বৃহস্পতিবার ০২ জুলাই ২০২০
Online Edition

খুলনায় বিএনপির মানববন্ধন 

খুলনা : বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রায়ের প্রতিবাদে গতকাল বুধবার সকালে খুলনা মহানগর বিএনপি দলীয় কার্যালয়ের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে

 

খুলনা অফিস : বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে সাজা প্রদানের প্রতিবাদে ও মুক্তির দাবিতে গতকাল বুধবার বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১২ টা পর্যন্ত দলীয় কার্যালয়ের সামনে মহানগর বিএনপির উদ্যোগে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে। তবে, কর্মসূচির শেষ পর্যায়ে দলীয় কার্যালয়ের পাশে থানার সামনে দিয়ে যাওয়ার সময় পুলিশ বিএনপি’র কর্মী আখতার হোসেন, রিপন হোসেন, আমজাদ হোসেন ও রানাকে গ্রেফতার করেছে। 

বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও নগর সভাপতি সাবেক এমপি নজরুল ইসলাম মঞ্জুর সভাপতিত্বে বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান মুরাদের পরিচালনায় মানববন্ধনে বক্তৃতা করেন শেখ মুজিবর রহমান, মীর কায়সেদ আলী, শেখ মোশারফ হোসেন, জাফরউল্লাহ খান সাচ্চু, রেহানা আক্তার, শাহজালাল বাবলু, স ম আব্দুর রহমান, শেখ ইকবাল হোসেন, ফখরুল আলম, অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, আমজাদ হোসেন, অধ্যাপক আরিফুজ্জামান অপু, সিরাজুল হক নান্নু, মাহবুব কায়সার, নজরুল ইসলাম বাবু, মেহেদী হাসান দীপু, মহিবুজ্জামান কচি, শফিকুল আলম তুহিন, শাহিনুল ইসলাম পাখী, আজিজুল হাসান দুলু, ইকবাল হোসেন খোকন, সাদিকুর রহমান সবুজ, শেখ সাদী, সাজ্জাত হোসেন তোতন, মুর্শিদ কামাল, মাসুদ পারভেজ বাবু, কে এম হুমায়ুন কবির, একরামুল হক মিল্টন, হাসানুর রশিদ মিরাজ, আব্দুল আজিজ সুমন, শামসুজ্জামান চঞ্চল, মাহবুব হাসান পিয়ারু, নাজমুল হুদা চৌধুরী সাগর, শফিকুল ইসলাম শাহিন, কামরান হাসান, শরিফুল ইসলাম বাবু, হেলাল আহমেদ সুমন, নিয়াজ আহমেদ তুহিন, হাফিজুর রহমান মনি, হাফিজুর রহমান মনি, ইমাম হোসেন প্রমুখ।  অপরদিকে সকাল ১০ টায় নগরীর কেডি ঘোষ রোডে দলীয় কার্যালয়ের সামনে জেলা বিএনপির উদ্যোগে বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও জেলা সভাপতি এডভোকেট এস এম শফিকুল আলম মনার সভাপতিত্বে কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন অধ্যাপক ডা. গাজী আব্দুল হক, মনিরুজ্জামান মন্টু, মনিরুল হাসান বাপ্পী, কামরুজ্জামান টুকু, চৌধুরী কওসার আলী, মেজবাউল আলম, সাইফুর রহমান মিন্টু, আবুল খয়ের খান, মোল্লা খায়রুল ইসলাম, আব্দুর রকিব মল্লিক, মোস্তফা উল বারী লাভলু, অধ্যাপক মনিরুল হক বাবুল, এডভোকেট তছলিমা খাতুন ছন্দা, এডভোকেট শহিদুল আলম, মুর্শিদুর রহমান লিটন, ওয়াহিদুজ্জামান রানা, মোল্লা এনামুল কবির, শামীম কবির, তৈয়েবুর রহমান, উজ্জল কুমার সাহা, ইলিয়াস মল্লিক, আতাউর রহমান রনু, আব্দুল মান্নান মিস্ত্রি, গোলাম মোস্তফা তুহিন, সুলতান মাহমুদ, মশিউর রহমান যাদু, মোল্লা সাইফুর রহমান, রবিউল হোসেন, সাইফুল হাসান রবি, আরিফুর রহমান প্রমুখ। 

মানববন্ধনে নেতৃবৃন্দ বলেছেন, সরকার বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে অত্যন্ত সুপরিকল্পিতভাবে রাজনীতি থেকে দূরে সরিয়ে রাখতে এবং আসন্ন নির্বাচনে যাতে অংশ নিতে না পারে, সে জন্য মিথ্যা মামলা দিয়ে তাঁকে সাজা দিয়ে কারাগারে আটক রেখেছে। জামিন পেলেও তাঁকে জামিন দেওয়া হয়নি। একটার পর একটা মিথ্যা মামলা দিয়ে তাঁকে কারাগারে আটক রাখা হয়েছে। বেগম খালেদা জিয়া ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। সরকার যা বলছেন আদালতে তার প্রতিফলন হয়েছে। আমরা এ রায় প্রত্যাখ্যান করছি। তিনি বলেন, খালেদা জিয়া ও বিরোধী দল ছাড়া আগামী জাতীয় নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হবে না। তাই মুক্ত খালেদা জিয়াকে নিয়ে আমরা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে চাই। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সাত দফা সরকারকে মানতে হবে। খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে দিতে হবে। তার মুক্তি না হলে কোনও নির্বাচনই অর্থবহ হবে না। 

মানববন্ধনে নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, আপিল বিভাগে খালেদা জিয়ার সাজা বাড়বে এটা আমরা কখনও আশা করিনি। এটা নজিরবিহীন ও রাজনৈতিক উদ্দেশ্যমূলক। এর একমাত্র উদ্দেশ্য হলো, আগামীতে যে নির্বাচন হতে যাচ্ছে, সেখানে খালেদা জিয়া, বিএনপিসহ বিরোধীদলকে বাইরে রাখা। বিএনপি ও বিরোধী দল ছাড়া আগামীতে কোনও নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হবে না। দেশের মানুষ হতে দেবে না। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইভিএম মেশিনে নির্বাচন বন্ধ, অবাধ সুষ্ঠু গ্রহণযোগ্য নির্বাচন ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন অনুষ্ঠানের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করার দাবি জানান। বিগত সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ভোট ডাকাতিতে সহায়তাকারী আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর বিতর্কিত সদস্যদের অপসারণ করতে হবে। একই সাথে গণগ্রেফতার, ভীতি মুক্ত ও বাধাহীন পরিবেশে নির্বাচনের প্রস্তুতি গ্রহণের দাবি জানান নেতৃবৃন্দ। 

আরো বলেন, শেখ হাসিনা সরকার ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে পড়েছে। তাই একের পর এত মিথ্যা মামলায় বিচারের নামে প্রহসনের সাজানো-পাতানো রায়ে বেগম খালেদা জিয়াকে নির্বাচন থেকে দূরে সরিয়ে রাখছে। এতে শেষ রক্ষা হবে না। গত দশ বছরে যত লুটপাট হয়েছে বাংলাদেশের মাটিতেই তার বিচার হবে। বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে সাজানো পাতানো ষড়যন্ত্রমূলক রায় বাতিল ও নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানানো হয়। নেতৃবৃন্দ বলেন, নির্বাচনের আগে সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে। সংসদ ভেঙে দিতে হবে এবং নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করতে হবে। একইসঙ্গে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন দিতে হবে। সবার আগে শর্ত হচ্ছে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ