সোমবার ০১ জুন ২০২০
Online Edition

শ্লীলতাহানির অভিযোগে খর্ণিয়ার রানাই মহিলা মাদরাসার সুপার পলাতক

খুলনা অফিস : খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার খর্ণিয়া ইউনিয়নের একটি মাদরাসার সুপারের বিরুদ্ধে ছাত্রীদের শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় মাদরাসার শিক্ষক অভিভাবক ও ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। ঘটনার পর থেকে মাদরাসা সুপার মোস্তফা কামাল পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।
মাদরাসার অভিভাবক ও এলাকাবাসীরা জানান, গত বুধবার ডুমুরিয়া খর্ণিয়া ইউনিয়ন রানাই মহিলা দাখিল মাদরাসার ভেতরেই ছাত্রীদের শ্লীলতাহানির ঘটনা ঘটে। ঘটনা জানাজানির পর শুক্রবার শ্লীলতাহানির শিকার ৪/৫ জন ছাত্রীর অভিভাবক লিখিত আকারে মাদরাসা বোর্ডের কাছে অভিযোগ জমা দেন। তাদের অভিযোগ এর আগেও সুপার শ্লীলতাহানিতে অভিযুক্ত হন।
অভিযোগকারীরা হলেন-খর্ণিয়া ভদ্রাদিয়া গ্রামের এক ছাত্রীর অভিভাবক হোসেন সরদার। তিনি মাদরাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি আব্দুর সাত্তার মোল্লার বরাবরে ছাত্রীদের শ্লীলতাহানির লিখিত অভিযোগ জমা দেন।
মাদরাসার অভিভাবক সদস্য আরাজ খান, জাহাঙ্গীর বিশ্বাস ও সাবেক অভিভাবক সদস্য ইসলাম সরদার সাংবাদিকদের কাছে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন।
এ ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার রানাই মহিলা দাখিল মাদরাসার অভিভাবক সদস্য ও শিক্ষকরা এক বৈঠকে বসেন। কিন্তু মাদরাসা সুপার মোস্তফা কামালের বিরুদ্ধে কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণ ছাড়াই সভা শেষ হয়। সভায় উপস্থিত এই মাদরাসার সহকারী সুপার জিএম আব্দুস সাত্তার, শিক্ষক দেবপ্রসাদ হালদার সভা হওয়ার ঘটনা স্বীকার করেন।
মাদরাসা পরিচালনা কমিটি আগামী সোমবার এক সভা ডেকেছেন। সভায় পরিচালনা কমিটির সভাপতি, সহ-সভাপতি এএসপি আব্দুল হালিম মোল্লাসহ অন্যান্যরা সদস্যরা উপস্থিত থাকবেন বলে জানা গেছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ