মঙ্গলবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

সন্তানদের জন্য পরিবারের মা-বাবারা পাগল প্রায়

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কর্তৃক আটককৃতদের পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেয়ার দাবিতে গতকাল সোমবার ক্র্যাব মিলনায়তনে আটককৃতদের পরিবারবর্গের উদ্যোগে সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করা হয় -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার : গাজীপুরের টঙ্গী থেকে ৫ জন ছাত্রকে তুলে নেয়ার অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী পরিবার। গতকাল সোমবার রাজধানীর ক্রাইম রিপোর্টাস এসোসিয়েশন মিলনায়তনে সম্মেলন কক্ষে পরিবারের পক্ষ থেকে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে দাবি করা হয়, গত ৩০ অক্টোবর রাতে প্রয়োজনীয় কাজে বাসা থেকে বের হওয়ার পর তাদের সন্তানরা আর বাসায় ফিরে আসেনি।
সাংবাদিক লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ওমর ফারুকের বোন শাহানারা বেগম। উপস্থিত ছিলেন রবিউলের বড় ভাই নাইম ইসলাম, শাকেরের ভাই মোঃ আরাফাত, নোমানের বাবা দেলোয়ার হোসেন, মাতা মোফাররেহা বেগম ও জহিরের পিতা আব্দুস সালাম।
ভুক্তভোগী পরিবার অভিযোগ করে, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয় দিয়ে একের পর এক তাদের সন্তানদের দের গ্রেফতার করা হয়। প্রথমে শাকির বিন হোসাইনকে (২৭) টঙ্গীর কলেজ গেইট থেকে এক দল  সাদা পোশাকধারী লোক ডিবি পরিচয় দিয়ে এখান থেকে সাদা মাইক্রবাসে কয়েকজনকে তুলে নিয়ে গেছে।এরপর একে একে জুয়েল (২৮), নোমান (২৫), রবিউল (২৫) এবং ওমর ফারুক (২৫)। গ্রেফতারের খবর জানার সাথেই সাথেই পরিবারের পক্ষ থেকেথানায় খোঁজখবর নেই কিন্তু তারা গ্রেফতারের কথা অস্বীকার  করে। পরের দিন ডিবি'র অফিসে খোঁজ নেই তারাও অস্বীকার করে। অনেক খোঁজাখুজির পর আমরা না পেয়ে থানায় জিডি করি। তারা আরও বলেন, ৫ দিন পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত আমাদের সন্তানদের আদালতে তোলা হয়নি এবং গ্রেপ্তারের কথা স্বীকার করছেনা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। আমরা রাত দিন খোঁজাখুঁজি করছি, পুলিশের বিভিন্ন কর্মকর্তার কাছে মিনতি করেও ছেলের সন্ধান পাচ্ছি না। সন্তানদের জন্য পরিবারের মা-বাবারা এখন পাগল প্রায়। আমরা বিশ্বস্ত সূত্রে জানতে পেরেছি আমাদের সন্তানরা পুলিশের কাছেই আছে।
তারা বলেন, আমরা এখন নিরুপায় হয়ে আমার নিরপরাধ সন্তানের সন্ধান পেতে জাতির বিবেক সাংবাদিক সমাজের দ্বারস্ত হয়েছি। আমরা আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের কাছে আমাদের সন্তানদের নিরাপত্তা দাবি করছি। আমাদের আকুল আবেদন, আদালতের নির্দেশনা মোতাবেক তাদের আদালতে উপস্থাপন করা হয়। তাদের যেন নির্যাতন বা কোন ভাবে বিচার বহি:র্ভূত জুলুমের শিকার না হয়।
সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে পরিবারের সদস্যরা জানান, তাদের সন্তানরা কোনো রাজনৈতিক সংগঠনের সাথে জড়িত না। এর পরও তারা যদি সত্যিই কোন অপরাধের সাথে জড়িত থাকে তাহলে তাদেরকে আদালতে বিচারের সম্মুখীন করা হোক। আমরা আপনাদের মাধ্যমে জাতীয় মানবাধিকার সংগঠনসহ দেশী-বিদেশী বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠনের কাছে আমার সন্তানদের আইনের আশ্রয় পাবার অধিকারের ব্যাপারে সোচ্চার হওয়ার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করছি। আমরা অসহায় পিতা মাতা হিসেবে সন্তানদের সন্ধান পেতে সহায়তার জন্য সাংবাদিক, প্রশাসন ও সর্বোপরি সংশ্লিষ্টদের কাছে আকুল আবেদন করছি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ