শুক্রবার ০৫ জুন ২০২০
Online Edition

ঝুঁকিপুর্ণ গাইবান্ধা রেল স্টেশনের নতুন ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণের উদ্যোগ নেই

গাইবান্ধা: সংস্কার না হওয়ায় নতুন ফুট ওভার ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে

গাইবান্ধা সংবাদদাতা: গাইবান্ধা রেল স্টেশনের পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের শান্তাহার-লালমনিরহাট রেল রুটের ফুটওভার ব্রিজটি ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় মানুষের চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। অত্যন্ত প্রয়োজনীয় হলেও ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণার নয় মাস পেরিয়ে গেলেও ফুটওভার ব্রিজটি নির্মাণের কোনো উদ্যোগ নেয়নি কর্তৃপক্ষ। এছাড়া বোনারপাড়া জংশনের ফুটওভার ব্রিজটির বেশ কিছু স্থানে কংক্রিটের পাটাতনের নিচের পলাস্টার খসে লোহা বের হয়ে গেলেও ফুটওভার ব্রিজটিকে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা বা ক্ষতিগ্রস্ত অংশ মেরামতের কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি।
গাইবান্ধা রেল স্টেশন ও বোনারপাড়া জংশনসহ রেল বিভাগ সূত্র জানায়, ১৯০৫ সালে সাঘাটা উপজেলার বোনারপাড়া থেকে গাইবান্ধার ওপর দিয়ে রংপুরের কাউনিয়া পর্যন্ত একটি মিটারগেজ রেলপথ চালু করা হয়। গাইবান্ধা রেল স্টেশনের ফুটওভার ব্রিজটি সত্তর দশকেরও বেশি সময় আগে আর বোনারপাড়া জংশনের বর্তমান ফুটওভার ব্রিজটি ১৯৯৭-১৯৯৮ সালে নির্মাণ করা হয়। স্টেশনে ট্রেন দাঁড়ানো থাকলে মানুষের চলাচল সহজ ও নিরাপদ করতে ফুটওভার ব্রিজ দুইটি নির্মাণ করা হয়। কিন্তু নয় মাস আগে পাবনার পাকশী রেল বিভাগের ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ার এসে গাইবান্ধার ফুটওভার ব্রিজটিকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে ঘোষণা করেছেন। এরপর ব্রিজটির দুইপাশেই রাস্তা বন্ধ লিখে বাঁশ দিয়ে আটকে দেয়া হয়। কিন্তু বোনারপাড়া জংশনের ফুটওভার ব্রিজটির বিষয়ে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।
জানা যায়, গাইবান্ধা রেল স্টেশনের ফুটওভার ব্রিজটির কংক্রিটের পাটাতনের নিচের পলাস্টার খসে গেছে। একই অবস্থা বোনারপাড়া জংশনের ফুটওভার ব্রিজটিরও। গাইবান্ধা রেল স্টেশনের ফুটওভার ব্রিজটিতে ওঠার সময় বাঁশ দিয়ে চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়। বর্তমানে স্টেশনে ট্রেন দাঁড়িয়ে থাকার সময় মানুষ অনেক ঘুরে ট্রেনের সামনে দিয়ে কিংবা বগির ভেতর দিয়ে বা মাঝখানের ফাঁকা জায়গা দিয়ে চলাচল করতে হয়। আর বোনারপাড়া জংশনে ফুটওভার ব্রিজটি ওপর দিয়েই মানুষ ঝুঁকিপূর্ণভাবে চলাচল করছে। বিভিন্ন সময়ে গাইবান্ধা রেল স্টেশনের ফুটওভার ব্রিজটির কংক্রিটের পাটাতনের নিচের পলাস্টার খসে পড়ে। এই ফুটওভার ব্রিজটি অনেক পুরোনো হওয়ায় যে কোনো সময় ভেঙ্গে প্রাণহানীর ঘটনা ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। তাই দ্রুত নতুন আরেকটি ব্রিজ নির্মাণের দাবি করেছেন ভুক্তভোগীরা।
 বোনারপাড়া জংশনের স্টেশন মাস্টার খলিলুর রহমান বলেন, ফুটওভার ব্রিজটির দায়িত্ব আমাদের না। সেটি পিডাবিলউ অফিসের আওতাধীন।
গাইবান্ধা রেল স্টেশনের মাস্টার মো. আবুল কাশেম বলেন, পাকসী রেলওয়ের ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ার এসে ফুটওভার ব্রিজটিকে ঝুঁকির্পূণ ঘোষণা করেছেন। একটি নতুন ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণের জন্য পাকসী ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারের কাছে আবেদন করা হয়েছে। নতুন ব্রিজ নির্মাণের অনুমতি এখনও পাওয়া যায়নি।
এ বিষয়ে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের পাকশী ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ার আরিফুল ইসলামের মোবাইলে ফোন বেশ কয়েকবার কল দিয়েও তাকে পাওয়া যায়নি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ