মঙ্গলবার ০২ জুন ২০২০
Online Edition

পালিয়ে বেড়াচ্ছেন ক্ষতিগ্রস্ত মৎস্য ব্যাবসায়ী

 

রামগঞ্জ (লক্ষ্মীপুর) সংবাদদাতা : পুকুরে বিষ দিয়ে কয়েক লাখ টাকার মাছ নিধনের মামলা করে উল্টো পালিয়ে বেড়াচ্ছে সাইফুল ইসলাম সুমন নামের এক মামলার বাদি। উপজেলার ৪নং ইছাপুর ইউনিয়নের ইছাপুর গ্রামের মৎস্য চাষী সাইফুল ইসলাম সুমন লক্ষ্মীপুর জেলা ম্যাজিস্ট্রে আদালতে বিষ প্রয়োগ করে মাছ নিধন মামলা দায়ের করার অপরাধে বুধবার বিকেলে আসামী ও আসামী পক্ষের লোকজন, দেশীয় অস্ত্র, কাঠের টুকরো হাতে নিয়ে মামলার বাদিকে ধাওয়া করে। প্রান রক্ষার্থে বাদি এলাকা থেকে অন্যত্রে পালিয়ে প্রানে রক্ষা পায়। সৃষ্ট ঘটনা এলাকার সর্বসাধারনের মাঝে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। সুত্রে জানায়, উপজেলার ৪ নম্বর ইছাপুর ইউনিয়নের ইছাপুর গ্রামের আলেখার বাড়ির মোঃ মমতাজ উদ্দিরে পুত্র সাইফুল ইসলাম সুমনের মৎস্য খামারে ৫ অক্টোবর ভোর রাতে দুস্কৃতিকারীদেও দেয়া বিষে প্রায় ৫ লক্ষাধিক টাকার মাছের পোনা মারা যায়।  ঘটনার ৬ দিন পর বুধবার (১০ অক্টোবর) চাষী সাইফুল ইসলাম সুমন বাদি হয়ে লক্ষ্মীপুর সিনিয়র জুড়িসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী অঞ্চল রামগঞ্জ আদালতে ইছাপুর গ্রামের আলেখার বাড়ির লেদু মিয়ার ছেলে বিল্লাল হোসেন, তারই ভাই মোঃ ইসমাইল হোসেন ও একই বাড়ির মৃত আবদুল গফুরের ছেলে ছেরাজুল হক, মৃত আবদুল মন্নানের ছেলে ফারুক হোসেনসহ ৬ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ১৩/১৪ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়ের করে সুমন বিকেলে বাড়ি ফিরার সময় আসামী ও আসামী পক্ষের লোকজন বাদিকে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ধাওয়া করলে তিনি দৌড়ে পালিয়ে যান। মামলার বাদি সাইফুল ইসলাম বলেন, আসামীরা আমাকে না পেয়ে আমার মা-বাবা সহ পরিবারের সদস্যদের প্রাননাশ সহ নানা ভয়ভীতি প্রদর্শন করছে। এব্যাপারে মামলার আসামী ফারুক হোসেন বলেন, মাছে বিষ প্রয়োগের বিষয়টি স্থানীয় ভাবে মিমাংসার চেষ্টা করে করছি। এরই মাঝে সুমন আদালতে মামলা করা ঠিক হয়নি। তাই অনেক ধৈর্য ধরেছি, আর নয়। এজন্য সুমনকে অনেক খেশারত দিতে হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ