শুক্রবার ০৭ আগস্ট ২০২০
Online Edition

তরুণদেরকেই নতুনের কেতন ওড়াতে হবে হতাশা নয় নিজের প্রতি আস্থা বাড়াতে হবে

চট্টগ্রাম ব্যুরো : আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম (আইআইইউসি) এর ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর কে.এম. গোলাম মহিউদ্দিন বলেছেন, তরুণদেরকেই নতুনের কেতন ওড়াতে হবে হতাশ না হয়ে নিজের প্রতি আস্থা বাড়াতে হবে। শ্রম ও নিষ্ঠা থাকলে হতাশা গ্রাস করতে পারবে না।

কুমিরাস্থ স্থায়ী ক্যাম্পাসে আইআইইউসি‘র স্টুডেন্ট এ্যাফেয়ার্স ডিভিশন (স্ট্যাড) আয়োজিত শরৎকালীন সেমিস্টার-২০১৮-এর নবাগত ছাত্রদের ৪৭তম ব্যচের ওরিয়েন্টেশন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আইআইইউসি‘র ভাইস চ্যান্সেলর এ অভিমত ব্যক্ত করেন। আইআইইউসি‘র ট্রেজারার প্রফেসর ড. আবদুল হামিদ চেšধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ আয়োজনে বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন, আইআইইউসি’র বোর্ড অব ট্রাস্টিজের ভাইস চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. কাজী দ্বীন মোহাম্মদ। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, বিজ্ঞান ও প্রকৌশল অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. মোঃ দেলাওয়ার হোসেন, কলা ও মানবিক অনুষদের ডীন প্রফেসর মুহাম্মদ হুমায়ুন কবীর, ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. মুহাম্মদ মাহবুবুর রহমান, শরী‘য়াহ অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. শাফিউদ্দীন মাদানী, আইআইইউসি‘র রেজিস্ট্রার কর্নেল মোহাম্মদ কাসেম পিএসসি (অবঃ) এবং স্বাগতঃ বক্তব্য রাখেন স্টুডেন্ট এ্যাফেয়ার্স ডিভিশনের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক মোহাম্মদ মামুনুর রশীদ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন স্ট্যাড এর অতিরিক্ত পরিচালক কবি চৌধুরী গোলাম মাওলা এবং স্টাফ ডেভলাপমেন্ট এন্ড সটুডেন্ট ওয়লফেয়ার ডিভিশনের অতিরিক্ত পরিচালক মুহাম্মদ মাহফুজুর রহমান।

 প্রধান অতিথির বক্তব্যে আইআইইউসি’র ভিসি প্রফেসর কে. এম গোলাম মহিউদ্দিন বলেন, শিক্ষার্থীদেরকে যোগাযোগ দক্ষতা বাড়াতে হবে। ইংরেজী জানার কোন বিকল্প নেই। জব মার্কেটে, পেশার জগতে নিজেকে যোগ্য করে তুলতে হবে। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশ করেই ক্যারিয়ার প¬্যানিং করতে হবে, বিশ্ববিদ্যালয়ই জীবনের লক্ষ্য ঠিক করে দেবে। তিনি আরও বলেন, দেশের আর্থিক খাতে অস্থিরতা বিরাজ করছে, হত দরিদ্রদের কাছে উন্নয়নের সুফল পৌঁছুচ্ছে না। দক্ষ জনশক্তি গড়ে উঠছে না।এর প্রধান কারণ শিক্ষিত লোকের দুর্নীতি। তিনি ছাত্রদের উদ্দেশে বলেন, এই জীবন শুধু জীবন নয়, আরেকটা জীবন অপেক্ষা করছে, সেই জীবনে উত্তীর্ণ হতে হবে।

 বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আইআইইউসি’র বোর্ড অব ট্রাস্টিজের ভাইস চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. কাজী দ্বীন মুহাম্মদ বলেন, মনিষী মনিরুজ্জামান ইসলামাবাদী চট্টগ্রামে একটি ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন দেখেছিলেন। আমরা তাঁর সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন করেছি। আমরা এই বিশ্ববিদ্যালয়কে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার মধ্যে একটি শ্রেষ্ঠ বিশ্ববিদ্যালয় হিসাবে গড়ে তুলবো। তিনি বলেন, বৈশিষ্ট্যগত কারণে আইআইইউসি একটি ব্যতিক্রমধর্মী বিশ্ববিদ্যালয়। অন্ধকার দূর করার জন্য এই বিশ্ববিদ্যালয়, দুর্নীতির বিরুদ্ধে এই বিশ্ববিদ্যালয়, শ্বাশ্বত মূল্যবোধকে ধারণ ও লালন করার জন্য এই বিশ্ববিদ্যালয়। বাণিজ্য কিংবা মুনাফা করার জন্যে এই বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে তোলা হয় নি। তিনি বলেন, এই বিশ্ববিদ্যালয়েই কেবল একটি বিভাগ আছে যার মাধ্যমে ছাত্র, শিক্ষক, কর্মকর্তাদের বৃত্তি প্রদান করা হয় এবং উচ্চতর শিক্ষার্জন এবং গবেষণাকর্মকে পৃষ্ঠপোষকতা প্রদান করা হয় এবং মুক্তিযোদ্ধাদের সন্তানদের শতভাগ বিনাবেতনে অধ্যয়নের সুযোগ দেয়া হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ