মঙ্গলবার ০২ জুন ২০২০
Online Edition

রাজধানীর উত্তরায় বাসা থেকে নিরাপত্তা কর্মীর গুলীবিদ্ধ লাশ উদ্ধার

স্টাফ রিপোর্টার : রাজধানীর উত্তরার ১০ নম্বর সেক্টরের একটি বাসা থেকে খোকন ম-ল (২৮) নামে এক নিরাপত্তা কর্মীর গুলীবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বুধবার (১০ অক্টোবর) রাত ১০টার দিকে উত্তরার ১০ নম্বর সেক্টরের ২২ নম্বর রোডের ২৯ নম্বর বাসার নিচ তলার একটি তালাবদ্ধ কক্ষ থেকে তার লাশ উদ্ধার করে। পরে ময়নাতদন্তের জন্য গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ২টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠায়।

মৃত খোকন লালমনিরহাট সদর উপজেলার দেলোয়ার হোসেন ম-লের ছেলে। এবং সে ওই বাসায় নিরাপত্তাকর্মীর দায়িত্বে ছিলেন। ৩ ভাই বোনের মধ্যে মেঝো সে। ছোটভাই সুজন ম-লকে নিয়ে উত্তরার ওই ৬ তলা বাসার নিচ তলায় থাকতো সে। গত সাড়ে ৪ বছর ধরে ওই বাসার নিরাপত্তাকর্মীর দায়িত্ব পালন করতো খোকন।

মৃত খোকনের ছোটভাই সুজন মন্ড জানান, তিনি নিজে গাজিপুরের একটি পোশাক তৈরি কারখানায় কাজ করেন। বুধবার সকালে বাসা থেকে তিনি গাজিপুরে কারখানায় যান। তখন বড়ভাই খোকন বাসায়ই ছিলো। বিকেল ৫টার দিকে বাসার মালিকের স্ত্রী সুরাইয়া বেগম খোকনকে দেখতে না পেয়ে ও তার রুম তালাবন্ধ দেখে ছোটভাই সুজনকে ফোন করেন। সুজন বাসায় এসে তাকে বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুজি করেন। না পেয়ে পুলিশে খবর দিলে থানা পুলিশ ও সিআইডি’র টিম এসে ওই বাসার নিচ তলায় তাদের রুমের তালা ভেঙে ভেতরের মেঝেতে খোকনের লাশ পড়ে থাকতে দেখে। এ সময় তার নাক মুখ দিয়ে রক্ত বের হচ্ছিলো।

উত্তরা পশ্চিম থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) জিন্নাত খান বলেন, ‘রাতেই খবর পেয়ে ওই বাসার নিচ তলার নিরাপত্তাকর্মীর রুমের তালা ভেঙে খোকনের লাশ উদ্ধার করা হয়। তার নাক মুখ দিয়ে রক্ত বের হচ্ছিলো। তাছাড়া তার মাথার বাম পাশেও রক্তাক্ত ছিল। এ সময় তার লাশের পাশে একটি গুলীর খোসা পাওয়া গেছে। ময়নাতদন্তের পরই তার মৃত্যুর কারণ জানা যাবে বলে জানান তিনি। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।’

নিহতের ছোটভাই সুজনসহ হাসপাতালের মর্গে আসা স্বজনরা কেউ খোকনের মৃত্যুর বিষয়ে কিছু জানাতে পারেননি। তবে তার সাথে কারো কোনো দ্বন্দ্ব ছিল না বলে জানান তারা।

ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক ঢাকা মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের প্রভাষক ডা. কবির সোহেল জানান, নিহত খোকনের লাশের মুখের ভেতর থেকে একটি গুলী উদ্ধার করা হয়েছে। এই গুলীর কারণেই তার মৃত্যু হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ