শনিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

খুলনায় অধিকাংশ বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে স্বয়ংক্রিয় হিসাব কার্যক্রম নেই

খুলনা অফিস : জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের ঘোষণার পরেও খুলনায় বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে স্বয়ংক্রিয় হিসাব কার্যক্রম শুরু করা হয়নি। গত বৃহস্পতিবার থেকে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোতে এই কার্যক্রম চালু করার কথা ছিল। তবে, ব্যবসায়ীরা বলছেন এ বিষয়ে কিছু জানেন না আর কর্মকর্তারা বলেছেন এর মাধ্যমে করদাতা ও সরকার উভয়েরই সুবিধা হবে।
জানা গেছে, গত আগস্ট মাসে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) এর এক আদেশে ১৩ ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ইলেকট্রনিক ফিসক্যাল ডিভাইস (ইএফডি) ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হয়। এক নবেম্বরের রাজস্ব বোর্ডের অপর এক আদেশে সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ইলেকট্রনিক ক্যাশ রেজিস্ট্রার বা ইএফডি ব্যবহার করা পুনরায় বাধ্যতামূলক করা হয়। যে সব প্রতিষ্ঠানে এই স্বয়ংক্রিয় প্রযুক্তি ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে সেগুলো হলো-আবাসিক হোটেল, রেস্তোরাঁ ও ফাস্ট ফুডের দোকান, মিষ্টান্ন ভান্ডার, আসবাবের বিক্রয় কেন্দ্র, পোশাক বিক্রির কেন্দ্র ও বুটিক শপ, বিউটি পার্লার, ইলেকট্রনিক ও ইলেকট্রিক্যাল গৃহস্থালি সামগ্রীর বিক্রয়কেন্দ্র, কমিউনিটি সেন্টার, অভিজাত বিপণিকেন্দ্রের সব প্রতিষ্ঠান, ডিপার্টমেন্টাল স্টোর, সুপার শপ, পাইকারী ও খুচরা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, স্বর্ণকার, রৌপ্যকার, স্বর্ণ-রৌপ্যের দোকানদার এবং স্বর্ণ পাকাকারী। কিন্তু জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের আঞ্চলিক কর্মকর্তাদের তেমন কোনো চাপ না থাকায় এ ধরনের কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হয় না। এমনকি খরচ বৃদ্ধির কথা চিন্তা করেও এ কার্যক্রমের বাস্তবায়ন করা হয় না বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।
সরেজমিন মহানগরীর বড় বাজার, নিউমার্কেট, জলিল মার্কেটসহ যে সকল প্রতিষ্ঠানে ইএফডি বাধ্যতামূলক করা হয়েছে এমন প্রতিষ্ঠান ঘুরে ইএফডি’র ব্যবহার দেখা যায়নি। তবে কয়েকটি প্রতিষ্ঠান এই স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতি দ্রুতই ব্যবহার করার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। বড় বড় দুই একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে এমন ব্যবস্থা থাকলেও খুচরা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান শূন্যের কোটায়।
বড় বাজারের ব্যবসায়ী সোহেল হোসেন বলেন, স্বয়ংক্রিয় হিসাব ব্যবস্থা সম্পর্কে তিনি অবগত নন। বাৎসরিক হাতে-কলমে হিসাবের মাধ্যমে কর দেয়া হয়। স্বয়ংক্রিয় হিসাব ব্যবস্থা সম্পর্কে কর্মকর্তারা কখনও কিছু বলেননি। নিউমার্কেটের ব্যবসায়ী আলী হোসেন বলেন, স্বয়ংক্রিয় হিসাব রাখার সরঞ্জাম কিনতেও অর্থ লাগে। খরচ বেশি হয়। যার কারণে খুব একটা আগ্রহ নেই।
এ ব্যাপারে কর অঞ্চল খুলনার কর কমিশনার মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, স্বয়ংক্রিয় হিসাব ব্যবস্থার মাধ্যমে ব্যবসায়ী ও রাজস্ব আদায়ে সুবিধা হয়। এর মাধ্যমে হিসাবের তেমন ঝামেলা না থাকায় আগেই কর সংগ্রহ করা যায়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ