বৃহস্পতিবার ২৬ নবেম্বর ২০২০
Online Edition

কাভানার পক্ষে প্রভাবশালী সিনেটররা

৬ অক্টোবর, বিবিসি : ব্রেট কাভানার নিয়োগ বছরের বিতর্কিত ইস্যুতে পরিণত হয়। যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্টের জন্য প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পমনোনীত বিচারপতি ব্রেট কাভানার নিয়োগের ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে গতকাল শনিবার হওয়ার কথা। এর মধ্যে কাভানার পক্ষে বাতাস বইতে শুরু করেছে। প্রভাবশালী সিনেটররা জানিয়ে দিয়েছেন, তাঁরা কাভানার পক্ষে থাকবেন।

সুপ্রিম কোর্টের একজন বিচারপতি অবসরে যাওয়ার পর শূন্য পদে নিয়োগের জন্য আপিল কোর্টের বিচারপতি ব্রেট কাভানাকে মনোনয়ন দেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। সিনেটে ৫১-৪৯ আসনে রিপাবলিকানরা সংখ্যাগরিষ্ঠ বলে ধারণা করা হয়েছিল, কাভানার নিয়োগ নিয়ে কোনো সমস্যা হবে না। ডেমোক্র্যাটরা বাধা দিলেও তা সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটের কাছে টিকবে না। সিনেটের ২১ সদস্যের বিচারবিষয়ক কমিটিতে ভোটে পাস করার পর সিনেটের পূর্ণ ভোট পেলেই সারা জীবনের জন্য সুপ্রিম কোর্টের পদটি নিশ্চিত হয়ে যাবে কাভানার। যুক্তরাষ্ট্রে নয় সদস্যের সুপ্রিম কোর্টের প্রভাব অপরিসীম।

তবে যৌন হয়রানির অভিযোগের মুখে কাভানার নিয়োগ নিয়ে শুরু হয় বিতর্ক। একজন সিনেটরের দাবিতে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প অভিযোগগুলো তদন্তের ভার দেন গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআইকে। এ জন্য এক সপ্তাহের সময় বেঁধে দেন তিনি। যদিও তদন্তের সময় বেঁধে দেওয়া নিয়ে ডেমোক্র্যাটরা প্রশ্ন তুলেছেন।

বিবিসি অনলাইনের খবরে জানানো হয়, বিচারবিষয়ক কমিটিতে ১১ রিপাবলিকানের ভোট পেয়েছিলেন কাভানা। ওই কমিটির ১০ জন ডেমোক্র্যাট তাঁকে ভোট দেননি। আজ শনিবার পূর্ণ সিনেটের চূড়ান্ত ভোট হওয়ার কথা রয়েছে। এর আগে কয়েকজন সিনেটর গতকাল শুক্রবার কাভানার পক্ষে তাঁদের ভোট দেওয়ার আভাস দিয়েছেন। রিপাবলিকান সিনেটর সুসান কলিন্স ও ডেমোক্র্যাট সিনেটর জো মানচিন গতকাল তাঁদের সমর্থনের কথা জানিয়েছেন। চূড়ান্ত মনোনয়নের আগে গতকাল পরীক্ষামূলক ভোট ও মনোনয়নের পক্ষে-বিপক্ষে সংক্ষিপ্ত বিতর্ক হয়। এই ভোটে (ক্লোচার ভোট) ৫১-৪৯ ভোটে কাভানার পক্ষে সমর্থন দিয়েছেন সিনেটর। এর মধ্যে নিজ দলের বিরুদ্ধে গিয়ে ডেমোক্র্যাট মানচিন বিচারপতি কাভানার পক্ষে ভোট দিয়েছেন আর রিপাবলিকান লিসা মুর্কওয়াস্কি কাভানার বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছেন।

কলিন্স ও মানচিনের কাভানার পক্ষে সমর্থন দেওয়া নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। কলিন্সের সিদ্ধান্তের প্রতি সমর্থন দিয়েছেন সাবেক প্রেসিডেন্ট জর্জ এইচ ডব্লিউ বুশ এবং হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি সারাহ স্যান্ডার্স। 

এদিকে ডেমোক্র্যাট মানচিন নিজ দলের সমর্থকদের তোপের মুখে পড়েছেন। নির্বাচনে ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রার্থীদের জন্য অর্থ সংগ্রহকারী একটি গ্রুপ জানিয়েছে, তারা মানচিনের জন্য আর অর্থ সংগ্রহ করবে না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ