শনিবার ০৪ জুলাই ২০২০
Online Edition

লালমনিরহাট-বুড়িমারী রেললাইনের পাশ থেকে বোমা মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলনের অভিযোগ

লালমনিরহাট সংবাদদাতা : লালমনিরহাট-বুড়িমারী রেললাইনের পাশ থেকে বোমা মেশিন দিয়ে দীঘদিন ধরে অবাধে বালু উত্তোলন করছে একটি প্রভাবশালী মহল। বালু উত্তোলনের ফলে বুধবার (২৮ নবেম্বর) সকাল ৮টায় লালমনিরহাট-বুড়িমারী গামী কমিউটার ট্রেনটি দুর্ঘটনার কবল থেকে রক্ষা পেলও অন্তত ৫জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

জানা যায়, আদিতমারী উপজেলার সাপ্টিবাড়ী ইউনিয়নের পূর্বদৈলজোড় এলাকায় একটি মালিকাধীন পুকুরে অবৈধভাবে বোমা মেশিন বসিয়ে প্রায় ২ বছর ধরে অবাধে বালু উত্তোলন করছে বানভাসা এলাকার নুরজ্জামান আহমেদের পুত্র সোহাগ। ওই পুকুরটির পাশ দিয়ে বয়ে গেছে লালমনিরহাট-বুড়িমারী রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা। সেই রেললাইন থেকে মাত্র ১ শত গজ উত্তরে বোমা মেশিন বসিয়ে দীঘদিন ধরে বালু উত্তোলন করে রাখা হচ্ছে রেলওয়ে জমি উপর। এ কারণে বুধবার সকালে সেখান থেকে বালু ভর্তি একটি ট্রাক বালু নিয়ে রেললাইন পার হওয়ার সময় ট্রাকের চাকা বিকল হয়। ওই সময় লালমনিরহাট-বুড়িমারী গামী ১-৬১ নং কমিউটার ট্রেনটি ট্রাকে ধাক্কা দিলে রেললাইনের উপরে ট্রাকটি দুমরে-মুচরে যায়। এতে বড় ধরনের দুর্ঘটনার কবল থেকে কমিউটার ট্রেনটি রক্ষা পেলেও ট্রাকের চালক, হেলপার, শ্রমিকসহ অন্তত ৫জন আহত হয়েছে। 

এলাকাবাসী জানান, রেল লাইনের পাশ থেকে বালু উত্তোলন করায় আশপাশের আবাদি জমি ধসে যাচ্ছে। হুমকির মুখে লালমনিরহাট-বুড়িমারী রেল যোগাযোগ। অবাধে বালু উত্তোলনের বিষয়ে ভুক্তভোগীরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে একাধিকবার অভিযোগ করার পরেও উপজেলা প্রশাসন অভিযুক্ত সোহাগকে সর্তক করলেও বন্ধ হয়নি বালু উত্তোলন। একই স্থানে অবৈধভাবে বোমা মেশিন বসিয়ে প্রায় ২ বছর ধরে বালু উত্তোলন করায় পুকুরটি সমুদ্রে পরিনিত হয়েছে। এমন অবস্থা চলতে থাকলে যে কোন মুহুর্তে রেললাইন ডেবে গিয়ে লালমনিরহাট-বুড়িমারী একমাত্র রেল যোগাযোগ পথটি চলাচল বিচ্ছিন্ন হওয়ার আশংকা রয়েছে বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ। 

লালমনিরহাট-বুড়িমারী লাইনের ওপর দিয়ে বালু বোঝাই ট্রাক ও ট্রলি ঝুঁকিতে পারাপার হচ্ছে। প্রায় সময় বালু বোঝাই ট্রাক ও ট্রলি সেখানে আটকে যায়। ওই রেললাইনে নেই কোন গেটম্যান ও প্রতিবন্ধকতা। ফলে ট্রেন, ট্রাক ও ট্রলি পারাপার বড়ধরনের দুর্ঘটনা ঘটছে। এছাড়াও সম্প্রতি সময়ে পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের তালুক খুটামারা গ্রামের মকবুল হোসেনের পুত্র মমিনুল (৪) অতিরিক্ত অভারলোড বালুর ট্রাক চাপায় মারা যান। মমিনুলের পিতা ছেলেকে হারিয়ে অসহায় হয়ে কোন বিচার পায়নি। রেললাইনসহ কাঁচা রাস্তার ওপর দিয়ে বালু বোঝাই ট্রাক চলাচল করার ১নং ওয়ার্ডের রাস্তাটি নষ্ট হয়েছে। ফলে ভোগান্তিতে পড়েছে তালুক খুটামারা ওয়ার্ডবাসী। এবিষয়ে বাংলাদেশ রেলওয়ের উদ্ধর্তন কর্মকর্তাসহ ভুমি কমিশনারের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ভোক্তভুগি ও  এলাকাবাসী।

অভিযুক্ত বালু ব্যবসায়ী সোহাগ বলেন, আমি আমার বাপের নামীয় সম্পত্তি থেকে বালু উত্তোলন করছি। এতে কারও কিছুই করার নেই। আমি শুধুমাত্র রেওলের জায়গায় বালু রাখছি।

সাপ্টিবাড়ী ইউনিয়নের সহকারি ভূমি কর্মকর্তা মাহফুজার রহমান বলেন, এলাকাবাসীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে ইউএনও স্যার নিজেই গিয়ে বালু উত্তোলন বন্ধ করে দিয়েছে। তারপর আবারও মেশিন লাগিয়ে ইউএনও স্যারের নির্দেশে সোহাগকে বালু উত্তোলন করতে নিষেধ করেছিলাম। আবারও বিষয়টি ইউএনও স্যারকে জানিয়েছি।

এ ব্যাপারে আদিতমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আশাদুজ্জামান বলেন, লালমনিরহাট-বুড়িমারী গামী কমিউটার ট্রেনটি দুর্ঘটনার কথা শুনে ঘটনাস্থলে সহকারি ভূমি কর্মকর্তাকে পাঠিয়েছি। তার বালু উত্তোলন বন্ধ না হলে ‘এবারে বালু ব্যবসায়ী সোহাগের বিরুদ্ধে  আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ