শনিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

শরীয়তপুরে যুবলীগ নেতার মামলায় বিএনপির ১৫ নেতাকর্মীর জামিন 

শরীয়তপুর সংবাদদাতা : শরীয়তপুরে বিএনপির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সভাস্থলে হামলার ঘটনাকে কেন্দ্র করে এক যুবলীগ নেতার মামলায় বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য, শরীয়তপুর জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক এমপি আলহাজ্ব শফিকুর রহমান কিরণ ও জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সাঈদ আহমেদ আসলামসহ ১৫ নেতাকর্মীর জামিন আবেদন মঞ্জুর করেছে শরীয়তপুর জেলা ও দায়রা জজ আদালত। আজ সোমবার দুপুর ১২টায় জামিন শুনানী শেষে আতালতের বিচারক সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ মোঃ আতাউর রহমান তাদের জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন। 

পালং মডেল থানার মামলা ও বিএনপির দলীয় সুত্রে জানাগেছে, বিএনপির ৪০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে জেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক সরদার নাসির উদ্দিন কালুর ধানুকা বাস ভবনের সামনের চত্বরে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর অনুষ্ঠান চলাকালে কতিপয় আওয়ামী ছাত্রলীগ-যুবলীগের নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে সভাস্থলে হামলা করে। এক পর্যায়ে উভয় গ্রুপের মধ্যে দফায় দফায় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। এতে উভয় পক্ষের অন্তত ৩০ জন আহত হয়। এ সময় জেলা বিএনপির সভাপতি, বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সাবেক এমপি আলাহাজ্ব শফিকুর রহমান কিরন, সাংগঠনিক সম্পাদক সাঈদ আহমেদ আসলামসহ ৩ শতাধিক নেতাকর্মী ৩ ঘন্টা অবরুদ্ধ থাকে। ঘটনার ২ দিন পর শরীয়তপুর সদর উপজেলা যুবলীগ নেতা আমির আলী সরদার ৩ সেপ্টেম্বর জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক এমপি শফিকুর রহমান কিরণকে প্রধান এবং সাংগঠনিক সম্পাদক সাঈদ আহমেদ আসলামসহ বিএনপি, যুবদল ও ছাত্রদলের ৭৯ জন নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে পালং মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করে। এ ছাড়াও মামলায় আরো ২শ’ থেকে /২শ’৫০ জন অজ্ঞাত নামা আসামী উল্লেখ করা হয়। এ মামলায় কিরণ ও আসলামসহ ১৫ নেতাকর্মীর উচচ্চ আদালত থেকে ৪ সপ্তাহের জামিন শেষ হওয়ার পর আজ সোমবার আইনজীবীর মাধ্যমে আদালতে হাজির হয়ে শরীয়তপুর জেলা ও দায়রা জজ আদালতে জামিন আবেদন করেন। আদালতের বিচারক সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ মোঃ আতাউর রহমান ৫ হাজার টাকা বন্ডে ও আইনজীবীর জিম্মায় তাদের জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন। এর আগে এ মামলার ১৫ জন নেতাকর্মী উচচ্চ আদালত থেকে ৪ সপ্তাহের জামিনে ছিলেন। বর্তমানে মামলাটির সকল আসামী জামিনে রয়েছেন।  জামিনের পক্ষে শুনানীতে অংগ্রহন করেন, এডভোকেট জাহাঙ্গীর আলম কাশেম, এডভোকেট মনিরুজ্জামান খান দিপু, এডভোকেট লুৎফর রহমান ঢালী, এডভোকেট মোসলেম খান, এডভোকেট সিরাজুল হক আকন্দ, এডভোকেট সেলিম আহমেদ, এডভোকেট মনোয়ার হোসেন, এডভোকেট শাহাদাত হোসেনসহ আরো অনেক আইনজীবী। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন, পিপি এডভোকেট মির্জা হযরত আলী সাইজী। 

আসামী পক্ষের শুনানীতে অংশ নেয়া আইনজীবী ও জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মনিরুজ্জামান খান দিপু বলেন, মহামান্য হাইর্কোট থেকে ১৫ জন নেতাকর্মী এ মামলায় ৪ সপ্তাহের জামিনে ছিলেন। হাইকোর্টের জামিনের মেয়াদ শেষ হওয়ায় বিজ্ঞ আদালতে হাজির হয়। আদালতের বিচারক সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ মোঃ আতাউর রহমান ৫ হাজার টাকা বন্ডে ও আইনজীবীর জিম্মায় তাদের জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন। এতে আমরা সন্তুষ্ট।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ