শনিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

গায়েবি মামলায় গণগ্রেফতার ও হয়রানি বন্ধ করুন ---অধ্যক্ষ এস এম সানাউল্লাহ

গাজীপুর সংবাদদাতা : গত এক সপ্তাহে গাজীপুর মহানগরের বিভিন্ন স্থান থেকে থানা পুলিশ ও মহানগর গোযন্দো পুলিশ জামায়াত-শিবির ও বিএনপিসহ বিরোধী দলের প্রায় অর্ধশত নেতা-কর্মীকে আটক করেছে বলে এক বিবৃতিতে দাবি করেছেন গাজীপুর মহানগর জামায়াতের আমীর ও কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য অধ্যক্ষ এস এম সানাউল্লাহ।পুলিশের এহেন বেআইনি ও অনৈতিক কর্মকা-ের তীব্র নিন্দা জানিয়ে সোমবার এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, জুলুম-নির্যাতন চালিয়ে কোন লাভ নেই, স্বৈরাচারের পতন এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র। তবুও দাবি জানাই, অবিলম্বে বেআইনি গণগ্রেফতার ও অনৈতিক হয়রানি বন্ধ করুন। অন্যথায় জনতার আদালতে আপনাদের বিচারও অনিবার্য।

মহানগর জামায়াতের আমীর অধ্যক্ষ এস এম সানাউল্লাহ ও সেক্রেটারি খায়রুল হাসান যুক্ত বিবৃতিতে আরো বলেন,, পতনের আগে মরণ কামড় দিচ্ছে স্বৈরাচারের পুলিশবাহিনী। তারা কোন আইনকানুন ও নীতি-নৈতিকতার ধার ধারছে না। নিরীহ বিরোধী কর্মীদের আটকের পর তাদের বিরুদ্ধে গায়েবি মামলায় বিস্ফোরক দ্রব্যের আইনে মিথ্যা মামলা দিয়ে ককটেল-বোমা উদ্ধারের নাটক সাজিয়ে রিমান্ডে নিয়ে নির্মম নির্যাতন চালাচ্ছে। অনেককে গ্রেফতারের পর আদালতে হাজির না করে বেআইনিভাবে নিজেদের হেফাজতে রেখে আটকের কথা অস্বীকার করছে। একটি রাষ্ট্রীয় বাহিনীর কাছ থেকে এমন আচরণ জাতির জন্য চরম দুর্ভাগ্যের বিষয়।

বিবৃতিতে তিনি আরো বলেন, গ্রেফতারকৃতদের অনেকের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা নিয়ে তাদের ছেড়ে দেয়া হয়েছে । যারা মোটা অংকের চাহিদা মেটাতে পারেনি তাদেরকে গায়েবি মামলার আসামি বানিয়ে রিমান্ডে নেওয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। গ্রেফতারের এক সপ্তাহ পরও তিন ছাত্র এখনো নিখোঁজ রয়েছেন বলে বিবৃতিতে জানানো হয় । এছাড়া রোববার রাতে ৪৯ নং ওয়ার্ড জামায়াতের আমীর ও সাবেক কাউন্সিলর প্রার্থী ডাঃ তাজুল ইসলামকে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে আটক করে নিয়ে গেছে গোয়েন্দা পুলিশ। এর কিছুক্ষণ পর ৫৪ নং ওয়ার্ডের কলেজ একাডেমি শাখা জামায়াতের সভাপতি আতিকুর রহমান মুকুলকে সাদা পোশাকধারি বাহিনী তুলে নিয়ে গেছে। আগের দুদিনে গাছা থানা জামায়াতের সেক্রেটারি সাবেক কাউন্সিলর প্রার্থী আলহাজ মিয়াজউদ্দিন মাস্টার ও পুবাইল থানা জামায়াতের ওয়ার্ড সভাপতি তোফাজ্জল হোসেনসহ কয়েকজনকে গ্রেফতার করেছে বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়। এদিকে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের (জিএমপি) গোয়েন্দা শাখার ওসি শেখ শাহীনুর রহমান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রবিবার রাত ১১টার দিকে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের টঙ্গীর এরশাদ নগর এলাকার একটি ফামের্সিতে অভিযান চালায় জিএমপি’র গোয়েন্দা পুলিশ। এসময় সেখান থেকে জামায়াত নেতা ডা তাজুল ইসলাম ও আতিকুল ইসলাম মুকুলকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে ডা তাজুল ইসলামের বিরুদ্ধে ৩টি এবং মুকুলের বিরুদ্ধে ৪টি নাশকতার অভিযোগে টঙ্গী থানায় মামলা রয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ