বুধবার ১২ আগস্ট ২০২০
Online Edition

জেএসসিতে খুলনা মহানগরীর আসন সঙ্কট!

খুলনা অফিস : খুলনা মহানগরীতে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট-জেএসসি পরীক্ষায় আসন সঙ্কট দেখা দিয়েছে। নতুন একটি কেন্দ্র করার পরও আসন সঙ্কট রয়েছে। সঙ্কট নিরসনের জন্য ইসলামাবাদ কলেজিয়েট স্কুলকে কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহারের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

অপরদিকে, যশোর শিক্ষা বোর্ড একটি কেন্দ্রে পরীক্ষা স্থগিত করেছে। জেএসসি ও সমমানের পরীক্ষা পরিচালনা কমিটির সভায় আসন সঙ্কটের বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে। ১ নবেম্বর থেকে জেএসসি পরীক্ষা শুরু হবে।

পল্লীমঙ্গল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সভায় উল্লেখ করেন, যশোর বোর্ড এইচআরএইচ প্রিন্স আগাখান মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র স্থগিত করেছে। এই কেন্দ্রের পরীক্ষার্থীদের সাতটি প্রতিষ্ঠানে সমন্বয় করা হয়েছে। বানিয়াখামার মাধ্যমিক বিদ্যালয়কে নতুন করে অন্তর্ভুক্ত করার পরও সঙ্কট চলছে। খুলনা জেলা পরীক্ষা পরিচালনা কমিটির কার্যবিবরণীতে বলা হয়েছে, সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে পরীক্ষা সম্পন্নের জন্য নতুন কেন্দ্রের আবশ্যকতা দেখা দিয়েছে। পল্লীমঙ্গল মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ধারণ ক্ষমতার অতিরিক্ত পরীক্ষার্থীর সংখ্যা। এ কেন্দ্রে ধারণ ক্ষমতা ৪২৮ জন। ইসলামাবাদ কলেজিয়েট স্কুলকে নতুন কেন্দ্র করার উদ্যোগ চলছে। জেলার ৫৩টি কেন্দ্রে ৩৪ হাজার ৬৮৫ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে। আসন সঙ্কটের বিষয়টি খুলনায় এই প্রথম। এই প্রথমবারের মত পরীক্ষায় সিকিউরিটি খামে প্রশ্নপত্র রাখা হচ্ছে। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) গোলাম মাঈন উদ্দিন হাসান জানান, বোর্ড কর্তৃপক্ষ এইচআরএইচ প্রিন্স আগাখান মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র স্থগিত করার পর সঙ্কট দেখা দিয়েছে। সঙ্কট নিরসনের উদ্যোগ চলছে। পুলিশি পাহারায় সিকিউরিটি খামের মধ্যে প্রশ্নপত্র উপজেলায় পাঠানো হচ্ছে। দাকোপ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আব্দুল ওয়াদুদ জানান, উপজেলার চালনা ও বাজুয়া দু’টি কেন্দ্রে ১৮শ’ পরীক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে। দু’টি কেন্দ্রে ৩৯টি মাধ্যমিক পর্যায়ের স্কুল অংশ নেবে। পরীক্ষা পরিচালনার জন্য ২৯ অক্টোবর সভা আহবান করা হয়েছে। খুলনা মহানগরীর প্রস্তাবিত কেন্দ্র ইসলামাবাদ কলেজিয়েট স্কুলের অধ্যক্ষ জানান, এখানে নতুন ভেন্যু করলে সঙ্কট নিরসন হতে পারে। জেলায় পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্নের জন্য ২৫টি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্যগুলো হচ্ছে-পরীক্ষা কেন্দ্রের ১৪৪ ধারা জারী করা চিহ্নিত স্থানগুলোতে লাল পতাকা, কেন্দ্রের ২শ’ গজের মধ্যে ফটোকপি মেশিন বন্ধ, পরীক্ষা শেষে উত্তরপত্র দ্রুত বোর্ডে প্রেরণ, প্রয়োজনীয় পুলিশ ফোর্স মোতায়েন, কেন্দ্র অভ্যন্তরে মোবাইল ফোন ব্যবহার না করা ইত্যাদি। আগামী ১৫ নবেম্বর জেএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শেষ হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ