বুধবার ১৯ জানুয়ারি ২০২২
Online Edition

রূপসায় বিদেশী সংস্থার নলকূপ ও বাথরুম দেয়ার নামে অর্থ আত্মসাত

খুলনা অফিস : রূপসার বেশ কয়েকটি এলাকায় একটি চক্র কাতার চ্যারিটি সাহায্য সংস্থার বিনামূল্যে গভীর নলকূপ ও পাকা বাথরুম বিতরণের একটি চক্র মোটা অঙ্কের অর্থ হাতিয়ে নিয়েছে। দীর্ঘ তিন বছর আগে প্রতারক চক্রটি টাকা নিলেও এখন নলকূপ ও পাকা বাথরুম নির্মাণ করে না দিয়ে প্রতারণায় লিপ্ত হয়েছে। এমনকি টাকাও ফেরত দিচ্ছেনা। এ নিয়ে ভুক্তভোগীরা প্রায় এ চক্রের হাতে নাজেহাল হচ্ছেন। এ ঘটনায় জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত অভিযোগ দাখিল করা হয়েছে। অভিযোগে বলা হয়েছে, রূপসা, তেরখাদা ও দিঘলিয়া উপজেলার সাধারণ মানুষকে কাতার চ্যারিটি সেবামূলক প্রতিষ্ঠান ও সাহায্য সংস্থার পক্ষ থেকে একটি গভীর নলকূপ ও একটি পাকা বাথরুম নির্মাণ করে দেয়ার পরিকল্পনা নেয়। সে মোতাবেক ২নং শ্রীফলতলা ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের সদস্য মোকসেদ মল্লিক ও তার স্ত্রী জেলা মহিলা লীগ নেত্রী সাবিনা ইয়াসমিন শত শত লোকের কাছ থেকে গভীর নলকূপ ও বাথরুম দেয়ার কথা বলে ১৬ হাজার থেকে ৩০ হাজার টাকা নিয়েছেন। কিন্তু তারা প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী কল ও বাথরুম দিতে পারেননি। এ কারণে প্রতিদিন পাওনাদাররা টাকার দাবিতে তার বাড়িতে ভিড় জমাচ্ছেন। কিন্তু টাকা না দিয়ে বছরের পর বছর ঘোরাচ্ছেন তারা। এমনকি পাওনাদারদের নানাভাবে হুমকি ও অশালীন আচরণ করে তাড়িয়ে দেন।

অভিযোগে বলা হয়েছে, শিরগাতী গ্রামের আকব্বর হাওলাদার, রায়হান উদ্দিন, ডা. শহীদ, সালমা, শাহাদাৎ, আকবর শেখ, লোকমান শেখ, খান মোহাম্মাদপুর গ্রামের সোহরাব, মোহাফিল, কুরবান আব্দুল মান্নান’র কাছ থেকে টাকা গ্রহণ করেন। সাবেক ইউপি সদস্য রেজার মাধ্যমে দুই জনের টাকা গ্রহণ করেন। আলম নামক এক ব্যক্তির বাধ্যমে ৪ জনের টাকা নিয়ে থাকেন। এভাবে স্বামী ও স্ত্রী প্রতারণার মাধমে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেন। এ বিষয়ে ক্ষতিগ্রস্ত কুরবান, রিনা বেগম, আক্কবর শেখ, কালাম ও সোহরাব খুলনা জেলা প্রশাসক বরাবর গত রোববার অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

অভিযোগের বিষয়ে ইউপি সদস্য মোকসেদ মল্লিক বলেন, তার স্ত্রী জেলা আওয়ামী লীগের নেত্রী। সে তদবির করে জেলা পরিষদ থেকে বরাদ্দ করিয়েছে। আগামী দু-এক মাসের তাদের গভীর নলকূপ বসিয়ে দেয়া হবে। তবে, জেলা পরিষদে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জেলা পরিষদের এ ধরনের কোনো প্রকল্প নেই।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ