার বিভিন্ন এলাকায় ধানের শীষে ভোট সংগ্রহের জন্য  গণসংযোগ অব্যাহত রেখেছেন। বারহাট্টার ছালিউড়ায় উপজেলা বিএনপির সভাপতি রহমত আলী সভাপতিত্বে নির্বাচনী কর্মী সভায় বলেন বিএনপির গণজোয়ার দেখে আওয়ামীলীগ ভীত সন্ত্রস্ত হয়ে পড়েছে। পুলিশ দিয়ে বিএপির নেতাকর্মীদের ধরপাকড় ও নির্যাতন এখন দৈনন্দিন ঘটনা। অধ্যাপক ডা: আনোয়ারুল হক বলেন ১৪ ডিসেম্বর নেত্রকোণা জয়নগরস্থ আমার বাসায় শান্তি প্রিয় সাংবাদিকদের নিয়ে সাংবাদ সম্মেলনের পরপরই আমার বাড়ি ও ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানে হামলা ও ভাংচুর করে অর্ধকোটি টাকার ক্ষতিসাধন করে। তদপুরি পুলিশ আমার বাসা থেকে ৩২ জন নেতাকর্মীদের আটক করেন। মডেল থানার পুলিশ নতুন করে ঐদিনেই ২০০ শতাধিক নেতাকর্মীদের নামে ২টি মামলা করেন। এরপরও আমরা আমাদের আন্দোলনের অংশ হিসেবে নির্বাচনে আছি ও থাকব। ৩০ তারিখ আমাদের বিজয় সুনিশ্চিত করতে প্রত্যেকটি ভোট কেন্দ্র পাহারার মাধ্যমে বিজয় ছিনিয়ে আনার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করছি। 
আমাদেরকে হুমকি ধামকি দিয়ে এবং মামলা হামলা করেও আমাদের থামানো যাবে না। তিনি বারহাট্টা উপজেলার সাওতা বাজার, সদর উপজেলার আমতলা বাজারে গণসংযোগের সময় ধানের শীষে ভোট দেওয়ার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান।
এসময় সাথে ছিলেন জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সালাউদ্দিন খান মিলকী, জেলা যুবদলের সভাপতি মশিউর রহমান মশু, বারহাট্টা উপজেলা সাধারণ সম্পাদক সানোয়ার হোসেন ঠাকুর, আব্দুল হক ভূইয়া, জেলা ছাত্র দলের সম্পাদক অনীক মাহমুদ চৌধুরী প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ