শুক্রবার ২১ জানুয়ারি ২০২২
Online Edition

হত্যার কারণ এখনো রহস্যাবৃত্ত কেউ গ্রেফতার হয়নি

নারায়ণগঞ্জ সংবাদদাতা: নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে গুলীবিদ্ধ চার যুবকের লাশ উদ্ধারের ঘটনায় গত ৪৮ ঘন্টায় হত্যার কারণ ও খুনীদের শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ। কী কারণে কারা, কেন এই হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটিয়ে তা উদঘাটন করতে পারেনি পুলিশ। এদিকে পুলিশের দায়ের করা দুটি মামলার তদন্তেও কোন অগ্রগতি নেই। পুলিশ নিহতদের সর্ম্পকে মামলারও কোন তথ্য দিতে পারেনি। ডিবি পুলিশ পরিচয়ে তাদেরকে তুলে নেয়ার অভিযোগ অস্বীকার করেছে পুলিশ। এখনো নিখোঁজ রয়েছে লিটন নামের একজন। তার কোন খোঁজ মেলেনি।

এ বিষয়ে জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম জানিয়েছেন, গুলীবিদ্ধ চার জনের লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। পুলিশ বাদী হয়ে দুটি মামলা দায়ের করেছে। মামলাটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। উদ্ধার হওয়াটি অস্ত্রটি পরীক্ষার জন্য সিআইডিতে পাঠানো হয়েছে। নিহতদের অতীত রেকর্ড রয়েছে কী না খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ধারণা করা হচ্ছে, প্রতিদ্বন্দ্বী গ্রুপ ও প্রতিপক্ষের দ্বন্দ্বে এই ঘটনা ঘটে থাকতে পারে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। তদন্তে শেষে বিষয়টি নিশ্চিত করে বলা যাবে। নিহতের পরিবারের অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি বলেন, ডিবি পুলিশ সেখানো কোন অভিযান চালায়নি। তাদেরকে আটকও করা হয়নি।

উল্লেখ্য, গত রোববার ভোরে আড়াইহাজার উপজেলার পাচরখী এলাকায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের দু’পাশ থেকে চারজনের গুলীবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ঘটনাস্থল থেকে এক রাউন্ড গুলীভর্তি দুটি পিস্তল ও একটি মাইক্রোবাস জব্দ করে। ময়না তদন্ত শেষে চিকিৎসক জানিয়েছেন, পেছন থেকে শর্টগান দিয়ে গুলী করেই তাদেরকে হত্যা করা হয়েছে। 

এই ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে হত্যা ও অস্ত্র আইনে পৃথক দুটি মামলা দায়ের করেছে। নিহতের পরিবার দাবি করেন, ফারুক হোসেন, লিটন, জহিরুল ইসলাম, সবুজ সরদারকে তাদের ডিবি পুলিশ পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। 

মাইক্রোবাস চালক লুৎফর রহমান মোল্লা, বাস চালক ফারুক হোসেন, বেকারী শ্রমিক জহিরুল ইসলাম ও সবুজ সরদারের লাশ শনাক্ত করে স্বজনেরা। তবে লিটন এখনো নিখোঁজ রয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ