শনিবার ১১ জুলাই ২০২০
Online Edition

তৃতীয় দিনেই ঢাকা বিভাগের কাছে ইনিংসে হার মেট্রোর

স্পোর্টস রিপোর্টার : জাতীয় ক্রিকেট লিগে পঞ্চম রাউন্ডের তৃতীয় দিনেই জয় পেয়েছে ঢাকা বিভাগ। গতকাল ঢাকা বিভাগ ইনিংস ও ১৬১ রানে হারায় ঢাকা মেট্রোটে। বগুড়ায় জাতীয় ক্রিকেট লিগের দ্বিতীয় স্তরের ম্যাচে প্রথম ইনিংসের মতো ব্যাটিং ব্যর্থতায় দ্বিতীয় ইনিংসে খুব বেশি দূর যেতে পারেনি ঢাকা মেট্রো। ফলে ঢাকা বিভাগের কাছে এক ইনিংস ও ১৬১ রানে  হেরেছে ঢাকা মেট্রো। প্রথম ইনিংসে ঢাকা বিভাগের ৩২৯ রানের বড় লিডের জবাবে আগের দিনই ৫৯ রানে ২ উইকেট হারায় মেট্রো। এদিন শুধু ওপেনার সাদমান ইসলাম প্রতিরোধের দেওয়াল লম্বা করতে পারেন শুধু। তার ব্যাট থেকে আসে সর্বোচ্চ ৬৬ রান। মোহাম্মদ আশরাফুল কিছুটা সঙ্গ দিলেও সাদমানের বিদায়ের পর থিতু হননি বেশিক্ষণ। ৩৪ করে সাজঘরে ফেরেন মোশাররফ হোসেনের বলে বোল্ড হয়ে। দিনের বাকিটা সময় আর লড়াকু ব্যাটিং দেখা যায়নি কারো মাঝে। 

মোশাররফ, তাইবুরদের বোলিংয়ে মেট্রো গুটিয়ে যায় ১৬৬ রানে। সবল হাতে ঢাকা বিভাগের বোলাররা ভুগিয়েছে মেট্রোকে। ১০ ওভারে ৩১ রান দিয়ে সর্বোচ্চ ৪ উইকেট নেন তাইবুর রহমান। তিনটি নেন মোশাররফ হোসেন, দুটি নিয়েছেন শুভাগত হোম। ঢাকা বিভাগকে বোনাস পয়েন্ট না দিতে ৮ উইকেটে ৫৯ রানে প্রথম ইনিংস ঘোষণা করেছিল ঢাকা মেট্রো। জবাবে ঢাকা বিভাগ রনি তালুকদারের ৮৬ ও শুভাগত হোমের ১০৬ রানের সুবাদে ৩৮৬ রান করে প্রথম ইনিংসে। অলরাউন্ড পারফর্ম করে ম্যাচসেরা হন শুভাগত। এদিকে অপর ম্যাচে রাজশাহীর স্পিনার সানজামুল ইসলামকে জবাব দিলেন রংপুরের দুই মিডিয়াম ফাস্ট বোলার রবিউল হক ও শুভাশীষ রায়। তাদের নৈপুণ্যে জাতীয় ক্রিকেট লিগের (এনসিএল) পঞ্চম রাউন্ডে প্রথম স্তরের দুই শীর্ষ দলের লড়াইয়ে এগিয়ে আছে রংপুর। সানজামুল ৭ উইকেট নিয়ে রংপুরকে প্রথম ইনিংসে ৩৩৬ রানে গুটিয়ে দেন। আর রবিউল ও শুভাশীষের বোলিংয়ে ২৪৮ রানে অলআউট হয় রাজশাহী। ৮৮ রানের লিড নিয়ে দ্বিতীয় ইনিংস  খেলতে নেমে ১ উইকেটে ২০ রান করে তৃতীয় দিনের খেলা শেষ করেছে স্বাগতিক রংপুর। আগের দিন রাজশাহী খেলা শেষ করে ২ উইকেটে ৬৪ রানে। ৩৫ রানে জুনায়েদ সিদ্দিকী ও ১৯ রানে ফরহাদ হোসেন খেলতে নামেন। শুভাশীষের বলে ২ রানের আক্ষেপ নিয়ে মাঠ ছাড়েন জুনায়েদ। ৪৮ রান করেন তিনি। তারপর অধিনায়ক জহুরুল ইসলামকে নিয়ে ৯০ রানের জুটি গড়ার পথে হাফসেঞ্চুরি করেন ফরহাদ। রবিউলের এক ওভারে ফরহাদ ও সাব্বির রহমান বিদায়  নেন। তাতে ভেঙে পড়ে রাজশাহীর প্রতিরোধ বুহ্য। ফরহাদ ৭১ রানে আউট হন। শুভাশীষ তার মিডিয়াম পেসে আর দাঁড়াতে দেননি রাজশাহীকে। আরও ৩ উইকেট নেন তিনি। রংপুরের হয়ে চারটি করে উইকেট নেন শুভাশীষ ও রবিউল। ইনিংসের নবম ওভারে রংপুরের ওপেনার ফারদিন হাসান অমি ১৮ রানে আউট হলে দিনের শেষ ঘোষণা করা হয়। রাকিন আহমেদ ১ রানে অপরাজিত ছিলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ