বৃহস্পতিবার ০৬ আগস্ট ২০২০
Online Edition

প্রধানমন্ত্রীর কাছে গায়েবি মামলার তালিকা পাঠিয়েছে বিএনপি

স্টাফ রিপোর্টার: প্রধানমন্ত্রীর কাছে গায়েবি মামলার তালিকা পাঠিয়েছে বিএনপি। দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর স্বাক্ষরে এই তালিকা পাঠানো হয়েছে। গতকাল বুধবার দলের সহদফতর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপুর নেতৃত্বে চার সদস্যের প্রতিনিধি দলে ছিলেন আইনজীবী অ্যাডভোকেট জিয়াউদ্দীন জিয়া, শরিফুল ইসলাম লিটন ও বিএনপি  চেয়ারপার্সনের মিডিয়া উইংয়ের সদস্য সামসুদ্দিন দিদার। এই তালিকা সকাল ১১টায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে তার ব্যক্তিগত কর্মকর্তা আবদুল হামিদের কাছে  পৌঁছে  দেয়া হয়।
টিপু বলেন, আমরা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে গত ১ সেপ্টেম্বর থেকে দায়েরকৃত ১ হাজার ৪৬টি গায়েবী মামলার তালিকা দিয়েছি। এটি আংশিক। তিনি জানান, এই তালিকার অনুলিপি আওয়ামী লীগের সভানেত্রীর কার্যালয়ে দেয়া হয়েছে।
গত ১ সেপ্টেম্বর থেকে এ পর্যন্ত ঢাকাসহ সারা দেশে গায়েবী মামলার সংখ্যা হচ্ছে ৪ হাজার ৩৭১টি। এসব মামলায় আসামী করা হয়েছে ২৫ লাখ নেতা-কর্মীকে। এই গায়েবী মামলায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীসহ দলের কেন্দ্রীয় নেতাদেও নাম রয়েছে। সদ্য মৃত্যুবরণকারী দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য তরিকুল ইসলামকেও এই গায়েবী মামলায় আসামী করা হয়েছে।
উল্লেখ্য, গত ১ নবেম্বর জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সাথে সংলাপে গায়েবী মামলার বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টিগোচর করলে তিনি নেতৃবৃন্দকে তালিকা দিতে বলেন।
মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর স্বাক্ষরিত ওই চিঠিতে বলা হয়েছে, গত ১ নবেম্বর জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে আলোচানার সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে করা ডায়েরি ও মামলার তালিকা জমা দেওয়ার জন্য বলেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে- বিএনপি এবং দলটির অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলার আংশিক তালিকা পাঠানো হলো।
চিঠিতে যা বলা আছে:
‘শুভেচ্ছা নেবেন। গত কয়েক বছর ধরে বিএনপির জাতীয় নেতারাসহ দেশব্যাপী জেলা, মহানগর, উপজেলা, থানা এমনকি ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধেও ধারাবাহিকভাবে হাজার হাজার মিথ্যা, উদ্ভট, গায়েবি ও রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলা দায়ের কর হচ্ছে। যা গতকাল (মঙ্গলবার,৬ নভেম্বর ) পর্যন্ত অব্যাহত আছে। গত ১ সেপ্টেম্বর থেকে সারা দেশব্যাপী আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ব্যাপক হারে বিএনপি ও অঙ্গ-সংগঠনের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও গায়েবি মামলা দিয়ে গ্রেফতারের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠাচ্ছে এবং রিমান্ডে নিয়ে অকথ্য নির্যাতন। এ ধরনের ন্যক্কারজনক ও অমানবিক ঘটনা নিসন্দেহে গভীর উদ্বেগজনক। ন্যূনতম কোনও সত্যতা কিংবা প্রমাণ না থাকলেও নেতাকর্মীদেরকে এ ধরনের বানোয়াট ও হাস্যকর মামলায় প্রতিনিয়ত জড়ানো হচ্ছে। আশ্চর্য হলেও সত্যি যে, বিএনপি ও অঙ্গ-সংগঠনের মৃত কিংবা দেশের বাইরে অবস্থানরত ব্যক্তিদেরকেও মিথ্যা মামলায় আসামি করা হয়েছে। গত ১ নভেম্বর সংলাপে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর আলোচনার সময় প্রধানমন্ত্রী বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে করা গায়েবি মামলার তালিকা পাঠানোর জন্য বলেন। এরই আলোকে দেশব্যাপী বিএনপি এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা উল্লেখপূর্বক আংশিক তালিকা পাঠানো হয়েছে। মামলার তালিকা মোতাবেক গায়েবি মিথ্যা মামলায় নেতাকর্মীদের গ্রেফতার ও হয়রানি বন্ধ করে এই সব মামলা প্রত্যাহার করার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। পরবর্তীতে এ সংক্রান্ত আরও তালিকা পাঠানো হবে।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ