সোমবার ১০ আগস্ট ২০২০
Online Edition

পরাজিত প্রেসিডেন্টকে আশ্রয় দিতে প্রস্তুত শ্রীলংকা

আবদুল্লাহ ইয়ামিন

২৬ সেপ্টেম্বর, এএফপি/রয়টার্স : মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে পরাজিত আবদুল্লাহ ইয়ামিনকে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত রয়েছে প্রতিবেশী দেশ শ্রীলংকা। ভারত মহাসাগরের ক্ষুদ্রতম দ্বীপরাষ্ট্রটির প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বিস্ময়কর পরাজয়ের দুদিন পর ইয়ামিনকে এ আহ্বান জানিয়েছে কলম্বো। এদিকে গতকাল মালদ্বীপে ‘ধারাবাহিকতা ও স্থিতিশীলতার’ আহ্বান জানিয়েছে আঞ্চলিক পরাশক্তি চীন।

মালদ্বীপের বিরোধী মতের নিরাপদ আশ্রয়কেন্দ্র হিসেবে দীর্ঘদিন ধরেই ভূমিকা রাখছে শ্রীলংকা। ২০১৩ সালে ইয়ামিন প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে শত শত বিরোধী সমর্থকদেরও নিরাপদ আশ্রয় হিসেবে ভূমিকা রেখেছে দেশটি।

সোমবার এক ফোনালাপে শ্রীলংকার প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমসিংহ মালদ্বীপের পরাজিত প্রেসিডেন্টকে জানিয়েছেন, কলম্বোর দরজা তার জন্য সবসময়ই উন্মুক্ত। শ্রীলংকার প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে জানানো হয়েছে, ইয়ামিনের কঠিন প্রতিপক্ষ ও মালদ্বীপের সাবেক প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ নাশিদের সঙ্গে সোমবার মধ্যাহ্নভোজন শেষে এ আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

নাশিদ গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত দেশটির প্রথম প্রেসিডেন্ট। ২০১৩ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ইয়ামিনের কাছে অল্প ব্যবধানে পরাজিত হওয়ার পর তাকে দুর্নীতির দায়ে ১৩ বছরের সাজা দিয়েছিল দেশটির নতুন সরকার। লন্ডনে পালিয়ে গিয়ে সেখানে রাজনৈতিক আশ্রয় প্রার্থনা করেন নাশিদ। সেখান থেকে শ্রীলংকায় স্বেচ্ছা নির্বাসনে রয়েছেন জনপ্রিয় এ রাজনীতিবিদ।

রোববার অনুষ্ঠিত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রধান বিরোধী রাজনীতিবিদরা জেলে থাকায় কিছুটা অপরিচিত প্রার্থী ইব্রাহিম মোহাম্মদ সলিহের পেছনে দাঁড়িয়েছিল সব বিরোধী দল ও তাদের সমর্থকরা। ক্ষমতাসীন দল ও তাদের ঘনিষ্ঠ মিত্র চীনসহ সবাইকে অবাক করে দিয়ে ৫৮ শতাংশ ভোট পান সলিহ।

সলিহের জয়কে স্বাগত জানিয়েছে অন্য আঞ্চলিক শক্তি ভারত। নয়াদিল্লীর আঞ্চলিক প্রতিপক্ষ বেইজিং থেকে অবকাঠামোসহ বিভিন্ন খাতে বড় অংকের বিনিয়োগ সহায়তা ও ঋণ গ্রহণ করছিল মালে। ইয়ামিনের চীনঘেঁষা পররাষ্ট্রনীতি নয়াদিল্লীকে উদ্বেগে ফেলে দিয়েছিল।

নির্বাচনে বিজয়ী সলিহ, সব রাজনৈতিক বিরোধীকে অবিলম্বে মুক্তি দেবেন বলে আশ্বস্ত করেছেন। সোমবার রাতে এরই মধ্যে পাঁচজনকে মুক্তি দিয়েছেন মালদ্বীপের একটি আদালত। তবে এখনো জেলে রয়েছেন অসংখ্য বিরোধী রাজনৈতিক নেতা, যাদের মধ্যে অন্যতম দেশটির দীর্ঘ সময়ের শাসক মামুন আবদুল গাইয়ুম। প্রেসিডেন্ট ইয়ামিনের সত্ভাই ৮০ বছর বয়সী ওই রাজনীতিবিদকে শিগগিরই মুক্তি দেয়া হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

আন্তর্জাতিক চাপের মুখে নির্বাচনে পরাজয় স্বীকার করেছেন ইয়ামিন এবং শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। আগামী ১৭ নভেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমতা ছাড়ার কথা রয়েছে তার। এদিকে মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়ী সলিহকে অভিনন্দন জানিয়েছে বেইজিং। চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র গেং শুয়াং বলেন, চীন মালদ্বীপের জনগণের পছন্দকে সম্মান জানায় এবং উভয় দেশের মধ্যকার ঐতিহাসিক বন্ধুত্বকে সুসংহত করতে আগ্রহী।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ