শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

ড্রাফটের আগ মুহূর্তে মুশফিককে নিল চিটাগং ভাইকিংস

স্পোর্টস রিপোর্টার : বিপিএলের প্লেয়ার্স ড্রাফটের আগে মুশফিকুর রহিমকে নিয়েই ছিল যত আলোচনা। তবে বিপিএলের ড্রাফট শুরু হওয়ার আগেই মুশফিকের ব্যাপারে সিদ্ধান্তে পৌঁছেছে চিটাগং ভাইকিংস। রাজশাহী ছেড়ে দেয়ায় চিটাগং ভাইকিংসের সামনে মুশফিককে দলে নেয়ার সুযোগ ছিল। কিন্তু চট্টগ্রামের দলটি দেশসেরা উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যানকে শুরুতে নিতে রাজি ছিলো না। আচমকা ড্রাফট শুরুর আগে দলটি মুশফিককে নেওয়ার ব্যাপারে তাদের সিদ্ধান্তের কথা জানায়। বিপিএল গবর্নিং কাউন্সিলও তা মেনে নিয়েছে। ‘এ’ প্লাস ক্যাটাগরিতে আগেই ঠিক করা ছিল ঢাকা ডায়নামাইটসে সাকিব আল হাসান, খুলনা টাইটানসে মাহমুদউল্লাহ, রংপুর রাইডার্সে মাশরাফি বিন মুর্তজা, সিলেট সিক্সার্সে লিটন দাস, রাজশাহী কিংসে মোস্তাফিজুর রহমান এবং কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের জার্সিতে তামিম ইকবাল খেলবেন। নিয়ম অনুযায়ী বিপিএলের প্রতিটি দল দেশী-বিদেশীসহ গতবারের চার জনকে ধরে রাখার পাশাপাশি দুইজন করে বিদেশী খেলোয়াড় ড্রাফটের বাইরে থেকে অন্তর্ভুক্ত করতে পেরেছে। গত আসরে মুশফিক আইকন হিসেবে ছিলেন রাজশাহী কিংসে। কিন্তু এবার তাকে দলে রাখেনি রাজশাহী, বরং আইকন হিসেবে নেয় মোস্তাফিজুর রহমানকে। গতবার ১২ ম্যাচে ১৪৬ রান করা মুশফিককে তাই অপেক্ষায় থাকতে হয়েছে। ফলে আইকন হওয়া সত্ত্বেও ড্রাফটে নাম ওঠার কথা ছিল মুশফিকুর রহীমের। কিন্তু গতকাল সকালে প্লেয়ার্স ড্রাফট শুরু হওয়ার আগেই নতুন নাটকীয়তা তৈরি হয়। মুশফিকের সঙ্গে চুক্তি করলো চট্টগ্রাম ভাইকিংস। প্লেয়ার্স ড্রাফট শুরু হওয়ার আগেই ‘এ প্লাস’ ক্যাটাগরিতে থাকা মুশফিকের সঙ্গে সর্বোচ্চ মূল্যে চুক্তি করেছে চট্টগ্রামের ফ্রাঞ্চাইজি। ‘এ প্লাস’ ক্যাটাগরির মূল্য ছিল ৪০ লাখ থেকে ৭৫ লাখ টাকা। সে হিসাবে মুশফিক পাচ্ছেন ৭৫ লাখ টাকা। তবে এটা শুধুই চুক্তির মূল্য। এর মধ্যে বোনাস কিংবা হিডেন কোনো কিছু যুক্ত নেই।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ