রবিবার ০৯ আগস্ট ২০২০
Online Edition

চৌদ্দগ্রামে ১৩ গায়েবি মামলায় জামায়াত-বিএনপির ৬ শতাধিক আসামী

চৌদ্দগ্রাম (কুমিল্লা) সংবাদদাতা : কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম থানায় তেরটি গায়েবি মামলায় ৬ শতাধিক বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীকে আসামী করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন সাবেক এমপি ও জামায়াতের কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদের সদস্য ডা. সৈয়দ আবদুল্লাহ মো. তাহের। গতকাল রোববার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের শান্তিপূর্ণ পরিবেশ অশান্ত করতেই পুলিশ সম্পূর্ণ উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে জামায়াত-বিএনপির নেতাকর্মীদের আসামী করেছে। সম্প্রতি তেরটি গায়েবি মামলায় আসামী করা হয় ছয় শতাধিক নেতাকর্মীকে। এরমধ্যে উল্লেখ্যযোগ্যরা হলেন; উপজেলা জামায়াতের সাবেক আমীর ভিপি সাহাব উদ্দিন, দক্ষিণের আমীর মাহফুজুর রহমান, উপজেলা জামায়াত নেতা শাহ মোঃ মিজানুর রহমান, বেলাল হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা আখতারুজ্জামান, মোঃ হারুন, মোবারক হোসেন, মাওলানা আবুল হাশেম, শিবির নেতা আমজাদ হোসেন রুমন, উপজেলা কৃষকদলের সভাপতি হাসান শাহরিয়ার খাঁ, উপজেলা ছাত্রদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি মিয়া জোবায়ের, দেলোয়ার হোসেন মাসুম। অনেক ক্ষেত্রে জেলগেট থেকে গ্রেফতার করেও গায়েবি মামলায় আসামী করা হয়েছে। এছাড়া ঢাকা, চট্টগ্রাম, ফেনী, কুমিল্লাসহ চৌদ্দগ্রাম উপজেলার বাইরে অবস্থানরতদেরও আসামী করা হয়েছে। উপজেলার মিয়াবাজার, বসন্তপুর, সাতবাড়িয়া, নবগ্রাম রাস্তার মাথা, চিওড়া, চান্দিশকরা, নানকরা, সৈয়দপুর, পদুয়া রাস্তার মাথা, খাটরা, শাহাপুর, গজারিয়া এলাকা উল্লেখ করে গায়েবি মামলাগুলো করে পুলিশ। প্রতি রাতেই পুলিশ নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তল্লাশী চালাচ্ছে। নির্বাচনের লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড বলতে কোনো কিছুই চৌদ্দগ্রামে দেখা যাচ্ছে না। আ’লীগের দেয়া তালিকা ধরেই পুলিশ জামায়াত-বিএনপি নেতাকর্মীদের হয়রানি অব্যাহত রেখেছে। জামায়াত-বিএনপি নেতাকর্মীদের হয়রানি বন্ধ করতে তিনি পুলিশের প্রতি আহ্বান জানান। অন্যথায় জনতা প্রতিরোধ গড়ে তুলে পুলিশকে এ হীন কাজের সমুচিত জবাব দিবে বলেও তিনি হুঁশিয়ারী করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ